বিএসএমএমইউয়ের উন্নয়নে ১০০ বছরের মাস্টারপ্ল্যান

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:০৯ পিএম, ০৫ মে ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়কে (বিএসএমএমইউ) ‘সেন্টার অব অক্সিলেন্স’-এ পরিণত করতে নতুন করে ১০০ বছরের জন্য মাস্টারপ্ল্যান (মহাপরিকল্পনা) প্রণীত হচ্ছে।

মাস্টারপ্ল্যানের আওতায় আগামী ৫০ থেকে ১০০ বছরকে বিবেচনায় নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের পুরাতন ভবনসমূহ ভেঙে নতুন ভবন নির্মাণ, বহুতল ভবন নির্মাণ, প্রয়োজনীয় নতুন নতুন ভবন ও স্থাপনাসমূহ নির্মাণ করা হবে।

বুধবার (৫ মে) শহীদ ডা. মিল্টন হলে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে একটি গুরুত্বপূর্ণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। গুরুত্বপূর্ণ ওই সভায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারপ্ল্যান, সার্বিক উন্নয়ন ও অগ্রগতির বিষয়ে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন।

এদিকে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘এ’ ব্লকের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি পরিদর্শন করেন এবং কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি কমিটির সঙ্গে একটি গুরুত্বপূর্ণ সভায় মিলিত হন।

সভায় উপাচার্য বলেন, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের লাইব্রেরিসমূহের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। ছাত্র ও শিক্ষকদের শিক্ষা ও গবেষণায় সহায়ক সফটওয়ারের ব্যবস্থা করা, উন্নতমানের আর্কাইভ তৈরি, মেডিক্যাল শিক্ষাবিষয়ক প্রয়োজনীয় বইসমূহ সংগ্রহ করা ইত্যাদির মাধ্যমে এই লাইব্রেরীকে আরও উন্নত করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিক্ষকদের এই লাইব্রেরিকে যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের জ্ঞানের ভান্ডার ও চিকিৎসাবিষয়ক গবেষণা কর্মকে সমৃদ্ধ করতে হবে।

এছাড়া উপাচার্য় তার কার্যালয়ে প্রশাসনিক মিটিং, বারডেমের হৃদরোগবিষয়ক চিকিৎসক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পোস্ট গ্রাজুয়েট মেডিক্যাল অফিসারদের সঙ্গে সভা করেন। উপাচার্য শহীদ ডা. মিল্টন হলে মেডিক্যাল অফিসারদের উচ্চতর গ্রেডের অফিস অর্ডার হস্তান্তর করেন। এছাড়াও তিনি বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের স্ট্যান্ডিং কমিটির ২৬৭তম সভায় জুম এ অংশগ্রহণ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. এ কে এম মোশাররফ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল, গ্রন্থাগারিক অধ্যাপক ডা. মো. হারিসুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমইউ/এএএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]