১১ দফা দাবিতে রাজধানীতে শিক্ষকদের মহাসমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৫৭ পিএম, ১৪ মার্চ ২০১৮

জাতীয়করণসহ ১১ দফা দাবিতে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের মহাসবাবেশে পালিত হচ্ছে। পূর্ণ ঘোষণা অনূযায়ী বুধবার সকাল থেকে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে প্রায় লক্ষাধিক শিক্ষক-কর্মচারী এ মহাসমাবেশে যোগ দিয়েছেন। শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির ব্যানারে এ কর্মসূচি পালন করছেন তারা।

সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকায় এসে এ কর্মসূচীতে যোগ দিয়েছেন। তারা বিভিন্ন দাবি-দাওয়া সম্বলিত ফেস্টুন, ব্যানার, প্লাকার্ড ও জাতীয়করণ চাই এমন নানা শ্লোগানে মাথায় ফিতা বেঁধে বিক্ষোভ করছেন। রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এ কর্মসূচী পালনের কথা থাকলেও সেখানে অনুমতি না পেয়ে তারা প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান নিয়েছেন। শিক্ষক-কর্মচারীরা প্রেস ক্লাব, আব্দুল গনি রোড, দোয়েল চত্বরজুড়ে অবস্থান নিয়ে মহাসমাবেশ পালন করছেন। তাদের সমাবেশের কারণে এসব এলাকায় যানবাহন চলাচল অচল হয়ে পড়েছে। ফলে জনসাধারণকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির সমন্বয়কারী অধ্যক্ষ আসাদুল হক বলেন, ‘এর আগে আমরা দাবি আদায়ে নানা কর্মসূচী পালন করেছি। এ পর্যন্ত আমাদের দাবি মেনে না নেয়ায় আজ (বুধবার) সকাল থেকে মহাসমাবেশ পালিত হচ্ছে। জাতীয়করণসহ ১১ দফা দাবিতে আমরা এ কর্মসূচী পালন করছি। কর্মসূচী সফল করতে সারাদেশ থেকে শিক্ষক-কর্মচারী যোগ দিয়েছেন। বিকেল পর্যন্ত তাদের এ কর্মসূচী চলবে।

teacher

অধ্যক্ষ আসাদুল হক বলেন, আশা করেছিলাম সরকার আমাদের ১১ দফা দাবির যৌক্তিকতা উপলদ্ধি করে শিক্ষক সংগ্রাম কমিটির সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নেবে। আমাদের ন্যায়সঙ্গত দাবি পূরণে পদক্ষেপ নেবে সরকার। কিন্তু এখন পর্যন্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এ কারণে আবারও সারাদেশের সব শিক্ষক-কর্মচারি এক হয়ে রাজধানীতে মহাসমাবেশ পালন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শিক্ষক-কর্মচারীদের ১১ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে শিক্ষাব্যাবস্থা জাতীয়করণ করা, সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের মত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের ৫ শতাংশ বার্ষিক বেতন প্রবৃদ্ধি, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা, বাংলা নববর্ষ ভাতা, বাড়ি ভাড়া ও চিকিৎসা ভাতা প্রদান করা, অনুপাত প্রথা বিলুপ্ত করে সহকারি অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদে পদোন্নতি, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান ও সহকারি প্রধান শিক্ষকের বেতন স্কেল সরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও সহকারি প্রধানের অনুরূপ করণ ও শিক্ষক-কর্মচাারিদের পূর্বের ন্যায় টাইম স্কেল প্রদান, শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে প্রদান করা, ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং অনার্স ও মাস্টার্স কোর্সে পাঠদানকারী শিক্ষকসহ বিধিমোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওভুক্ত করা, ইউনেস্কোর সুপারিশ অনযায়ী শিক্ষাখাতে জিডিপি’র ৬ শতাংশ এবং জাতীয বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ রাখাসহ বিভিন্ন দাবি করা হয়েছে।

এর আগে দাবি আদায়ে গত শনিবার সারাদেশে সংগ্রাম কমিটির ডাকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অবিরাম ধর্মঘট, গত সোমবার থেকে সব জেলায় শিক্ষক-কর্মচারীরা সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল এবং ১৩ মার্চ সব জেলায় সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষক-কর্মচারীরা।

এমএইচএম/এসআই/এমএমজেড/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :