‘হোমিওপ্যাথিকের উন্নয়ন ঘটাতে ডায়াগনোসিসে জোর দিতে হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:১৪ পিএম, ১৯ আগস্ট ২০২২

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার উন্নয়ন ঘটাতে রোগ নির্ণয়ে ডায়াগনোসিসে জোর দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. আখতারুজ্জামান।

শুক্রবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক পরিষদের ৫০ বছর পূর্তি ও ‘জাতীয় হোমিওপ্যাথিক কনভেনশন-২০২২’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আখতারুজ্জামান বলেন, হোমিওপ্যাথিক একটি প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতি। প্রাচীনকাল থেকে মানুষ এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা নিচ্ছে। এ চিকিৎসায় গবেষণা বাড়াতে হবে। হোমিও চিকিৎসকদের ক্লিনিক্যাল, প্রিক্লিনিক্যাল ট্রায়ালবেস, ল্যাববেস এবং সাইন্টিফিক অ্যানালাইসিস যখন থাকবে তখন এ চিকিৎসা ধারার গ্রহণযোগ্যতা সমাজে আরও বাড়বে।

উপাচার্য বলেন, আশির দশকে আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে কিন্তু হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষাকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। চিকিৎসকদের তৎপরতা, গবেষণা ও অধ্যয়ন অব্যাহত থাকলে আগামীতে বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্স কোর্সে ভর্তির সুযোগ তৈরি হবে। আমি আশা করবো, আপনারা হ্যানিম্যানের এই চিকিৎসা ধারাটি এগিয়ে নিয়ে যাবেন।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি নুরুল হুদা বলেন, হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিয়ে যারা কাজ করেন, তারা অন্য কোনো ওষুধ কিংবা চিকিৎসা পদ্ধতির সঙ্গে প্রতিযোগিতা বা বিতর্কে যাবেন না। হোমিও একটি স্বতন্ত্র ধারা। আপনারা প্রতিযোগিতা করবেন নিজের সঙ্গে যে, কতটা আধুনিক পদ্ধতিতে চিকিৎসা সেবা পৌঁছেতে পেরেছি। কতজন রোগী আরোগ্য লাভ করেছেন।

চিকিৎসকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, রোগীর কথা শুনে ওষুধ দিয়ে বিদায় করা ঠিক নয়। কেস স্টাডি লিখে রাখতে হবে। ব্যবস্থাপত্রে ওষুধের নামও লিখে রাখতে হবে। যেন পরবর্তীসময়ে অন্য কোনো চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে তিনি সহজেই রোগী সম্পর্কে একটি ধারণা লাভ করতে পারেন। নতুন ও পুরোনো মেডিসিন নিয়ে গবেষণা বাড়াতে হবে। এসব বিষয়ে মনোযোগী হলে হোমিওপ্যাথিক যে জীবন্ত বিদ্যা সেটি কিন্তু আমরা প্রমাণ করতে পারবো।

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক পরিষদের সভাপতি ডা. শেখ ফারুক এলাহির সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি ডা. মো. নজরুল ইসলাম খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ও পরিষদের মহাসচিব ডা. অঞ্জন কুমার দাস।

এএএম/আরএডি/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।