দারুল ইহসানের সনদের বৈধতা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নতুন বিবৃতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৭ পিএম, ০৩ মার্চ ২০২১

দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদের বৈধতা দেয়া হয়নি বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে আবারও জানানো হয়েছে। সম্প্রতি বিভিন্ন দৈনিকে এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় বুধবার (৩ মার্চ) এ বিবৃতি দিয়েছে মন্ত্রণালয়। এর আগে ২ মার্চও এ সংক্রান্ত প্রতিবাদলিপি দিয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ (মাউশি)।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদের বৈধতা দেয়া হচ্ছে মর্মে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এ তথ্য পুরোপুরি সঠিক নয়। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যা হচ্ছে, দারুল ইহসানের সনদের বৈধতা দেয়ার বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এখনও কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেনি।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ‘দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক মাহমুদ আহমেদের অনুকূলে বৈধ ২৯টি ক্যাম্পাসের সকল শিক্ষার্থীদের সনদের বৈধতা প্রদানের সম্মতি দেয়া গেল এবং একইসঙ্গে শিক্ষার্থীদের মূল সনদ ইস্যু কার্যক্রম পরিচালনা পর্ষদের তিন জনের তালিকা প্রস্তাব প্রেরণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো’ বক্তব্যে যে আদেশটি গণমাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে, সেটি ভুয়া।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এরকম কোনো আদেশ জারি করা হয়নি এবং ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করা হয়নি। এই ভুয়া আদেশের প্রেক্ষিতে কেউ যেন কোনো রকমের অনৈতিক সুবিধা না নিতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেতন থাকতে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত হলো, মামলা সংক্রান্ত কারণে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের হালনাগাদ প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনকে অনুরোধ জানানো হয়েছে এবং এ সংক্রান্ত একটি আদেশ ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছিল।

সকল বিষয় বিবেচনা করে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদের বৈধতা দেয়া সংক্রান্ত গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে তা নিরসনে গণমাধ্যমকে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে।

এমএইচএম/এমএইচআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]