এসএসসিতে পৌনে ৩ লাখ উত্তরপত্র পুনর্নিরীক্ষার আবেদন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০৩ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২
ফাইল ছবি

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলে অসন্তোষ হয়ে পৌনে ৩ লাখ আবেদন জমা হয়েছে। তার মধ্যে বাংলা, ইংরেজি, গণিত এবং ইতিহাস ও সভ্যতা বিষয়ের ফল পুনর্মূল্যায়ন চেয়ে বেশি আবেদন করেছে শিক্ষার্থীরা। আবেদনকারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা লাখোধিক। অনেকেই একাধিক বিষয়ের ফল পুনর্মূল্যায়নের আবেদন করেছে।

গত ২৯ নভেম্বর থেকে পুনর্নিরীক্ষার আবেদন শুরু হয়। ৫ ডিসেম্বর শেষ হয় আবেদনের সময়। আগামী ২৫ ডিসেম্বর পুনর্নিরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট শিক্ষাবোর্ড কর্মকর্তারা জানান, অনেক শিক্ষার্থী একাধিক বিষয়ের উত্তরপত্র চ্যালেঞ্জ করে আবেদন করেছে। তার মধ্যে ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, বাংলা এবং ইতিহাস ও সভ্যতা বিষয়ে আবেদন বেশি হয়েছে। এসব বিষয়ে আশানুরূপ নম্বর না পাওয়ায় তারা পুনর্মূল্যায়নের জন্য আবেদন করেছে। পুনর্নিরীক্ষার মাধ্যমে উত্তরপত্রে প্রাপ্ত নম্বর নতুন করে যোগ করে ফলাফল প্রকাশ করা হবে। এতে কিছু সংখ্যক পরীক্ষার্থীর ফলাফল পরিবর্তন হয়ে থাকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা শিক্ষাবোর্ডে এবার ৬৮ হাজার আবেদন এসেছে। আবেদনকারীর সংখ্যা ৩৬ হাজারের অধিক। এ বোর্ডে বাংলা, ইংরেজি, গণিত এবং ইতিহাস ও সভ্যতা বিষয়ে বেশি আবেদন জমা হয়েছে। যশোর শিক্ষাবোর্ডে আবেদনপত্র ১২ হাজার ৮১৬ টি, আবেদনকারী ৮ হাজারের বেশি। তার মধ্যে ইতিহাস ও সভ্যতা বিষয়ে ২ হাজার ৪৮৪টি, ইংরেজি প্রথমপত্রে এক হাজার ৫৮৩টি এবং ইংরেজি ২য় পত্রে এক হাজার ১৭৫টি আবেদন জমা পড়েছে। দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে মোট আবেদন ৩০ হাজার ৪৪৯টি, আবেদনকারী প্রায় ১৬ হাজার। এ শিক্ষাবোর্ডে সবচেয়ে বেশি আবেদন গণিতে ৫ হাজার ৯৮৩টি, ইতিহাসে ৪ হাজার ৬৩৭টি এবং ইংরেজি ১ম ও ২য় পত্রে ৩ হাজার ১১১টি আবেদন পড়েছে।

বরিশাল শিক্ষাবোর্ডে ১১ হাজার ২৯টি বিষয়ের আবেদন এসেছে। আবেদনকারী প্রায় ৯ হাজার। চট্টগ্রাম বোর্ডে ২৮ হাজার ৬০৭টি, কুমিল্লা বোর্ডে ২৩ হাজার ১০৩টি, ময়মনসিহং বোর্ডে ১৭ হাজার ৩১৯টি, রাজশাহী বোর্ডে ৩১ হাজার ৫৪৪টি, সিলেট বোর্ডে ২০ হাজার ১৫৫টি আবেদন করেছে শিক্ষার্থী।

এছাড়াও মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডে ২৫ হাজার ৫০২টি আবেদন জমা হয়েছে। আবেদনকারী ১৬ হাজার ৮৩৩ জন। এর মধ্যে গাণিতে সবচেয়ে বেশি ১১ হাজার ১৩৯ শিক্ষার্থী পুনর্মূল্যায়নের আবেদন করেছে। এর বাইরে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে ১৩ হাজার ৩১২টি আবেদন করা হয়েছে। সব মিলিয়ে দেশের ১১টি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এবার ২ লাখ ৭৮ হাজার ৮৪৫টি আবেদন জমা হয়েছে। আবেদনকারীর সংখ্যা এক লাখের অধিক।

জানতে চাইলে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার জাগো নিউজকে বলেন, এসএসসি-সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর গত ২৯ নভেম্বর থেকে পুনর্নিরীক্ষার আবেদন শুরু হয়। গত ৫ ডিসেম্বর এ আবেদন শেষ হয়। আগামী ২৫ ডিসেম্বর এ ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

তিনি বলেন, যারা পুনর্নিরীক্ষার জন্য আবেদন করবে তাদের উত্তরপত্র নতুন করে মূল্যায়ন করা হবে না। পরীক্ষক উত্তরপত্র মূল্যায়ন করে যে নম্বর দিয়েছেন সেটি সঠিকভাবে যোগ করে তোলা হয়েছে কি না তা যাচাই-বাছাই করে দেখা হবে। তবে খাতা যিনি মূল্যায়ন করেছেন তাকে দিয়ে সেটি করা হবে না। ভিন্ন পরীক্ষকের মাধ্যমে সেটি করা হবে।

এ বছর এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ। আগের বছর এ হার ছিল ৯৩ দশমিক ৫৮ শতাংশ। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় এবার পাসের হার কমেছে ৬ দশমিক ১৪ শতাংশ। পাসের হার কমলেও বেড়েছে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা। এ বছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ লাখ ৬৯ হাজার ৬০২ জন শিক্ষার্থী। আগের বছর এই সংখ্যা ছিল এক লাখ ৮৩ হাজার ৩৪০ জন। অর্থাৎ এবার ৮৬ হাজার ২৬২ জন বেড়েছে।

চলতি বছর মোট ২৯ হাজার ৬৩৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেয় শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে ২ হাজার ৯৭৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সব পরীক্ষার্থী পাস করেছে। গত বছর ৫ হাজার ৪৯৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছিল। অর্থাৎ এ বছর শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কমেছে ২ হাজার ৫১৯টি।

এমএইচএম/কেএসআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।