মাসব্যাপী চলবে প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১২ পিএম, ০২ অক্টোবর ২০১৯

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা ৬ অক্টোবর (রোববার) থেকে শুরু হচ্ছে। ৩১ অক্টোবরের মধ্যে এ পরীক্ষা শেষ করার নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই)। এ সময়ের মধ্যে নিয়োগ কমিটি ২০ নম্বরের এ মৌখিক পরীক্ষা আয়োজন করবে।

ডিপিই থেকে জানা গেছে, সহকারী শিক্ষকদের মৌখিক পরীক্ষা ৬ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত আয়োজন করা হবে। এ সময়ের মধ্যে দেশের ৬১ জেলায় তাদের সুবিধামতো মৌখিক পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করবে। প্রার্থীর সংখ্যা অনুযায়ী প্রতিটি জেলায় তিন থেকে সাতদিন পর্যন্ত এ পরীক্ষা আয়োজন করা হবে।

জানা গেছে, মৌখিক পরীক্ষার জন্য তিন সদস্যের কমিটিতে সভাপতি হিসেবে জেলা প্রশাসক (ডিসি), সদস্য সচিব প্রাথমিক জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ডিপিও) ও সংশ্লিষ্ট জেলার একজন শিক্ষা অনুরাগীর সমন্বয়ে গঠিত হবে। কমিটির সদস্যরা প্রার্থীদের সার্টিফিকেট ও ভালো ফলাফলের জন্য পাঁচ নম্বর, ভালো আচার-আচরণ ও পোশাকের ওপর পাঁচ নম্বর, সাধারণ জ্ঞান, এক্সটা কারিকুলামসহ ২০ নম্বরের ওপর মূল্যায়ন করবেন।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, মৌখিক পরীক্ষা শেষে প্রার্থীদের প্রাপ্ত নম্বর জেলা থেকে সরাসরি বুয়েটের কাছে পাঠিয়ে দেবে। এরপর লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর যোগ করে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

ডিপিই’র মহাপরিচালক এ এফ এম মনজুর কাদির জাগো নিউজকে বলেন, প্রতিটি জেলায় সহকারী শিক্ষক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা আয়োজন করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ৩১ অক্টোবরের মধ্যে এ পরীক্ষা শেষ করতে বলা হয়েছে। ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিয়ে নিজ নিজ জেলার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে নির্দেশনা দেয়া হয়। ইতোমধ্যে মৌখিক পরীক্ষার জন্য প্রবেশপত্র বিতরণ শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা স্বচ্ছতা ও যোগ্য ব্যক্তিদের নির্বাচনে নির্ভুল ও মেধারভিত্তিতে যোগ্যতার তালিকা প্রকাশ করা হবে। এ কারণে মৌখিক পরীক্ষার ফল জেলা থেকে সরাসরি বুয়েটে পাঠাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত বছরের ৩০ জুলাই ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। পরীক্ষায় অংশ নিতে ২৪ লাখ ৫ জন প্রার্থী আবেদন করেন। লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় প্রথম ধাপে ২৪ মে, দ্বিতীয় ধাপে ৩১ মে, তৃতীয় ধাপে ২১ জুন এবং চতুর্থ ধাপে ২৮ জুন। লিখিত পরীক্ষায় ৫৫ হাজার ২৯৫ জন পাস করেন।

এমএইচএম/জেএইচ/পিআর