প্রতিযোগিতা কমিশনে ৯ মামলার শুনানি, তথ্য দাখিলের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৩৪ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

অস্বাভাবিকভাবে মূল্য বাড়িয়ে বাজার অস্থিতিশীল করার অভিযোগের নয় মামলায় ছয়টি কোম্পানি ও একজন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে শুনানি হয়েছে মঙ্গলবার। এসময় আদালত প্রতিযোগিতা কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কমিশনের চাহিদা মোতাবেক প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিলের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের আদালতে শুনানিতে চালের জন্য রশিদ এগ্রো ফুডের স্বত্বাধিকারী আব্দুর রশিদ, নওগাঁর বেলকন গ্রুপের স্বত্বাধিকারী বেলাল হোসেন, চাল ও আটা-ময়দার পৃথক দুটি মামলায় সিটি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং আটা-ময়দার একটি মামলায় বাংলাদেশ এডিবল অয়েলের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে এজলাসে নেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে ডিম ও মুরগির বাজারে কারসাজির জন্য পৃথক দুটি মামলার শুনানিতে প্যারাগন পোল্ট্রি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিকভাবে মূল্য বাড়িয়ে বাজার অস্থিতিশীল করার অভিযোগে ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড, বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে এজলাসে নেওয়া হয়। ডিমের বাজারে কারসাজির অভিযোগে ডিম ব্যবসায়ী আড়ৎদার বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি আমানত উল্লাহ শুনানির জন্য কমিশনের এজলাসে নেওয়া হয়েছে।

এসময় কমিশনের চাওয়া তথ্য নির্ধারিত সময়ে দাখিলের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। এসব মামলার পরবর্তী শুনানির তারিখ কমিশনের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানানো হবে বলে জানায় প্রতিযোগিতা কমিশন।

প্রতিযোগিতা কমিশন বলছে, বর্তমান দেশের বাজারে চাল, আটা-ময়দা, ডিম, ব্রয়লার মুরগি, টয়লেট্রিজ (সাবান, সুগন্ধি সাবান, গুঁড়া সাবান) ইত্যাদির অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি বা কৃত্রিম সংকটের ফলে যে অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে তা দূর করতে এসব ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা করেছে। এর শুনানি শুরু হয়েছে গত সোমবার থেকে। এর আগে সোমবার শুনানির প্রথম দিন ডিম ও মুরগির জন্য দুই মামলায় কাজী ফার্মসের প্রতিনিধি অংশ নেন।

এদিকে বিশ্ববাজারে কাঁচামালের দাম, ফ্রেইট চার্জ ও ডলারের দাম বৃদ্ধির কারণে সাবান শ্যাম্পুর দাম বাড়ালেও ইউনিলিভার বাংলাদেশ সেখানে প্রফিট মার্জিনে ছাড় দিচ্ছে বলে দাবি করেছে শুনানিতে।

শুনানিতে বাংলাদেশ এডিবল ওয়েল লিমিটেডের আইনজীবি জানান, প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব কোনো চালের মিল নেই। তারা অন্য মিল থেকে চাল কিনে রুপচাঁদা ও ভিওলা নামের দুটি ব্র্যান্ডে বাজারজাত করছেন। এর মধ্যে রুপচাঁদা ব্র্যান্ডের চালের দাম একটু বেশি এবং ভিওলার দাম তুলনামূলক কম।

পণ্যের দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়িয়ে বাজার ‘অস্থিতিশীল’ করার অভিযোগে নিত্যপণ্য প্রস্তুতকারক ও সরবরাহকারী কোম্পানি ও ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার ৪৪টি মামলা করে প্রতিযোগিতা কমিশন।

প্রতিযোগিতা কমিশন আইনে কমিশনেই চাল, তেল, সাবান, আটা, ডিম ও মুরগি উৎপাদন ও সরবরাহ খাতের এসব কোম্পানি ও ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সময়ে দাম বাড়ানোসহ আরও কিছু অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ায় পৃথকভাবে এসব মামলা করা হয়।

পর্যায়ক্রমে এসব মামলার শুনানি হবে কমিশনে, যা শুরু হয় সোমবার কাজী ফার্মসকে দিয়ে। এদিকে বুধবার প্রতিযোগিতা কমিশনে ৮টি মামলার শুনানি হবে। পরেরদিন হবে আরও আটটি।

এনএইচ/এমএইচআর/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।