১০ ডিসেম্বর

ক্রেতা কম, শনিবার দোকান খোলা নিয়ে দ্বিধায় ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:২৪ পিএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২

শনিবার (১০ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠেয় হবে বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ। বিএনপির এ গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে সতর্ক অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গণসমাবেশ কেন্দ্র করে সংঘাতের আশঙ্কায় রাজধানীর সড়কে গণপরিবহন ও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল কমে গেছে। সড়কে মানুষের উপস্থিতিও কমেছে। তাই অন্যান্য শুক্রবারের তুলনায় আজ (৯ ডিসেম্বর) রাজধানীর মার্কেটগুলোতে ক্রেতার সংখ্যাও কম। ছুটির দিন হওয়ায় ধানমন্ডির রাপা প্লাজা, সানরাইজ প্লাজা, অর্কিড প্লাজা, এ আর প্লাজা ও মোহাম্মাদিয়া সুপার মার্কেটসহ প্রায় সব মার্কেটই খোলা ছিল। কিন্তু, এসব মার্কেটের দোকানগুলোতে ক্রেতা ছিল হাতগোনা। যারা এসেছেন তাদের বেশিরভাগেই বাসা মার্কেট সংলগ্ন এলাকায়।

মার্কেটগুলো ঘুরে দেখা গেছে— বেশিরভাগ দোকানই ক্রেতাশূন্য। ক্রেতা না থাকায় অনেক বিক্রয় প্রতিনিধি আলস সময় কাটাচ্ছেন। সমাবেশকে কেন্দ্র করে বাস বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় বেশিভাগ দোকানি সন্ধ্যা সাতটার মধ্যে দোকান বন্ধ করার কথা জানিয়েছেন। সহিংসতার আশঙ্কায় শনিবার দোকান খুলবেন কি না তা নিয়েও দ্বিধায় আছেন ব্যবসায়ীরা।

কথা হলে রাপা প্লাজার তৃতীয় তলায় অবস্থিত ইউনিক সফটের বিক্রয় প্রতিনিধি শাকিল আহমেদ বলেন, অন্যান্য দিন কয়েকজন দোকানে থাকেন। আজকে শুধু আমি একাই। সমাবেশকে কেন্দ্র করে ঝামেলার আশঙ্কায় অন্য স্টাফরা আসেননি।

গাড়ি বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, সন্ধ্যা সাতটার দিকে দোকান বন্ধ করে দেবো। শনিবার পরিস্থিতি ভালো হলে দোকানে খুলবেন মালিক। অন্যথায় কি করবেন তা এখনো জানাননি।

একই মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় রাজলক্ষ্মী জুয়েলার্স। এ দোকানের বিক্রয় প্রতিনিধি মুক্তার হোসেন বলেন, অনেক আইটেমেই আজকে ডিসপ্লেতে রাখিনি। পরিস্থিতি ভালো না। পরিবহন চালকরা গাড়ি বের হতে ভয় পাচ্ছেন। অন্যান্য ছুটির দিনে বেচাকেনা ভালো হয়। কিন্তু আজ গাড়ি কম থাকায় এবং বিএনপির সমাবেশ, পুলিশের অবস্থায় সবদিক বিবেচনায় অনেকেই বাসা থেকে বের হননি। যারা বের হয়েছে গাড়ি না থাকায় অনেকেই বিপাকে পড়েছেন। তাকে বেচাকেনা কম, সন্ধ্যা সাতটার আগেই দোকান বন্ধ করে দেবো।

হুসাইন প্লাজার বিক্রয়কর্মী সুমন জানান, আজকে একদম কাস্টমার নেই। আমার দোকান যেহেতু রাস্তার পাশেই ভাবছি মাগরিবের আগেই বন্ধ করে দেবো।

এ আর প্লাজার জুতার দোকানের কর্মচারী রাফিক হাসান জানান, শনিবার যদি রাস্তায় গাড়ি থাকে তাহলে আসবো। অন্যথায় আসবো না। কারণ মানুষ না এলে দোকান খুলে লাভ কি।

এসএম/এমএএইচ/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।