স্বেচ্ছাসেবক লীগে সাংস্কৃতিক সম্পাদক হলেন হাসান মতিউর রহমান

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৬ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০২০

দেশবরেণ্য গীতিকার ও সুরকার হাসান মতিউর রহমান। 'যদি রাত পোহালে শোনা যেত বঙ্গবন্ধু মরে নাই’- গানটি তার কালজয়ী এক সৃষ্টি। এছাড়া তিনি বহু গান উপহার দিয়েছেন অডিও ইন্ডাস্ট্রি এবং ঢাকাই চলচ্চিত্রে।

দীর্ঘদিন ধরে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। তারই ধারাবাহিকতায় এবার হাসান মতিউর রহমান আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংস্কৃতিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

গীতিকবি ও সুরকার আজ (১৯ অক্টোবর) রাতে জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘সারা জীবন দল করেছি নিঃস্বার্থভাবে, তার মূল্যায়ন পেলাম। সেই শিক্ষাজীবন থেকে ছাত্রলীগ করেছি। অনেক ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে আসতে হয়েছে। আজকের এই মূল্যায়নে খুব ভালো লাগছে। আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা আমার ওপর ভরসা রাখার জন্য। যারা আমার নাম এ পদে প্রস্তাব করেছেন, যারা আমাকে নির্বাচিত করতে সমর্থন দিয়েছেন সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।'

তিনি আরও বলেন, 'আজই স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা হলো। আজই জানলাম আমি সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদের দায়িত্ব পেয়েছি। আশা করছি নেত্রীর সঙ্গে দ্রুতই দেখা হবে। তার নির্দেশনা পাবো। সবসময় দলের জন্য নিবেদিত থেকে কাজ করার চেষ্টা করেছি। আশা করছি নতুন দায়িত্ব পালনেও সফল হবো। সবার ভালোবাসা চাই।'

হাসান মতিউর রহমান স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানান ভক্ত-অনুরাগীরা। গীতিকবি সংঘ থেকেও তাদের নন্দিত সদস্যকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ৮ ডিসেম্বর ১৯৫৮ সালে দোহারের নয়াবাড়ি ইউনিয়নের পূর্বধােয়াইর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন হাসান মতিউর রহমান। ১৯৭৭-৭৮ সালের দিকে সংগীতের তালিম নেন প্রখ্যাত গীতিকার ও সুরকার কুটি মনসুরের কাছে।

তুমুল জনপ্রিয় 'আমি বন্দী কারাগারে' অ্যালবামের সুরকার ও প্রযােজক তিনি। হাসান মতিউর রহমান দেশে বিদেশে ৩৫০টির বেশি পুরস্কার পেয়েছেন। ১৯৮০ সালে তিনি ‘চেনাসুর’ নামে একটি সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেন। এখান থেকেই প্রথম অ্যালবাম প্রকাশ করে শিল্পী হিসেবে যাত্রা করেন 'পাগল মন'খ্যাত গায়িকা দিলরুবা খান।

মুজিব পরদেশী, আশরাফ উদাস, মনির খানের মতাে অনেক সংগীত তারকার কণ্ঠে জনপ্রিয় গানের স্রষ্টা তিনি। ফোক সম্রাজ্ঞী মমতাজের সংগীত জীবনের জনপ্রিয়তার নেপথ্যের কারিগর হিসেবেও তাকে ধরা হয়। তার লেখা গানে বাজিমাত করেছেন রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়ামিন, এন্ড্রু কিশােররাও।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধেও সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন বাংলাদেশের সংগীত জগতে অসামান্য ভূমিকা রাখা হাসান মতিউর রহমান।

এলএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]