অবসরে অধ্যাপক এবিএম আবদুল্লাহ

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১০:০৪ পিএম, ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) এর চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন দেশবরেণ্য চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ। একুশে পদকপ্রাপ্ত এই অধ্যাপক অবসরগ্রহণের আগ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন ও ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তার অবসর উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ডি ব্লকে ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের ক্লাসরুমে বিদায়ী সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ হলেন এমন একজন গুণী শিক্ষক, চিকিৎসক, গবেষক, প্রশিক্ষক যার মাধ্যমে কোনো কোনো জায়গায় প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত পরিচিতি লাভ করে। রোগীরা অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহর নাম শ্রদ্ধাভারে স্মরণ করেন। অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ হলেন তরুণ চিকিৎসকদের জন্য অনুসরণীয় অনুকরণীয় শিক্ষক ও চিকিৎসক। এই বিশ্ববিদ্যালয় সব সময়ই তার অভাব অনুভব করবে।

আবেগঘন পরিবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আব্দুল্লাহ আল হারুন, অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ স্যারের সহধর্মিণী অধ্যাপিকা মাহমুদা বেগম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া অধ্যাপক ও কবি ডা. মো. আবদুর রহিম, অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল জলিল চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আতিকুল হক, অধ্যাপক ডা. মো. জিলন মিঞা সরকার, অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ আবুল হাসনাত, অধ্যাপক ডা. এ কে এম মোশরারফ হোসেন, অধ্যাপক ডা. সুনীল কুমার বিশ্বাস, সহযোগী অধ্যাপক ডা. আফরোজা আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উপস্থিত ছিলেন ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স ও কর্মচারীরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদ আরাফাত।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, জীবনের লক্ষ্য ঠিক থাকতে হবে। কারো ক্ষতি করা নয়, ভালো কিছু করার প্রবণতা থাকতে হবে। মানুষের জীবনে কিছু করে যাওয়ার মতো সময় খুব অল্পই পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, সংক্ষিপ্ত জীবনে ভালো কিছু অর্জন করে তা মানুষের মাঝেই বিতরণ করে যেতে হবে। জীবনে আশাহত হওয়া যাবে না। সমালোচনায় কান দেয়া যাবে না। সততা ও আন্তরিকতার সঙ্গে বার বার এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে যেতে হবে। তরুণ চিকিৎসকরা সবাই ভালো মানুষ ও ভালো চিকিৎসক হবেন সেই প্রত্যাশা করছি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়বে তিনি প্রত্যাশা করেন।

অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহর সহধর্মিণী অধ্যাপিকা মাহমুদা বেগম বলেন, জীবনে সফল হওয়ার জন্য আত্মবিশ্বাস, টার্গেট, সময়ানুবর্তিতা, স্বার্থহীনতা, একাগ্রতা, চেষ্টা ও আশাবাদী থাকাটা খুবই জরুরি। এসব গুণসমূহ অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহর মাঝে বিদ্যমান রয়েছে বলেই তিনি আজ এ পর্যায়ে পৌঁছেছেন।

অন্যান্য বক্তারা বলেন, অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ হলেন আদর্শবান ব্যক্তিত্ব, শিক্ষক ও চিকিৎসক। রোগীদের প্রতি কোনো রকম অবহেলা তিনি সহ্য করতে পারেন না। সহজ সরল এমন গুণী শিক্ষক ও চিকিৎসককে অনুসরণ করেই তরুণ চিকিৎসকদের আলোকিত মানুষ, আলোকিত চিকিৎসক হওয়া জরুরি। অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ যেকোনো সময় যেকোনো পরিস্থিতিতে সবাইকে দুশ্চিন্তামুক্ত থাকার পরামর্শ দেন যা প্রত্যেক মানুষের জন্যই অত্যন্ত জরুরি।

বক্তারা অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহকে দরদী চিকিৎসক হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, দেশের চিকিৎসা শিক্ষা, চিকিৎসাসেবা ও গবেষণায়সহ সামগ্রিক চিকিৎসা পেশার উন্নয়ন, মর্যাদা বৃদ্ধি ও সুনাম অক্ষুণ্ন রাখতে অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহর অসামান্য অবদান রেখেছেন এবং বর্তমানেও তা অব্যাহত রয়েছে।

এমইউ/এমআরএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :