ট্রাস্ট কলেজের সাফল্যের এক যুগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১৩ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২২

ব্যতিক্রমী ও আধুনিকতার সারিতে সুপরিচিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ট্রাস্ট কলেজ। একাদশ শ্রেণিতে তিনটি বিভাগে প্রায় সাড়ে তিনশ শিক্ষার্থী নিয়ে ২০০৯ সালে যাত্রা শুরু করে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সাফল্য আর ক্রমাগত অগ্রযাত্রায় ট্রাস্ট কলেজ এখন এক যুগ পেরিয়ে শুরু করেছে ১৩তম ব্যাচের ভর্তি কার্যক্রম।

ছাত্রছাত্রীদের নিয়মিত পাঠদানের জন্য এ কলেজে রয়েছে একশ’র বেশি দক্ষ, অভিজ্ঞ ও উচ্চতর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষক। যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও আন্তরিকতাপূর্ণ শিক্ষাদানে গত ১১টি উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় জিপিএ-৫ সহ ট্রাস্ট কলেজের ছাত্রছাত্রীরা ঈর্ষণীয় সাফল্য পেয়েছে।

২০১৩ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের শীর্ষ ২০টি কলেজের অন্যতম স্থান অর্জন করে ট্রাস্ট কলেজ। সম্মানের ঝুড়িতে জমা হয়েছে দেশি ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সম্মাননা পদকও।

গতানুগতিক মুখস্থবিদ্যা, নোটসংস্কৃতি, পাঠ্যসূচি সংক্ষিপ্তকরণ বা সাজেশন নির্ভরশীলতা পরিহার করে শিক্ষার্থীদের বিষয়ভিত্তিক দক্ষতা বাড়াতে দৃঢ় প্রত্যয়ী এ কলেজ। সৃজনশীল ও কর্মমুখী শিক্ষার মাধ্যমে বিশ্বায়নের উপযোগী, আলোকিত মানুষ ও দক্ষ জাতি গঠনের লক্ষ্যে নিরলস কাজ করছে ট্রাস্ট কলেজ।

করোনায় যখন সমগ্র বিশ্ব গৃহবন্দি, তখন প্রযুক্তির ব্যবহারে অনলাইন মাধ্যমে শিক্ষাকর্মসূচি গ্রহণ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক শিক্ষাকার্যক্রম পারিচালনা করে আসছে ট্রাস্ট কলেজ।

ট্রাস্ট কলেজের সাফল্যের এক যুগ

সেইসঙ্গে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রণিত রুটিন অনুযায়ী সংসদ টিভিতে প্রচারিত ক্লাসগুলোতেও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সার্বক্ষণিক তদারকি করে আসছেন ট্রাস্ট কলেজের শিক্ষকরা।

পাশাপাশি বিভিন্ন দিবস ও জাতীয় কর্মসূচির অনুষ্ঠানগুলো ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে যথাযথভাবে উদযাপন করে আসছে ট্রাস্ট কলেজ।

এরইমধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ, মহান স্বাধীনতা ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ট্রাস্ট কলেজে নেওয়া হয়েছে গুরুত্বর্পূণ কর্মসূচি।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্ত্রী ও কোভিড-১৯ বিবেচনায় ১২ বছরের টিউশন ফি’র ধারাবাহিকতায়ও ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে। ২০২১-২০২২ শিক্ষার্বষের টিউশন ফি’র (বিজ্ঞান শাখা ৩হাজার, ব্যবসায় শিক্ষা ২ হাজার ৮০০ এবং মানবিক বিভাগ ২ হাজার ৫০০ টাকা)। তারপরও যারা এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়েছে এবং আর্থিকভাবে অসচ্ছলদের মধ্যে যারা জিপিএ ৫ পেয়েছে তাদের জন্য বিনামূল্যে পড়ার সুযোগও আছে।

এক যুগেরও বেশি সময়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে সুদক্ষ পরিচালনা পর্ষদ এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকের সমন্বিত উদ্যোগে ট্রাস্ট কলেজের পাঠদান পদ্ধতিতে রয়েছে ব্যতিক্রমী কিছু বৈশিষ্ট্য।

এমএইচএম/কেএসকে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]