মারামারি-ঝামেলা শিল্পীদের মানায় না: ফেরদৌস

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:১৮ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন ২৮ জানুয়ারি। এরইমধ্যে দুই প্যানেলকে ঘিরে জমে উঠছে এফডিসি। নির্বাচনে কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদ থেকে কার্যনির্বাহী সদস্য পদে প্রার্থী নায়ক ফেরদৌস।

শারীরিক অসুস্থতার কারণে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর থেকে ছিলেন নিরব। আজ রোববার থেকে তিনি সরব হলেন প্রচারণায়। এলেন এফডিসিতেও৷

প্রিয় শিল্পীকে কাছে পেয়ে সারাক্ষণই ঘিরে আছেন সাধারণ শিল্পীরা। ফেরদৌসও সবার আবদার মিটিয়ে ভোট চাইছেন।

একফাঁকে কথা বলেন তিনি জাগো নিউজের সঙ্গে। নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে তিনি বলেন, 'বেশ ভালোই পরিবেশ দেখছি৷ একটা পরিবর্তন আসতে চলেছে হয়তো। তবে অনেক অপরিচিত মানুষ দেখছি। আমাদের উচিত এই সময়টাতে আচরণ সংযত রাখা। সুন্দর রাখা৷ কারণ এরা যারা ঘুরছে সবার কাছে আমরা রোল মডেল, প্রিয় মানুষ।

এমন কিছু করা যাবে না যা তাদের মনে আমাদের প্রতি বিরুপ ধারণা তৈরি করে।'

নায়ক ইমনের সঙ্গে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ে ফেরদৌস বলেন, 'এটা খুবই হতাশার। কাজটা যেই করে থাকুন, যারাই এর সঙ্গে জড়িত থাকুক সেটা শিল্পীসুলভ না। এর আগেও নির্বাচনে দেশের জনপ্রিয় তারকারা ধাক্কাধাক্কির শিকার হয়েছেন। মারামারি-ঝামেলা শিল্পীদের কাছে কাম্য নয়।

আমরা একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন চাই যাতে করে যোগ্য একটি নেতৃত্ব উঠে আসে। যারা শিল্পীদের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করবে।'

jagonews24

ইলিয়াস কাঞ্চনকে ধন্যবাদ জানিয়ে ফেরদৌস বলেন, 'আমি অত্যন্ত আনন্দিত ইলিয়াস কাঞ্চন ভাই এবার নির্বাচনে এসেছেন। উনি আমাদের প্রপার অভিভাবক। আমরা সবসময় চেয়েছি এমন একজন আমাদের দায়িত্ব নিক। রাজ্জাক সাহেব চলে গেছেন। আলমগীর ভাই, ফারুক ভাই, সোহেল রানা ভাইয়েরা অসুস্থ।

এমন সময় কাঞ্চন ভাইয়ের বিকল্প ছিল না৷ তিনি নির্বাচনে আসতে রাজি হয়েছেন, তাকে কৃতজ্ঞতা জানাই৷ আমার আনন্দ হচ্ছে তার নেতৃত্বে যে প্যানেল সেখান থেকে নির্বাচন করতে পারছি। আমরা যোগ্য একটি নেতৃত্ব শিল্পীদের উপহার দিতে চাই।'

কোনো পোর্টফোলিওতে না গিয়ে ইসিতে কেন নির্বাচন করছেন? জবাবে ফেরদৌস বলেন, 'আমি নানা কাজে ব্যস্ত আছি৷ শুটিং আছে৷ এসব ভেবে বড় পদে যাইনি। আর আমার থাকা না থাকা বিষয় না। আমি চাই যারা যোগ্য তারাই ক্ষমতায় থাকুক, শিল্পীদের কাজে নিয়মিত থাকার ব্যবস্থা করুক। তাদের সব সমস্যা দূর করুক।'

নির্বাচনে আপনি ছিলেন না এতদিন৷ ভোটারদের সাথে যোগাযোগ বা প্রচারণার যে ঘাটতি তা নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না, জানতে চাইলে ফেরদৌস বলেন, 'আমি তা মনে করি না। আমি বিশ্বাস করি শিল্পীরা আমাকে ভালোবাসেন৷ আমি নানা সময় তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। আমার সেই বিশ্বাস আছে, তার প্রতিদান পাবো৷ ভোটারদের সাথে যোগাযোগ করছি। তারাও সাড়া দিচ্ছেন।

আমি নেতিবাচক প্রচারণায় বিশ্বাসী না। সত্যি কথা বলতে এখানে কারো বিপক্ষে বলার কিছু নেই। সবাই শিল্পী৷ আমি চাই যারা ক্ষমতায় ছিল তাদের ব্যর্থতাগুলো মূল্যায়ন করবেন ভোটাররা।'

এলএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]