কে হচ্ছেন বিএসএমএমইউ’র পরবর্তী ভিসি-প্রোভিসি?

মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল
মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:১৮ পিএম, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমইউ) ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার ভিসি হিসেবে নিয়োগের মেয়াদ আগামী ২৪ মার্চ শেষ হচ্ছে। এছাড়া প্রোভিসি (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. শাহানা আক্তারের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৭ মার্চ। তিন বছর দায়িত্বপালন শেষে তারাই আবার নতুন করে পুরাতন পদে নিয়োগ পাবেন নাকি নতুন মুখ দেখা যাবে তা নিয়ে চলছে নানান আলোচনা। তাদের মেয়াদপূর্তি যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই এ নিয়ে আলোচনা জোরদার হচ্ছে।

গুরুত্বপূর্ণ এ দুটি পদে বর্তমান দুজন ছাড়া আরও বেশ কয়েকজন নতুন ও পুরোনো মুখের কথা হাওয়ায় ভেসে বেড়াচ্ছে। ইতিমধ্যেই ভিসি ও প্রোভিসি পদে নিয়োগ পেতে আগ্রহী চিকিৎসকরা ব্যক্তিগতভাবে আবার কেউ চিকিৎসকদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের মাধ্যমে সরকারের শীর্ষ মহলে তদবির শুরু করেছেন। কেউ কেউ মোবাইল ফোনে ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন ও সুস্থতা কামনা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ষ্ট্যাটাস দিচ্ছেন। আবার কেউ অনুসারীদের মাধ্যমে অঘোষিত প্রচারণা চালাচ্ছেন।

বিএসএমএমইউ’র প্রবীণ ও নবীন চিকিৎসকদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, ভিসি হিসেবে বর্তমান ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, সাবেক প্রোভিসি (প্রশাসন) এবং বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) সভাপতি, শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, সাবেক প্রোভিসি (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. শহীদুল্লাহ সিকদার, বর্তমান প্রোভিসি (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. শাহানা আক্তার আলোচনায় রয়েছেন।

এছাড়া বর্তমান ট্রেজারার অধ্যাপক ডা.আতিকুর রহমান, বর্তমান প্রোভিসি (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. জাহিদ হোসেন, লিভার বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. জুলফিকার রহমান খান, বর্তমান পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আবু নাসের রিজভী’র নামও আলোচনায় রয়েছে।

অন্যদিকে ৭ মার্চ বর্তমান প্রোভিসি (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. শাহানা আক্তারের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। দিন ঘনিয়ে আসায় ভিসির পাশাপাশি প্রোভিসি কে হচ্ছেন তা নিয়েও চলছে আলোচনা। প্রোভিসি পদে যাদের নাম বেশি শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে হৃদরোগ বিভাগের অধ্যাপক ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ অ্যালামনাই ট্রাষ্ট সেক্রেটারি জেনারেল ডা. এসএম মোস্তফা জামান, নার্সিং অনুষদের ডিন ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান, একই বিভাগের অধ্যাপক ডা. এ কে এম সালেক, নিউরোসার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন রয়েছেন।

jagonews24

এর মাঝে বর্তমান প্রোভিসি (শিক্ষা) শাহানা আক্তার ও বর্তমান পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আবু নাসের রিজভী’র নাম ভিসি ও প্রোভিসি দুই পদেই শোনা যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জাগো নিউজকে জানিয়েছে, ভিসি পদে অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার আরেকবার নিয়োগ পাওয়ার জোর সম্ভাবনা রয়েছে। তিন বছরের মেয়াদকালে তিনি সফলভাবেই বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন। করোনা মহামারিকালে তার নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হয়।

সূত্রগুলো বলছে, এরপর বিএমডিসি সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ’র নাম ভিসি পদে নিয়োগের তালিকায় রয়েছে। তিনি কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধেকল্পে গঠিত জাতীয় কারিগরি কমিটির সভাপতি হিসেবে ভালো ভূমিকা রাখায় সরকারের ‘গুড বুকে’ রয়েছেন। এছাড়া সাবেক প্রোভিসি (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ এর আগেও ভিসি পদে নিয়োগের তালিকায় ছিলেন। দীর্ঘদিনের চিকিৎসক রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকা ও আগে প্রোভিসি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা থাকায় তিনিও শক্তিশালী প্রার্থী।

এছাড়া সাবেক প্রোভিসি (গবেষণা ও পরিকল্পনা) অধ্যাপক ডা. শহীদুল্লাহ শিকদার ঘনিষ্টজনদের কাছে নিজেকে ভিসি পদপ্রত্যাশী জানিয়ে বলেছেন, তিনি ভিসি পদে নিয়োগ পেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কার্যক্রমে বিপ্লব ঘটাবেন। এছাড়া আলোচনায় থাকা অন্যান্যরাও বেশ কয়েক বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন কার্যক্রমে জড়িত আছেন।

বর্তমান প্রোভিসি (শিক্ষা) পদে নার্সিং অনুষদের ডিন ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান ও হৃদরোগ বিভাগের অধ্যপক ডা. এসএম মোস্তফা জামান -এ দুটি নামই বেশি শোনা যাচ্ছে। চিকিৎসকদের কাছে এ দুজনেরই ক্লিন ইমেজ রয়েছে। ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান ক্লিন ইমেজ নিয়ে পেশাগত দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালন করছেন। ডাক্তারদের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে।

এছাড়া ডা. এসএম মোস্তফা জামান বিটিভিতে স্বাস্থ্য বিষয়ক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সরকারের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি করায় সরকারের শীর্ষ মহল খুশি। তাছাড়া তিনি চিকিৎসক নেতাদের সঙ্গে সদ্ভাব বজায় রেখে চলেন।

এমইউ/এমএইচআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]