পাঁচ বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদনের জন্য পরিদর্শন প্রতিবেদন তৈরি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০৫ পিএম, ২৬ মে ২০২২
ইউজিসি ভবন/ফাইল ছবি

নতুন আরও পাঁচটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদনের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পরিদর্শন প্রতিবেদন পাঠানো হচ্ছে। ওই প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে যাবে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে। সেখান থেকে কোনো গ্রিন সিগন্যাল এলে অস্থায়ীভাবে অনুমোদন দেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রস্তাবিত এই পাঁচ বিশ্ববিদ্যালয় হলো চট্টগ্রামের বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি, ঢাকার মতিঝিলে ডিআইটি অ্যাভিনিউয়ে প্রতিষ্ঠার জন্য ইন্টারন্যাশনাল ইসলামী ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, ঝিনাইদহের সৃজনী বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুরে প্রতিষ্ঠার জন্য তিস্তা ইউনিভার্সিটি এবং খাগড়াছড়ি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

এগুলোর মধ্যে প্রথমটি গত ১৯ মে চট্টগ্রামে গিয়ে পরিদর্শন করে এসেছে ইউজিসির একটি দল। ওই দলের নেতৃত্ব দেন সংস্থাটির সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ। চট্টগ্রাম বিজিএমইএ এটি প্রতিষ্ঠা করতে চায়। বিজিএমইএর ঢাকায় একই নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় আছে।

দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠানটির অনুমোদন চাচ্ছেন এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি কাজী আকরামউদ্দিন আহম্মেদ। তৃতীয়টি এম হারুন অর রশীদ নামে একজন ব্যক্তির। চতুর্থটির বিস্তারিত না পাওয়া গেলেও শেষেরটির নাম সংশোধন করে পাঠাতে পরামর্শ দিয়েছে ইউজিসি।

এর আগেও বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন পেয়েছেন এমন উদ্যোক্তারাও নতুন করে ভিন্ন জায়গায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন চেয়ে আবেদন করেছেন। আবার সনদ ও শিক্ষাব্যবসার দায়ে দুষ্ট ব্যক্তিরা অপরের ওপর ভর করে বিশ্ববিদ্যালয় নিতে চাচ্ছেন।

এদিকে সম্প্রতি চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পরিদর্শন প্রতিবেদন ও প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে ইউজিসি। তার মধ্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফের স্ত্রী ফৌজিয়া আলম করেছেন ‘লালন বিশ্ববিদ্যালয়’ প্রতিষ্ঠার আবেদন। আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আ স ম ফিরোজ পটুয়াখালীতে ‘সাউথ রিজন ইউনিভার্সিটি’ স্থাপন করতে চান।

আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য শামসুল আলম ভূঁইয়া অ্যাপোলো ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি নামে চাঁদপুরে একটি বিশ্ববিদ্যালয় চেয়ে আবেদন করেছেন। আর উত্তরা ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ইয়াসমিন আরা ‘ইউনিভার্সিটি অব বগুড়া ট্রাস্ট’ স্থাপনের আবেদন করেন। তাদের আবেদনের ভিত্তিতে পরিদর্শন কাজ শেষ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে।

জানতে চাইলে ইউজিসির সদস্য (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক বিশ্বজিৎ দত্ত জাগো নিউজকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে যেসব আবেদন আমাদের কাছে পাঠানো হয়েছে সেগুলো পরিদর্শন করে কিছু পাঠানো হয়েছে। আরও কিছুর প্রতিবেদন তৈরি হচ্ছে। দ্রুত বাকিগুলো পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

এমএইচএম/জেডএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]