কড়াকড়ির মাঝেও বিএসএমএমইউতে ১৪২৫ জনের টিকাদান

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৫৩ পিএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কনভেনশন সেন্টারে ১৫ এপ্রিল কড়াকড়ির মাঝেও মোট ১ হাজার ৪২৫ জন টিকা নিয়েছেন।

এর মধ্যে দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন ১ হাজার ২৮০ জন এবং প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন ১৪৫ জন। এ নিয়ে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন ৫৩ হাজার ৭৬ জন এবং দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন ৮ হাজার ৪ শত ৯৩ জন।

বৃহস্পতিবার কনভেনশন সেন্টারের কেন্দ্রে টিকা নেন বঙ্গবন্ধু পরিবারের জেষ্ঠ্য সদস্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাচা শেখ কবীর হোসেন। এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

এ কেন্দ্রে আরো টিকা নেন প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই বাগেরহাট ১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি, নেত্রকোনার জাকিয়া পারভীন খানম মনি এমপি, লেখক, সাংবাদিক, গবেষক, ফার্মাসিস্ট ও আওয়ামী লীগ নেতা সুভাষ সিংহ রায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান এবং অধ্যাপক ড. অসীম সরকার প্রমুখ।

এদিকে বেতার ভবনের পিসিআর ল্যাবে ১ বৈশাখ ১৪২৮ নববর্ষের ছুটির দিনের ২৬৮ জনসহ ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ১ লাখ ৩১ হাজার ৩ শত ৮৫ জনের কোভিড-১৯ টেস্ট করা হয়। বেতার ভবনের ফিভার ক্লিনিকে নববর্ষের ছুটির দিনের ১৯৮ জনসহ ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ৮৯ হাজার ৭ শত ১৭ জন রোগী চিকিৎসাসেবা নেন।

অন্যদিকে করোনা ইউনিটে ১৫ এপ্রিল সকাল ৮টা পর্যন্ত ৭ হাজার ৯ শত ৬১ জন রোগী সেবা নিয়েছেন। ভর্তি হয়েছেন ৪ হাজার ৫ শত ৪৭ জন। সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন ৩ হাজার ৭ শত ৪৭ জন। বর্তমানে ভর্তি আছেন ২০১ জন রোগী এবং আইসিইউতে ভর্তি আছেন ২০ জন রোগী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১১ জন রোগী।

এদিকে আজ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদের সাথে ডা. মিল্টন হলে ডিনদের এক গুরুত্বপূর্ণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া উপাচার্যের কার্যালয়ে স্তন ও জরায়ুমুখের ক্যান্সার নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও এ ব্লকে ফ্রন্টলাইনযোদ্ধাদের সাথে এবং ডা. মিল্টন হলে আইটি বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সকল কার্যক্রমে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, বেসিক সায়েন্স ও প্যারাক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. খন্দকার মানজারে শামীম, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মাসুদা বেগম, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমেদ, শিশু অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. শাহীন আকতার, নার্সিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমইউ/এমআরএম/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]