আলাউদ্দিন আলীর শেষ গানগুলো

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৭ পিএম, ০৯ আগস্ট ২০২০

দীর্ঘদিন অসুস্থ্য থাকার পর আজ রোববার (৯ আগস্ট) বিকেল ৫টা ৫০ মিনিটে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। রাজধানীর মহাখালীর আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন এই কিংবদন্তি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৮ বছর।

২০১৭ সাল থেকেই নানা রোগের সঙ্গে লড়াই করছিলেন তিনি। দেশে ও বিদেশে হয়েছে চিকিৎসা। মাঝখানে একটু সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনযাপন শুরু করেছিলেন। ফিরেছিলেন গানেও। লিখেছিলেন বেশ কয়টি গান। তার স্ত্রী ফারজানা আলী গেল ১৭ জুন এক সাক্ষাতকারে জানান, শরীর খারাপ নিয়েও সাতটি গান লিখেছিলেন আলাউদ্দিন আলী। তারমধ্যে দুটি গানের সুরও করেছেন। শুধু মুখটার সুর দিয়েছেন। এমনকি করোনা নিয়েও একটি গান লিখেছেন তিনি।

সেই গানের কথাগুলো- ‘ফিরে যাও শান্তি দাও, আমরা বাঁচতে চাই/ তোমার কারণে বন্দি আমরা, এইবার মুক্তি চাই। মুক্ত আকাশ মুক্ত বাতাস, আমাদের খুব প্রিয়/ অনেক হয়েছে এবার তুমি/ মুক্তি এনে দিও। জ্ঞানী-গুণী হারিয়েছি আমরা এবার তুমি থামো/ বাঁচার অধিকার আছে সবার, এ কথাটি মানো।’

গত ৪ জুনেও একটি গান লিখেছেন আলাউদ্দিন আলী। গানটি রোমান্টিক। ফারজানা আলী বলেন, ‘সেদিন বৃষ্টি হচ্ছিলো। এই মুডই সেই গানটিতে তিনি রেখেছেন। গানের মুখ এরকম- ‘‘ঝিরে ঝিরি বৃষ্টি ঝরে, মেঘ বয়ে যায়/ হারানো প্রিয়তমা মন খুঁজে তোমায়। কোনো এক বৃষ্টি রাতে, হারিয়েছিলে তুমি/ সেই থেকে একা হয়ে আজও আছি আমি।’’

শুধু তাই নয়, গানের জন্য স্টুডিওতেও ফিরেছিলেন তিনি। বেশ আনন্দ নিয়ে তার সেই ফেরার খবর প্রকাশ করেছিলো এদেশের সংবাদ মাধ্যম।

২০১৯ সালের আগস্টের এক সন্ধ্যায় ফুয়াদ নাসের বাবুর স্টুডিওতে হাজির হয়েছিলেন তিনি। একটি দেশের গানের রেকোর্ডিং করেছেন। ‘মুক্তিযুদ্ধ চেতনায় দীপ্ত, পিতার পতাকা হাতে’- এমন কথার গানটি লিখেছেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। প্রয়াত কবির লেখা এই গানটির সুর করেছেন আলাউদ্দিন আলী।

গানটির সংগীতায়োজন করেছেন ফুয়াদ নাসের বাবু। গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন আলাউদ্দিন আলীর স্ত্রী সংগীতশিল্পী ফারজানা আলী মিমি।

তখন জানা গিয়েছিলো অনেক দিন আগেই এ গানটির সুর করেছিলেন আলাউদ্দিন আলী। অল্প কিছু কাজ বাকি ছিল। তার অসুস্থতার জন্যই সেই কাজ পড়েছিলো। সুস্থ হয়েই আবারও গানটির সুরারোপ শেষ করে দেন তিনি। তবে সেই গান প্রকাশ হয়নি এখনো। তার আগেই চলে গেলেন এর সুরস্রষ্টা আলাউদ্দিন আলী।

প্রসঙ্গত, অনেক দিন ধরেই নানা অসুখে ভুগছিলেন আলাউদ্দিন আলী। ২০১৫ সালের ৩ জুলাই তাকে ব্যাংকক নেওয়া হলে সেখানে পরীক্ষার পর জানা যায়, তার ফুসফুসে একটি টিউমার রয়েছে। এরপর তার অন্যান্য শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি ক্যান্সারের চিকিৎসাও চলছিল। এর আগে বেশ কয়েক দফায় তাকে আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

দেশ-বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে খানিকটা সুস্থ ছিলেন আলাউদ্দিন আলী। ফিরেছিলেন গানেও। তবে শনিবার (৮ আগস্ট) ভোর পৌনে ৫টায় হঠাৎ করে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। পরে তাকে মহাখালীর আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার শ্বাসকষ্টের সমস্যা দেখে লাইফ সাপোর্টে রাখার পরামর্শ দেন।

আজ রোববার (৯ আগস্ট) দুপুর ২টায় খোঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, ঝুঁকি কাটেনি কিংবদন্তি এই সুরকারের। বরং প্রস্রাব আটকে যাওয়াসহ বেশকিছু নতুন জটিলতা দেখা দিয়েছে।

অবশেষে সব রোগ আর জটিলতাকে কাটিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন সাতবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী এই কিংবদন্তি।

এলএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]