নারী বিজ্ঞানীদের গবেষণা অনুদান দেবে আইসিডিডিআর,বি

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:০৬ পিএম, ২০ মার্চ ২০২০

দেশের নারী বিজ্ঞানীদের জন্য ‘মুজিব শতবর্ষ স্বাস্থ্য গবেষণা অনুদান’ প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে আইসিডিডিআর,বি (আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ)। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অংশ হিসেবে এবং আইসিডিডিআর,বির বিজ্ঞানভিত্তিক উৎকর্ষের ৬০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার এ অনুদান দেয়া হবে।

নারী বিজ্ঞানীদের গবেষণা অনুদান দিতে এ ধরনের পদক্ষেপ বাংলাদেশে এই প্রথম। এর উদ্দেশ্য হল দেশে নতুন প্রজন্মের নারী গবেষক ও বিজ্ঞানী গড়ে তোলা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এটি নারীদের জনস্বাস্থ্য ক্ষেত্রে আরও বেশি গবেষণা ও উদ্ভাবন করতে উদ্বুদ্ধ করবে এবং তাদের প্রতিভার সর্বোচ্চ বিকাশ ঘটাতে সহায়তা করবে। নতুন চিকিৎসা ব্যবস্থা, রোগনির্ণয়, রোগ ব্যবস্থাপনা, জনস্বাস্থ্য-সংশ্লিষ্ট কৌশল প্রণয়ন এবং আরও বিভিন্ন ক্ষেত্রে অগ্রগতি সাধনে এই অনুদান বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

এ উপলক্ষে আইসিডিডিআর,বির নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক জন ক্লেমেন্স বলে, একজন সত্যিকারের স্বপ্নদ্রষ্টা নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে নারী বিজ্ঞানীদের জন্য এই স্বাস্থ্য গবেষণা অনুদানের ব্যবস্থা করতে পেরে আমরা গর্বিত। বঙ্গবন্ধু আইসিডিডিআর,বিকে (তৎকালীন কলেরা রিসার্চ ল্যাবরেটরি) বিশেষভাবে মূল্যায়ন করতেন এবং বাংলাদেশের যেকোনো জনস্বাস্থ্য-সংক্রান্ত সমস্যা মোকাবেলায় তিনি এই প্রতিষ্ঠানটির ওপর নির্ভর করতেন।

এ অনুদানের জন্য ৫০ বছরের কম বয়সী বাংলাদেশি নারী বিজ্ঞানী, গবেষক, শিক্ষাবিদ ওশিক্ষার্থীকে আইসিডিডিআর,বির কৌশলগত লক্ষ্য এবং জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার সাথে সামঞ্জস্য রেখে আটটি বিষয়ের আওতায় আবেদন করার আহ্বান জানানো হচ্ছে। বিষয়গুলো হলো-
* মা, নবজাতক ও শিশুমৃত্যু হ্রাস, এবং নারী, শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের কল্যাণ।
* মা ও শিশুর অপুষ্টি প্রতিরোধ ও চিকিৎসা।
* আন্ত্রিক ও শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ প্রতিরোধ ও চিকিৎসা ।
* ইমার্জিং ও রিইমার্জিং সংক্রমণ শনাক্তকরণ এবং নিয়ন্ত্রণ।
* সার্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা।
* লিঙ্গ সমতা, যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য এবং অধিকার অর্জন।
* জনস্বাস্থ্য ক্ষেত্রে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব।
* অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা।

প্রত্যেক আবেদনকারী ৪২ লাখ টাকা পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১৮ মাস মেয়াদী একটি গবেষণা প্রকল্পের অনুদানের জন্য আবেদন করতে পারবেন। সর্বমোট ৮-১০টি প্রকল্পে আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে, যার অর্ধেক পরিমাণ আইসিডিডিআর,বির বাইরের আবেদনকারীদের জন্য বরাদ্দ থাকবে।

প্রস্তাবনার গুণগত মান এবং আবেদনকারীর যোগ্যতার ওপর ভিত্তি করে আবেদনসমূহ মূল্যায়ন করা হবে। বিশ্বের স্বনামধন্য বিজ্ঞানী ও জনস্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষকদের সমন্বয়ে গঠিত আইসিডিডিআর,বির সায়েন্টিফিক অ্যাডভাইজরি গ্রুপ (এসএজি) গবেষণা প্রস্তাবনাগুলোর মূল্যায়ন করবে এবং বিজয়ীদের নির্বাচন করবে। তবে, আইসিডিডিআর,বির ইনস্টিটিউশনাল রিভিউ বোর্ডের (আইআরবি) অনুমোদনের ওপর ভিত্তি করে চূড়ান্ত বিজয়ী নির্বাচিত হবে।

কার্যকরভাবে ও দক্ষতার সাথে সময়মতো যেন গবেষণা প্রকল্পগুলো সম্পন্ন হয় তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে গবেষণার বিষয়বস্তুর সাথে সামঞ্জস্য রেখে আইসিডিডিআর,বির সংশ্লিষ্ট একজন সিনিয়র সায়েন্টিস্ট প্রত্যেক আবেদনকারীর জন্য বিশেষজ্ঞ পরামর্শদাতা হিসেবে নিয়োজিত থাকবেন।

২১ মার্চ ২০২০ থেকে ২১ মে ২০২০ পর্যন্ত আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে। যোগ্যতার মানদণ্ড, আবেদনের পদ্ধতি, স্কোরিংয়ের মানদণ্ড এবং এই অনুদান সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য জানতে ওয়েবপেইজে দেখুন।

বিভিন্ন গবেষণা থেকে দেখা যায়, অন্যান্য কারণের মধ্যে গবেষণা অনুদান পাওয়ার সুযোগের অভাবে বিশ্বব্যাপী নারী ও কিশোরীরা বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল এবং গণিতের ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে পিছিয়ে পড়েন। যোগ্য নারী গবেষকরা যেন প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা পান সে বিষয়ে আইসিডিডিআর,বি বিশেষ অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। আইসিডিডিআর,বি বিশ্বাস করে সফল উদ্ভাবন ও গবেষণায় নারীর ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এমইউ/এইচএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]