করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন প্রাথমিকের ৮ শিক্ষক-কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:০৬ এএম, ০৫ জুলাই ২০২০
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) প্রাথমিকের ৪১৮ জন শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে সাতজন শিক্ষক ও একজন কর্মকর্তা মারা গেছেন। এ পর্যন্ত ৬৩ জন সুস্থ হয়েছেন। তবে গতকাল শনিবার নতুন করে কেউ আক্রান্ত হননি।

রোববার (৫ জুলাই) প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) ওয়েবসাইটে করোনা আপডেট থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ডিপিইর তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত প্রাথমিকের ৩২২ জন শিক্ষক, ৪৮ জন কর্মকর্তা, ২৯ জন কর্মচারী ও ১৯ জন শিক্ষার্থী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে সাতজন শিক্ষক ও একজন কর্মকর্তা মারা গেছেন। এ পর্যন্ত ৬৩ জন সুস্থ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪৬ জন শিক্ষক, সাতজন কর্মকর্তা, কর্মচারী তিনজন ও সাতজন শিক্ষার্থী রয়েছেন।

আক্রান্তদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৪০ জন, রাজশাহী বিভাগে ৩৫ জন, চট্টগ্রামে ১২২ জন, খুলনায় ২৯ জন, বরিশালে ২১ জন, সিলেটে ৩৯ জন, রংপুরে ২১ জন এবং ময়মনসিংহে ১১ জন রয়েছেন।

আক্রান্ত শিক্ষকরা জানিয়েছেন, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর থেকে কারো কারো খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। এছাড়া প্রাথমিক শিক্ষকদের বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে আক্রান্তদের নানা ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে।

যেসব শিক্ষক কোভিড-১৯ আক্রান্ত, তাদের বেশিরভাগই নিজের বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন। আর হাসপাতালে ভর্তি আছেন কয়েকজন। তবে সম্প্রতি প্রাথমিকের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে কোভিড-১৯ আক্রান্তের তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করেছে ডিপিই। প্রতিদিন এ-সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে ২৪ ঘণ্টা পরপর ওয়েবসাইটে আপডেট করা হচ্ছে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. শামছুদ্দিন মাসুদ জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রকৃত আক্রান্তের সংখ্যা আরও অনেক বেশি। সারাদেশে প্রায় পাঁচ শতাধিক শিক্ষক কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন। অনেক শিক্ষক করোনা পরীক্ষা করাচ্ছেন না। এ কারণে সঠিক সংখ্যাটাও জানা যাচ্ছে না। অনেকে ঘরে বসে চিকিৎসা নিচ্ছেন। সামাজিক হয়রানির ভয়ে বাইরে যাচ্ছেন না।

এমএইচএম/এসআর/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]