দুপুরেও দেখা নেই টিসিবির গাড়ির

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:৪০ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০২২

সোমবার মধ্যদুপুর। আজিমপুর বাসস্ট্যান্ডের অদূরে ফুটপাতে বসে আছেন রাজধানীর পুরান ঢাকার শহীদনগরের বাসিন্দা ৯৫ বছর বয়সী বৃদ্ধ শুক্কর আলী। বাজারমূল্যের চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম দামে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবির পণ্যবাহী ট্রাক থেকে চিনি, মশুর ডাল, সয়াবিন তেল ও পেঁয়াজ কিনতে এসেছেন তিনি। কিন্তু দেরিতে আসায় লাইনের অনেক পেছনে পড়েছেন। এ কারণে রাস্তার পাশের ফুটপাতে বসে আছেন। তার সামনে শতাধিক নারী ও পুরুষের দীর্ঘ লাইন। তাদের কেউ সকাল ৯টা, কেউ ১০-১১টা থেকে অপেক্ষা করছেন। দূরের মসজিদ থেকে জোহরের নামাজের আজান ভেসে আসলেও টিসিবির পণ্যবাহী ট্রাকের দেখা নেই।

ক্লান্ত বৃদ্ধ শুক্কর আলীর সঙ্গে কথা হয় জাগো নিউজের। তিনি বলেন, ‘গাড়ি আহনের নির্দিষ্ট টাইম নাই। কোনো দিন ১০টায়, কোনো দিন দুপুরে। এ বয়সে লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য কিনতে কষ্ট অয়। কিন্তু কী করুম, তাই দেরিতে আইয়া চেষ্টা করি।’

jagonews24

পাশেই লাইনে অপেক্ষমাণ এক যুবক বার বার রাস্তার দিকে তাকিয়ে পণ্যবাহী ট্রাক আসছে কি না তা দেখছিলেন। কামরাঙ্গীরচর এলাকার বাসিন্দা পেশায় রিকশাচালক মনসুর মিয়া বলেন, ‘রিকশা রাইখ্যা এক ঘন্টারও বেশি টাইম ধইরা ট্রাকের অপেক্ষায় লাইনে দাঁড়াইয়া রইছি। কিন্তু গাড়ির দেখা নাই।’

তিনি বলেন, ‘জিনিসপত্রের যা দাম, সারাদিন রিকশা চালাইয়া ৫০০ টাকা রোজগার করলেও বাজারে গেলে এ টাকায় বলতে গেলে কিছুই কেনা যায় না। তাই প্রায়ই লাইনে দাঁড়াইয়া টিসিবির পণ্য কিনতে বাধ্য অই।’ বাজারের চেয়ে অর্ধেক দামে ১১০ টাকায় তেল কিনতে পারলে বাকি টাকা দিয়া দুই কেজি চাল কিনতে পারেন বলে জানান তিনি।

শুধুই বৃদ্ধ শুক্কুর আলী কিংবা রিকশাচালক মনসুর মিয়া নন, তাদের মতো শতাধিক আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা টিসিবির পণ্যবাহী ট্রাক থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেন। ট্রাকে এলে এবং লাইনে সামনে থাকলে পণ্য পান। বেশি পেছনে লাইনে থাকলে অনেক সময় ফিরেও যেতে হয় বলে জানান অপেক্ষারতরা।

তারা জানান, টিসিবির পণ্যবাহী ট্রাক থেকে প্রতি কেজি চিনি ৫৫ টাকায়, মসুর ডাল ৬০ টাকায়, সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১১০ টাকায় এবং পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৩০ টাকায় কিনতে পারেন। একজন ক্রেতা সর্বনিম্ন দুই থেকে সর্বোচ্চ পাঁচ কেজি পেঁয়াজ, দুই কেজি মসুর ডাল, দুই কেজি চিনি ও পাঁচ লিটার সয়াবিন তেল কিনতে পারেন।

jagonews24

সোমবার সরেজমিনে আজিমপুরে দেখা গেছে, অসংখ্য নারী ও পুরুষ লাইনে দাঁড়িয়েছেন। ট্রাক না এলেও লাইনে আগে-পিছে দাঁড়ানো নিয়ে ঝগড়া করছেন অনেকে।

পঞ্চাশোর্ধ্ব নারী সাজু আক্তার জানান, ডায়াবেটিসসহ নানা রোগে ভুগছেন তিনি। তবুও পেটের দায়ে একটু সস্তায় পণ্য কিনতে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। তিনি বলেন, টিসিবির ট্রাক আসার একটা নির্দিষ্ট সময় বলে দিলে তার কষ্ট কম হতো। এছাড়া গরিব মানুষের কথা চিন্তা করে মালের পরিমাণও বাড়িয়ে দিলে ভালো হয়।

সেখানে উপস্থিত অনেকেই জানান, কেউ কেউ বিশেষ করে কিছু নারী সংঘবদ্ধ হয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য কেনেন। তারা এখান থেকে পণ্য কিনে বেশি দামে মার্কেটে বা মুদি দোকানে বিক্রি করেন বলে অভিযোগ তাদের। এ কারণে প্রকৃতপক্ষে যাদের দরকার, তারা টিসিবির পণ্য পান না বলেও অভিযোগ তাদের।

এমইউ/ইএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]