মুজিববর্ষে লিভার কেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারে আউটডোর সেবা

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩৯ পিএম, ১৭ মার্চ ২০২০

বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মুজিববর্ষে লিভার রোগীদের কল্যাণে লিভার কেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারে সংযোজন হলো আউটডোর সেবা।

রাজধানীর ধানমিন্ডর ১৪ নং রোডে (নতুন) অবস্থিত ফারাবী জেনারেল হাসপাতালে লিভার কেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারে ১৮ মার্চ (বুধবার) থেকে প্রতি শনি, সোম ও বুধবার লিভার বিশেষজ্ঞরা অন্তঃবিভাগের পাশাপাশি বহির্বিভাগে রোগীদের সাশ্রয়ী মূল্যে সেবা দেবেন।

মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ‘নিঃসন্দেহে এটি বাংলাদেশের লিভার রোগীদের সুলভ মূল্যে এবং সহজে বিশেষজ্ঞ সেবা ও সর্বাধুনিক চিকিৎসা পেতে সাহায্য করবে।’

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘সরকারি খাতের পাশাপাশি বেসরকারি প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ২০১৬ সালে একদল উদ্যমী, উদীয়মান, দক্ষ হেপাটোলজিস্ট, সমাজের বিভিন্ন স্তরের ব্যক্তি এবং লিভারের রোগীদের সমন্বয়ে গঠিত হয় ফোরাম ফর দি স্টাডি অব দি লিভার ডিজিজ, বাংলাদেশ (এফ.এস.এল.বি)। এটি একটি জনহিতকর, অলাভজনক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সংগঠনটির চেয়ারম্যান শহীদ জায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী এবং এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের লিভার বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল)।’

‘লিভার কেয়ার উই ডেলিভার’- এই লক্ষ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত লিভার কেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার, ফোরাম ফর দি স্টাডি অব দি লিভার ডিজিজ, বাংলাদেশের প্রধান প্রকল্প। ঢাকা শহরের প্রাণকেন্দ্র ধানমন্ডিতে ফারাবী জেনারেল হাসপাতালে অবস্থিত এই সেন্টারে লিভার রোগীদের যাবতীয় চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। এখানে অত্যন্ত স্বল্প মূল্যে সব পরীক্ষা-নিরীক্ষা, আল্ট্রাসনোগ্রাম, এন্ডোস্কপি, কোলনোস্কপি প্রভৃতি করা হয়।

‘উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে লিভার রোগের আধুনিক চিকিৎসা এখানেও শুরু করা হয়েছে, যা দেশের অন্য কোথাও নেই। যেমন- লিভার সিরোসিসের চিকিৎসায় স্টেম সেল থেরাপি ও প্লাজমা এক্সচেঞ্জ, লিভার ক্যান্সারের চিকিৎসায় আর.এফ.এ ( রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি এবলেসন), টেইস (ট্রান্স আরটারিয়াল কেমো এমবোলাইজেশন) প্রভৃতি এই সেন্টারের নিয়মিত কার্যক্রম। শুধু তাই নয়, লিভার রোগীদের কল্যাণে বিশেষজ্ঞদের জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধির লক্ষ্যে এখানে নিয়মিত বৈজ্ঞানিক সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, বিভিন্ন গবেষণা কার্যক্রম, সচেতনতা প্রোগ্রাম প্রভৃতি আয়োজন করা হয়’, বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

জেডএ/এমএস