প্রাথমিকে চলতি দায়িত্বে থাকা প্রধান শিক্ষকরা পদোন্নতি পাচ্ছেন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:২২ পিএম, ০৩ অক্টোবর ২০২২

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদে সিনিয়র শিক্ষকদের চলতি দায়িত্ব দেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। মামলাজনিত কারণে এ পদে পদোন্নতি দেওয়া সম্ভব না হওয়ায় ‘চলতি দায়িত্ব’ দেওয়া হয়। বর্তমানে এসব শিক্ষককে ধাপে ধাপে পদোন্নতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। চলতি মাসে এ বিষয়ে সুপারিশ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) থেকে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

ডিপিই থেকে জানা যায়, সারাদেশে প্রায় ১৮ হাজারের মতো বিদ্যালয়ে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে প্রধান শিক্ষকের শূন্য আসনে সহকারী শিক্ষকদের চলতি দায়িত্বে বসানো হয়েছে। চলতি দায়িত্বে থাকা এসব শিক্ষককে চূড়ান্তভাবে পদোন্নতি দেওয়া হবে। মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা শিক্ষকদের গ্রেডেশন তালিকাসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাঠাচ্ছেন।

তবে এ বিষয়ে বিভিন্ন জেলায় ৫১৫টি মামলা করেছেন শিক্ষকরা। এরই মধ্যে কয়েকটি মামলার রায় শিক্ষকদের পক্ষে এসেছে। আবার যেসব জেলায় কোনো মামলা করা হয়নি, এমন ১০০টি উপজেলার ৮০০ শিক্ষককে পদোন্নতি দেওয়া হবে। তাদের পদোন্নতি দিতে চলতি মাসে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হবে। ধাপে ধাপে চলতি দায়িত্বে থাকা অন্যান্য শিক্ষককে পদোন্নতি দেওয়া হবে। যেসব ব্যক্তির মামলা চলমান থাকবে তাদের মামলা নিষ্পত্তি হওয়ার পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ডিপিইর সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশের ৬৫ হাজার ৬২০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রায় ১৮ হাজার শিক্ষক প্রধান শিক্ষকের চলতি দায়িত্ব পালন করছেন। তিনটি ধাপে ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ও জাতীয়করণ করা হয়েছে। যে বিদ্যালয়গুলোতে প্রধান শিক্ষক নেই, সেখানে সহকারী শিক্ষকদের চলতি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

তারা জানান, বর্তমানে সারাদেশে ২৫ হাজার প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য। যেহেতু প্রধান শিক্ষকের পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির করা হয়েছে সে কারণে পদোন্নতি দিতে পিএসসির সুপারিশ লাগবে।

এ বিষয়ে ডিপিইর মহাপরিচালক শাহ রেজওয়ান হায়াত জাগো নিউজকে বলেন, চলতি দায়িত্বে থাকা শিক্ষকদের পদোন্নতি কার্যক্রম দ্রুত শুরু করা হবে। মামলাজনিত কারণে এ কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হয়নি। প্রথম ধাপে যেসব উপজেলায় মামলা নেই তাদের তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। সেটি পিএসসিতে পাঠানো হবে। পিএসসি থেকে যাদের সুপারিশ করা হবে তাদের প্রধান শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, দেশের কোথায় কোথায় মামলা নেই, সেই তালিকা তৈরি করে ডিপিইতে পাঠাতে মাঠ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শতাধিক উপজেলার তালিকা আমরা পেয়েছি। প্রথম ধাপে তাদের তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। মামলা জটিলতা শেষে ধাপে ধাপে সবাইকে পদোন্নতি দেওয়া হবে।

এমএইচএম/আরএডি/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।