চার্জশিটে সন্তুষ্ট, আসামিদের স্থায়ী বহিষ্কার চান বুয়েটিয়ানরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৫৩ পিএম, ১৩ নভেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এবার আসামিদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের বিষয়ে প্রশাসনের তৎপরতা দেখতে চান তারা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ক অন্তরা তিথি বলেন, ‘আমরা চার্জশিটের বিষয়ে জানতে পেরেছি। এতে আমরা সন্তুষ্ট। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে এজন্য ধন্যবাদ জানাই। এখন এই আসামিদের স্থায়ী বহিষ্কারে প্রশাসনের ভূমিকা দেখতে চাই। তিনি বলেন, তদন্ত কমিটির অগ্রগতি ও আমাদের সিদ্ধান্ত জানাতে আমরা শিগগিরই বুয়েট প্রশাসনের সঙ্গে বসব।

এর আগে উপাচার্য শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে অভিযুক্তদের সাময়িক বহিষ্কারের ঘোষণা দেন এবং এ বিষয়ে তদন্তের জন্য কমিটি করেন। কমিটির রিপোর্ট ও চার্জশিটের ভিত্তিতে স্থায়ী বহিষ্কারের বিষয়ে পরে জানানো হবে বলে জানিয়েছেন ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার চার্জশিট প্রস্তুত করে আজ বুধবার আদালতে জমা দিয়েছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। এতে মোট ২৫ জনকে জড়িত উল্লেখ করা হয়েছে, যাদের মধ্যে ১১ জন সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়েছেন।

হত্যাকাণ্ডের কারণ সম্পর্কে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মনিরুল ইসলাম বলেছেন, একক কোনো কারণে আবরার হত্যাকাণ্ডটি হয়নি। সে শিবির করে কি-না, হত্যার পেছনে এটি একটি মাত্র কারণ। কিন্তু যারা তাকে হত্যা করেছে তারা এমন উচ্ছৃঙ্খল আচরণে অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছিল।

৬ অক্টোবর রাতে আবরারকে হত্যা করা হয়। ৭ অক্টোবর দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল মর্গে আবরারের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। নিহত আবরার বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন। ওই ঘটনায় আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে চকবাজার থানায় ১৯ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন।

এমএইচএম/এসআর/পিআর