‘ভ্যাকসিন গ্রহণকারী সবাইকে টেলিমেডিসিন সেবা দেয়া হবে’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:২৫ পিএম, ২০ জানুয়ারি ২০২১

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান বলেছেন, ‘অ্যাস্ট্রেজেনেকার অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন যারা গ্রহণ করেছেন শারীরিকভাবে তাদের বড় কোনো সমস্যা এখনো দেখা দেয়নি। তবে দেশে ভ্যাকসিন নেয়ার পর কারও শরীরে কোনো ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে সবাইকে টেলিমেডিসিন সেবা দেবে সরকার।’

বুধবার (২০ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সাংবাদিকদের নিয়ে ভ্যাকসিন সংক্রান্ত আয়োজিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক (এসডিজি বিষয়ক) জুয়েনা আজিজের সভাপতিত্বে সভায় ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম পিএএ ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম উপস্থিত ছিলেন।

ভ্যাকসিন দেশে আসার পর কীভাবে মানুষকে দেয়া হবে সে প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব বলেন, ‘ভ্যাকসিন দেশে আসার পর প্রথমে সেগুলো ঢাকার চারটি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল- কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত কর্মীদের মধ্য থেকে ৫০০ থেকে ৬০০ জনকে দেয়া হবে। এরপর সাতদিন সেগুলো পর্যবেক্ষণ করা হবে। সাতদিন পর্যবেক্ষণ শেষে অন্যদের ভ্যাকসিন প্রয়োগের কাজ শুরু করা হবে।’

দেশে কোনো নকল ভ্যাকসিন প্রয়োগের সুযোগ আছে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে সচিব বলেন, ‘দেশের ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের কঠোর নিয়মের মাধ্যমে নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া এই ভ্যাকসিন প্রয়োগের কোনো সুযোগ নেই। এর জন্য সরকার “সুরক্ষা অ্যাপ” নামে একটিমাত্র সরকারি অ্যাপ থেকেই ভ্যাকসিনের জন্য নাম নিবন্ধনের সুযোগ দিয়েছে। এর ফলে নকল ভ্যাকসিন প্রয়োগের আর কোনো সুযোগ নেই।’

সভায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক জুয়েনা আজিজ বলেন, ‘ভ্যাকসিন দেশে এলে সেটিকে যথাযথ নিরাপত্তার মাধ্যমে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হবে এবং ভ্যাকসিন প্রদানে যেন কোনো প্রকার অনিয়ম না হয় সে ব্যাপারে সরকার কঠোর নজরদারি ব্যবস্থা রাখবে।’

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক বলেন, ‘করোনায় মৃত্যু ও শনাক্তের তথ্য জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে যেভাবে স্বাস্থ্য বুলেটিন প্রচার করা হয়েছে, একইভাবে ভ্যাকসিন প্রদানের সকল তথ্য মানুষের কাছে দ্রুততার সাথে পৌঁছে দিতে নিয়মিত ভ্যাকসিন বুলেটিন প্রচারের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।’

এসময় আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম পিএএ ভ্যাকসিন সংক্রান্ত “সুরক্ষা অ্যাপ” এর খুঁটিনাটি বিষয়াদি তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন।

এমইউ/ইএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]