বাংলাদেশের মানুষের ব্যবহারে ঘাটতি আছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৫৩ পিএম, ১৯ জুন ২০১৯

যেসব শিশু শিক্ষা উপকরণ কিনতে পারে না তাদের জন্য এগুলোর ব্যবস্থা করতে শিক্ষামন্ত্রীর কাছে সুপারিশ করবেন বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

বুধবার (১৯ জুন) রাজধানীর মহাখালীতে ‘চাইল্ড পার্লামেন্ট: ১৮তম অধিবেশন ২০১৯’ এ যোগ দিয়ে শিশুদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন মন্ত্রী। এ সময় উপস্থিত শিশুরা শিশুশ্রম, অনুন্নত যোগাযোগব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা ঠিকমতো না পাওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রীর সামনে। বিষয়গুলো সম্পর্কে অবগত আছেন বলেও জানান মন্ত্রী।

এম এ মান্নান বলেন, ‘আপনারা উপকরণের কথা বলেছেন। বলেছেন, উপকরণের দাম অনেক বেশি। কিছু মানুষের জন্য বেশি, সবার জন্য নয়। এ বিষয়ে আমি প্রস্তাব রাখব সরকার বরাবর, যেসব শিশু উপকরণ কিনতে পারে না, আপাতত তাদের পারিবারিক আয়ের কারণে, তাদেরকে এগুলো ব্যবস্থা করার জন্য শিক্ষামন্ত্রীর কাছে সুপারিশ করব।’

‘পৃথিবীতে আর কোনো দেশ আছে কি না জানি না যে, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে সব বই বিনামূল্যে দেয়। পৃথিবীতে অনেক দেশ আছে, টাকার জায়গা হচ্ছে না। কিন্তু বই সবাইকে কিনতে হয় বলে আমার ধারণা‘, যোগ করেন মন্ত্রী।

বাংলাদেশের মানুষের ব্যবহারের ব্যাপারে ঘাটতি আছে

হাসপাতালে ভালো ব্যবহার ও সেবা না পাওয়ার বিষয়ে শিশুদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘ক্লিনিকে গেলে ভালো সেবা পান না, ব্যবহার পান না- এটা ভয়ংকর একটা কথা। আমরা সবাই বাংলাদেশের মানুষ, ব্যবহারের ব্যাপারে আমাদের একটু ঘাটতি আছে। স্বীকার করা ভালো।’

এম এ মান্নান বলেন, ‘আপনাদের মতো বয়স্ক মানুষ ব্যবহারের ব্যাপারে পুরোপুরি সজ্জন নই। আশা করি, আপনারা যখন বড় হবেন, আপনাদের ব্যবহার চমৎকার হবে। আপনারা যখন চিকিৎসক, প্রকৌশলী, কৃষক, ব্যবসায়ী হবেন বা কিছু একটা হবেন- আমাদের তুলনায় আপনারা ভালো ব্যবহার করবেন।’

এ দেশে বাল্যবিবাহ ভয়ংকর সমস্যা বলেও জানান পরিকল্পনামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি, সরকার চেষ্টা করছে। আমরা তো গায়ের জোরে কিছু করতে চাই না। আমরা বুঝিয়ে, সবাইকে নিয়ে সমাধান করতে চাই।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ফোন করে বাল্যবিয়ে বিষয়টি জানায়, এমন ছেলেমেয়েদের প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী। শিশুশ্রমের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি আমার শিশুকে কাজে লাগাতে চাই না। কিন্তু বাধ্য হয়ে লাগাই। আমার আয় কম, পরিবার হয়তো বড়, নানা কারণ।’

দুই-এক বছরের মধ্যে সব স্কুলে ল্যাপটপ সরবরাহ করা হবে বলেও জানান পরিকল্পনামন্ত্রী।

পিডি/বিএ/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :