ডিপিএস-এসটিএস স্কুলে চলছে এমইউএন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:০৬ পিএম, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

ইউনাইটেড নেশনস হাইকমিশন ফর রিফিউজি নিয়ে একটি কক্ষে চলছে সেমিনার, অন্য একটি কক্ষে ইন্টারন্যাশনাল প্রেস কনফারেন্স, আরেকটিতে চলছে ইউনাইটেড নেশনস জেনারেল অ্যাসেম্বলি।উপস্থিত ইউনাইটেড নেশনস এর দেশগুলোর প্রতিনিধিরা। তারা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলছেন। সব দেশের প্রতিনিধিদের বসার জন্য পৃথক জায়গা। তারা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতামত দিচ্ছেন। অধিবেশনে গুরুত্বপূর্ণ কোনো সিদ্ধান্ত জানতে সবার মধ্যে ব্যাপক কৌতূহল। প্রস্তাবের পক্ষ-বিপক্ষ মিলে রেজ্যুলেশনে কী পাস হবে, কী মত আসবে- তা জানার জন্য অপেক্ষা।

School-(2)

এটা আসলে ইউনাইটেড নেশনস এর কোনো অধিবেশন নয়। ইউনাইটেড নেশনস এর আদলে একটি প্রতীকী অধিবেশন, যেখানে সবকিছুর উপস্থাপন বা দেখতে হুবহু ইউনাইটেড নেশনস এর অধিবেশনের মতোই। নাম ‘এমইউএন’ অর্থাৎ মডেল ইউনাইটেড নেশনস। সাধারণত তিন বা চার দিনের সম্মেলন হয় এটি। এতে চলে আলোচনা-পর্যালোচনা, শেষে ঐকমত্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ।

রাজধানীর উত্তরার ১৫ নম্বর সেক্টরে অবস্থিত ডিপিএস এসটিএস স্কুলে চলছে এই এমইউএন। এটি তাদের তৃতীয় আয়োজন। সেমিনার কক্ষে বিভিন্ন দেশের প্রতীকী ডেলিগেইটরা অংশ নিয়েছেন। তাদের সামনে রয়েছে নিজ নিজ দেশের পতাকা। এজেন্ডা অনুযায়ী তারা বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলছেন, জানান তাদের অবস্থান। অধিবেশন শেষে তারা একটা সমাধান বা সিদ্ধান্তে উপনীত হবেন।

School-(3)

রাজধানী ঢাকার ২৫টির বেশি নামি দামি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ৬ শতাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে এই মডেল ইউনাইটেড নেশনস অনুষ্ঠিত হয়। এবারের আসরের আয়োজন করেছে ডিপিএস এসটিএস ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের এমইউএন ক্লাব।

প্রতীকী ইউনাইটেড নেশনস বা এমইউএন সম্পর্কে ডিপিএস এমইউএন এর প্রেসিডেন্ট অভিজিত রায় চৌধুরী এবং ডিরেক্টর কনফারেন্স ম্যানেজমেন্ট ফাইজা তাসলিম জামান তাদের কার্যক্রমের বিষয়ে জাগো নিউজকে বিস্তারিত জানান।

School-(4)

অভিজিত রায় চৌধুরী বলেন, ইউনাইটেড নেশনস তাদের সেমিনারে যেমন যে কোনো বিষয় নিয়ে যোগাযোগ করে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করে; এমনিভাবেই একজন শিক্ষার্থী এই এমইউএম এর মাধ্যমে ডিপলোমেসি, ডিবেট, লিডারশিপ সম্পর্কে নিজে তৈরি হয়। এছাড়া নানা জড়তা কাটানোর মাধ্যমে প্রতিভা বিকাশের সুযোগ পায় তারা। সে লক্ষ্যেই তৃতীয়বারের মতো আমাদের এই ডিপিএস এমইউএম এর আয়োজন।

তিনি আরও বলেন, এই আয়োজনে আমাদের ১৩টি কমিটি রয়েছে, যারা ইউনাইটেড নেশনস এর ডিফারেন্ট অর্গানাইজেশন। এর মধ্যে সিকিউরিটি কাউন্সিল, হেলথ কাউন্সিলসহ নানা কমিটি রয়েছে। প্রতিটি কমিটিতে ৪০ জন করে শিক্ষার্থী। তারা বিভিন্ন দেশের প্রতীকী ডেলিগেইট হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন করছেন।

School-(5)

তিনি বলেন, মনে করেন সিকিউরিটি ইস্যু নিয়ে আপাতত যে সেমিনার হচ্ছে ওখানে যেসব এক্সিকিউটিভ মেম্বার আছেন তারা মূলত এজেন্ডা দিবেন। ৩ দিন ধরে আলোচনা চলবে, শেষে ড্রাফট রেজ্যুলেশন করবেন। ডকুমেন্ট সেটের মাধ্যমে ওই ৪০ জন ডেলিগেটের অ্যাগ্রিমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন কীভাবে এই সমস্যা সমাধান করা হবে।

ফাইজা তাসলিম জামান বলেন, এমইউএন শেষে একটি কালচারাল নাইট, স্টেজ লাইভ প্রোগ্রাম, বুফে ডিনারসহ নানা অনুষ্ঠান হবে। ১৩টি কমিটির মধ্যে প্রতীকী ইউনাইটেড নেশনস কমিশনার ফর রিফিউজি, ইন্টারন্যাশনাল প্রেস কনফারেন্স, ইউনাইটেড নেশনস জেনারেল অ্যাসেম্বলি, জাতীয় সংসদ নামে ভিন্ন ভিন্ন সেমিনার অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

School-(6)

তিনি আরও বলেন, আমরা তিন বছর ধরে এমন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছি। এবার অনুষ্ঠানে রাজধানীর ২৫টির বেশি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ৬০০ জনের বেশি শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

আয়োজনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা জানান, সম্মেলনে তারা ভিন্ন দেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন। পুরো ইউনাইটেড নেশনস এর কায়দায় আলোচনা, ভোটাভুটি, নেগোসিয়েশন ও নিজ দেশের স্বার্থ রক্ষা করে বৈদেশিক সম্পর্ক উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে এমন আয়োজনে নিজেদের বক্তৃতা, যোগাযোগ, নেগোসিয়েশন ও নেটওয়ার্কিং ভালো হচ্ছে।

এএস/আরএস/পিআর