ভারতে পুরুষদের তুলনায় নারীরা বেশি ক্যান্সার আক্রান্ত

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:২৬ এএম, ২৯ মার্চ ২০১৮
ভারতে পুরুষদের তুলনায় নারীরা বেশি ক্যান্সার আক্রান্ত

বিশ্বজুড়ে নারীদের তুলনায় পুরুষদের ক্যান্সার আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ২৫ শতাংশ বেশি। তবে ভারতে এর উল্টো চিত্র। দেশটিতে পুরুষদের তুলনায় মেয়েদের ক্যান্সার বেশি ধরা পড়ছে। চিকিৎসা বিষয়ক জার্নাল ল্যানচেট এর এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জার্নালটির বরাত দিয়ে বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতে মেয়েদের ক্যান্সার বেশি ধরা পড়লেও পুরুষরা ক্যান্সারে বেশি মারা যাচ্ছেন। কারণ ভারতে মেয়েদের মধ্যে ৭০ শতাংশই স্তন, গর্ভাশয়, ডিম্বাশয় এবং জরায়ু ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন। আর পুরুষদের মূলত ফুসফুস ও মুখের ক্যান্সার বেশি হয়। দুটোরই কারণ ধূমপান এবং তামাক।

বলা হচ্ছে, ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে প্রতি বছর প্রায় ৯০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়। ভারতে ক্যান্সার আক্রান্ত নারীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি (২৭ শতাংশ) নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত। এছাড়া নারীদের স্তন ও ডিম্বাশয়ে ক্যান্সারের ঘটনাগুলো বেশি দেখা যা ৪৫ থেকে ৫০ বছরের দিকে।

দেশটির ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ক্যান্সার প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ-এর পরিচালক ও গবেষক ডক্টর রবি মেহরোত্রা বিশ্বাস করেন, স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকির কারণগুলো চর্বিযুক্ত খাবার, স্থূলতা, দেরিতে বিয়ে, কম সন্তান সংখ্যা, প্রসবের পর পর্যাপ্ত বুকের দুধ না খাওয়ানো -এসবই প্রধান কারণ।

তিনি আরও বলেন, অনেক নারীর ক্ষেত্রেই ক্যান্সার দেরিতে ধরা পড়ে সচেতনতার অভাবে এবং চিকিৎসকের কাছে যেতে অনিচ্ছার কারণে। কিন্তু আমেরিকাতে ৮০ শতাংশ স্তন ক্যান্সার প্রাথমিক এবং দ্বিতীয় স্তরেরই নির্ণয় করা সম্ভব হয়। অন্যদিকে ভারতে বেশিরভাগ স্তন ক্যান্সার ধরা পড়ে তৃতীয় এবং চতুর্থ ধাপে গিয়ে।

ভারতে নারীদের ক্ষেত্রে সার্ভিকাল ক্যান্সার বা গর্ভাশয়ের ক্যান্সার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। ক্যান্সারে আক্রান্ত মহিলাদের এক-চতুর্থাংশের মৃত্যুর কারণ এ ক্যান্সার।

তবে ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা, সব ধরনের ক্যান্সারের মধ্যে সার্ভিকাল ক্যান্সার বা গর্ভাশয়ের ক্যান্সার সবচেয়ে বেশি প্রতিরোধ যোগ্য। এতে শুধু যথা সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন।

আরএস/আরআইপি