বয়স কম দাবি করে স্ত্রী ও ডিভোর্স নিয়ে এবার যা বললেন নোবেল

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:২৪ পিএম, ১১ অক্টোবর ২০২১

জি বাংলার ‘সা রে গা মা পা’খ্যাত গায়ক মাইনুল আহসান নোবেল। তার সংসার দীর্ঘদিন ধরেই টানাপোড়েন চলছিল। অবশেষে ৬ অক্টোবর প্রকাশ্যে আসে তাদের বিচ্ছেদের খবর। ফেসবুকে ডিভোর্সের ঘোষণা দেন নোবেল।

এরপর যোগাযোগ করা হয় নোবেলের স্ত্রী মেহরুবা সালসাবিল মাহমুদের সঙ্গে। তিনি জানান, গত ১১ সেপ্টেম্বর নোবেলের ঠিকানায় তালাকনামা পাঠিয়েছেন। নোবেলের নানা কর্মকাণ্ডের কারণে অনেক দিন ধরেই তাদের বনিবনা হচ্ছিল না।

সে সময় সালসাবিল বলেন, ‘নোবেল মানসিকভাবে চরম অসুস্থ। চরম মাদকাসক্ত, নারী নেশাসহ আমাকে নানাভাবে নির্যাতন করতো। এসবের প্রমাণ আমার কাছে আছে। এসব কারণে তাকে ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

অন্যদিকে নোবেলের দাবি, সালসাবিল তাকে ‘বিষ খাইয়ে’ মারার চেষ্টা করেছিলেন। শুধু তাই নয়, নোবেলের পাসপোর্ট, জাতীয় পরিচয়পত্র গায়েব করে দিয়েছেন সালসাবিল। ব্যাংক থেকেও বড় অঙ্কের টাকা সরিয়েছেন তিনি।

নোবেল আরও জানান, বাংলাদেশের একজন বড় সেলিব্রেটি সালসাবিলকে হায়ার করেছে, তার ক্যারিয়ার নষ্ট করার জন্য। স্ত্রী সালসাবিল সম্পর্কে নানা অভিযোগ করেন এই গায়ক। এসব নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে চলে কাদা ছোড়াছুড়ি।

গত শনিবারও নোবেল এক ফেসবুক পোস্টে জানান, পাত্রী খুঁজছেন তিনি। এর একদিন না পেরোতেই এই গায়ক দাবি করলেন, স্ত্রীর সঙ্গে তার সব বিবাদের মীমাংসা হচ্ছে।

নোবেল বলেন, ‘আমার এবং আমার স্ত্রীর মধ্যকার সব বিবাদ পারিবারিকভাবে মীমাংসা করা হচ্ছে। বিগত কিছুদিনের কাদা ছোড়াছুড়ির জন্য বিনীতভাবে দুঃখিত। বিয়ে একটা পবিত্র প্রথা, অনুগ্রহ করে বেফাঁস মন্তব্য করে এর পবিত্রতা নষ্ট করবেন না।’

‘মীমাংসা’র বিষয়টি জানতে যোগাযোগ করা হলে গণমাধ্যমকে নোবেল বলেন, আমাদের বয়স কম! হুটহাট অনেক ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি। আমার স্ত্রীর সঙ্গে এখন কথা হয়। আমরা চাই না আলাদা হয়ে যেতে। আমাদের পরিবারও বিষয়টি নিয়ে কথা বলছে। এখন দেখা যাক কি হয়। আমরা সব ভুলে আবার এক হতে চাই।

বিষয়টি নিয়ে সালসাবিলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি। জানা যায়, নোবেল সালসাবিলের তালাকনামা পেয়েছেন। আগামী ডিসেম্বরে তা কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

এমআই/এলএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]