বিএসএমএমইউয়ে বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া ও মেরুদণ্ড দিবস পালিত

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১১:০৭ এএম, ১৬ অক্টোবর ২০১৯

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ক্যাম্পাসে বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া দিবস ও মেরুদণ্ড দিবস পালিত হয়েছে।

বুধবার ১৭৩ তম বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ও বি ব্লকের মধ্যবর্তী স্থান বটতলা থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন অংশ প্রদক্ষিণ করে। এবারে বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া দিবসের প্রতিপাদ্য- অনলি টু হ্যান্ডস সেভ দ্য লাইভ অফ মেনি পিপলস।

বাংলাদেশ সোসাইটি অব অ্যানেসথেসিওলজিস্টনের উদ্যোগে আয়োজিত র‌্যালির উদ্বোধন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার। দিবসটি উপলক্ষে বেলুন ও পায়রা উড়ানোর পর শহীদ ডা. মিলন হলে কেক কাটা হয়।

এ সময় ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার বলেন, চিকিৎসা বিজ্ঞানে অ্যানেসথেসিয়া গুরুত্ব অপরিসীম। যেকোনো অস্ত্রোপচার বা সার্জারির আগে অ্যানেসথেসিয়ার প্রয়োজন হয়। সঠিকভাবে ও যথাযথ পরিমাণ অ্যানেসথেসিয়া শরীরে প্রয়োগ না করতে পারলে রোগীর মৃত্যু ঝুঁকি থাকে। বর্তমানে অ্যানেসথেসিয়া অনেক উন্নত ও আধুনিক হয়েছে। ফলে রোগীদের মৃত্যু ঝুঁকিও কমে এসেছে। রোগীদের ব্যথা নিরাময়ে অ্যানেসথেসিয়ার ভূমিকা অতুলনীয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশব্যাপী ও সমগ্র বিশ্বে এনেসথেসিওলজিস্টবৃন্দ আইসিইউ সেবা দিয়ে থাকেন।

BSMMU-2

এদিকে বিশ্ব মেরুদণ্ড দিবস উপলক্ষে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন অংশ প্রদক্ষিণ করে। এবারের মেরুদণ্ড দিবসের প্রতিপাদ্য- আপনার মেরুদণ্ড সচল রাখুন।

র‌্যালিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, বিএসএমএমইউয়ের অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বিএম আব্দুল হান্নান, অ্যানেসথেসিয়া, অ্যানালজেসিয়া অ্যান্ড ইনটেনসিভ কেয়ার মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. একেএম আখতারুজ্জামান, অধ্যাপক ডা. দেবব্রত বনিক, অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল হাই, অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবু জাফর চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. মো. আনোয়ারুল ইসলাম, অধ্যাপক ডা. কৃষ্ণপ্রিয় দাশ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমইউ/এমএসএইচ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]