মানুষের জন্য কাজ করতে রাজনীতিতে এসেছি: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৪ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২২
ফাইল ছবি

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বুঝতে শেখার পর থেকেই উত্তাল সময় দেখেছি। তখন থেকেই রাজনীতি করতে চেয়েছি। রাজনীতি করতে হলে স্বাধীন পেশায় থাকা দরকার, স্বাধীনতায় থাকা দরকার। মানুষের জন্য কাজ করব বলে, মানুষের প্রতিনিধিত্ব করবো বলেই রাজনীতিতে এসেছি।

রোববার (১৬ জানুয়ারি) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে ন্যাশনাল ইয়ুথ ক্যারিয়ার কার্নিভাল অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ইয়ুথ ক্যারিয়ার ইনস্টিটিউট এর আয়োজন করে।

তরুণদের উদ্দেশ্যে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, তোমাদের জীবনব্যাপী শিক্ষায় থাকতে হবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য তৈরি হতে হবে। এত মানুষের চাকরি কোনো দেশ দিতে পারবে না। সেজন্য উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য প্রস্তুত হতে হবে।

ড. বিকর্ণ কুমার বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে পৌঁছাতে তরুণরাই নেতৃত্ব দেবে। সারা দুনিয়া ইনোভেশন দিয়ে চলে, আমরা ইনোভেটিভ হতে চাই। আমাদের যোগ্য নেতৃত্ব আছে, ২০৪১ সালের মধ্যেই আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাব।

মো. আলতাফ হোসেন ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনারশিপ এর প্রকল্প সম্পর্কে বলেন, ৪র্থ শিল্প বিপ্লবকে বরণ করতে আমাদের তৈরি থাকতে হবে। এতে নেতৃত্ব দিতে আইসিটি ডিভিশনকে ভূমিকা রাখতে হবে।

ইয়ুথ ক্যারিয়ার ইনস্টিটিউটের হেড অব করপোরেট খালিদ সাইফুল্লাহ্ বলেন, দেশের ৬৪ জেলার তরুণদের ই লার্নিং, ডিজিটাল এডুকেশন এবং সামগ্রিক ক্যারিয়ার বিষয়ে গাইডলাইন দিতেই ইয়ুথ ক্যারিয়ার ইনস্টিটিউট কর্তৃক এই আয়োজন।

এছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন, এডুহাইভ এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও মো. নাজমুল হক সরকার, হুইসেল লিমিটেডের ভাইস-চেয়ারম্যান রোটারেক্ট মিঠু মোরেল পিএইচপি, ই-ক্লাব এর সভাপতি মোহাম্মদ শাহরিয়ার খান, দ্য টেক ডক্টর-সোহাগ ৩৬০ এর প্রতিষ্ঠাতা সোহাগ মিয়া, ট্রাভেলেটস অফ বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ডা. সাকিয়া হক এবং ইন্সট্রাকটরি এর প্রতিষ্ঠাতা ও আইএকাডেমি এর সিইও রিফাত এম হক।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সেক্টরে অবদানের জন্য দেশের ১০ জন তরুণ এবং প্রতিষ্ঠানের হাতে ‘রাইজিং ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দেন ডা. দীপু মনি। দিনব্যাপী এই (ক্যারিয়ার কার্নিভালে প্রায় ৩০ জন বক্তা তরুণদের ক্যারিয়ার, প্রযুক্তি, উদ্যোগ ও শিক্ষামূলক বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেন।

ক্যারিয়ার কার্নিভালে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক অথরিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. বিকর্ণ কুমার ঘোষ, ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনারশিপ একাডেমির প্রকল্প পরিচালক মো. আলতাফ হোসেন, বেসিস এর সভাপতি রাসেল টি আহমেদ, বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির।

এমএইচএম/এমআরএম/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]