স্কুল ড্রেস পরে বইমেলায় দলবেঁধে ঘুরছে শিশুরাও

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৫৯ পিএম, ১২ মার্চ ২০২২
ছবি: জাগো নিউজ

অমর একুশে বইমেলায় বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ছিলো শিশুপ্রহর। আজ সপ্তাহের ছুটির দিন হওয়ায় শিশুপ্রহরে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে ঘুরতে আসে শিশুরাও। তাদের আনন্দ দেওয়ার পাশাপাশি বাংলা ভাষা, সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিতি, বই দেখানো ও কিনে দিতেই গ্রন্থমেলায় শিক্ষার্থীদের আনা হয়েছে।

শনিবার (১২ মার্চ) সকালে অমর একুশে বইমেলায় জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপকালে তারা এসব কথা বলেন। দেখা গেছে, স্কুল ড্রেস পরে মেলায় দলবেঁধে ঘুরছে শিশুরা। তারা বিভিন্ন স্টলে বই দেখছে। কেউ ছবি তুলছে, কেউবা আড্ডা দিচ্ছে। আর তাদের দেখাশোনা করছে শিক্ষকরা। নতুন নতুন বইয়ের সঙ্গে শিশুদের পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন তারা।

Baby5.jpg

রাজধানীর মিরপুর কসমো স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী আরিবা সামিহা বলেন, বইমেলা বেশ ভালো লাগে। স্কুল থেকে টিচাররা নিয়ে এসেছে। স্কুলের বন্ধুদের সাথে এসেছি। গল্পের বই কিনেছি। অংকনের বই কিনেছি।

বইমেলার একটি স্টলে বই দেখছেন কসমো স্কুলের ষষ্ট শ্রেণির শিক্ষার্থী আরিয়ান চৌধুরী। কি বই দেখছে জানতে চাইলে জাগো নিউজকে বলেন, আমার ও ছোট ভাইয়ের জন্য বই কিনবো। খুঁজে দেখছি, কোনটা ভালো। ভালো পেলে কিনে নেব। স্কুল থেকে বন্ধুদের সঙ্গে আসলাম, মিসরাও সাথে আছেন, খুব ভালো লাগছে।

Baby5.jpg

সিলভার লাইনিং গ্রামার স্কুলের ষষ্ট শ্রেণির শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান সামিয়া বলেন, সিসিমপুর দেখেছি, বই দেখেছি। মেলায় ঘুরছি। ভালো লাগছে।

আপন পাঠশালার প্রথম শ্রেণির জুয়েনা আক্তার বলেন, মেলায় এসে সিসিমপুর দেখেছি খুব ভালো লেগেছে। তারপর বইয়ের স্টলে ঘুরে ঘুরে দেখেছি। বন্ধুদের সাথে মজা করেছি।

শিক্ষার্থীদের আনন্দ দেওয়ার পাশাপাশি বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত করতে বইমেলায় নিয়ে আসেন শিক্ষকরা। পছন্দ অনুযায়ী বইও কিনে দেয় শিক্ষার্থীদের।

Baby5.jpg

কসমো স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা নুসরাত বিনতে আব্দুল্লাহ জাগো নিউজকে বলেন, আমাদের স্কুলের শিক্ষার্থীরা ইংলিশ ভার্সনে পড়ালেখা করে। কিন্তু বাংলা ভাষার জন্য যে জীবন দিয়েছে ও বাংলা ভাষাও যে কতটা সমৃদ্ধ তার সঙ্গে পরিচিত করাতেই এখানে নিয়ে আসা তাদের।

তিনি বলেন, অমর একুশে বইমেলায় বাঙালি সংস্কৃতিই একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর মেলায় দেশের সংস্কৃতি, গল্পের বইসহ নানা বিষয়ের ওপরই বই থাকে। সেসব বিষয়ের সঙ্গে পরিচিত করা, ঘুরে দেখানো, তাদের পছন্দের বই কিনে দেওয়ার জন্যই শিক্ষার্থীদের মেলায় নিয়ে এসেছি।

Baby5.jpg

সিলভার লাইনিং গ্রামার স্কুলের অধ্যক্ষ এরশাদ হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, বাচ্চারা খুব উপভোগ করছে। মেলা ঘুরছে। শিশু প্রহরে নিয়ে আসছি যেন মেলাটা সহজে ঘুরে দেখানো যায়। এই সময়টা তাদের জন্যই যেহেতু সবগুলো স্টল ঘুরে দেখতে পারবে। আর সকালেই তাদের প্রিয় একটি অনুষ্ঠান সিসিমপুর থাকে সেটিও বাচ্চারা দেখে বেশ খুশি।

আজ শনিবার বইমেলা ২৬তম দিন চলছে। আগামী ১৭ মার্চ শেষ হবে এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলা। ছুটির দিনে শিশুপ্রহর থাকলেও মেলার শেষদিন শিশু দিবস উপলক্ষেও থাকছে শিশুপ্রহর।

আরএসএম/এমআরএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]