ঢাকা ক্লাব-ইউনিভার্সাল মেডিকেলের স্বাস্থ্য চুক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:০৮ পিএম, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

ঢাকা ক্লাব লিমিটেড ও রাজধানীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক স্বাস্থ্য চুক্তি হয়েছে। একই সঙ্গে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সঙ্গে ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) আওতায় নির্মাণাধীন প্রজেক্ট ‘অবসর’ প্রকল্প নিয়ে আলোচনা ও মতবিনিময় করেছেন ঢাকা ক্লাবের সদস্যরা।

অবসর প্রকল্পটি বাংলাদেশের প্রথম সিনিয়র সিটিজেন মেডিকেল রিসোর্ট, যেখানে ষাটোর্ধ্ব পুরুষ ও নারীদের স্বল্পকালীন বা দীর্ঘকালীন বিলাস বহুল আবাসনের পাশাপাশি সার্বিক স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের উদ্দেশ্যে একটি ৫০শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল থাকবে।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ ভবনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে চুক্তিতে যৌথভাবে সই করেন ঢাকা ক্লাবের সেক্রেটারি ও সিইও প্রণব কুমার নিয়োগী এবং ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী।

এ চুক্তির আওতায় ঢাকা ক্লাবের সদস্যরা, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাদের পরিবারের সদস্যরা এখন থেকে এ হাসপাতালে বিশেষ ছাড়ে চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। একই সঙ্গে এক্সিকিউটিভ হেলথ চেকআপ, কার্ডিয়াক হেলথ চেকআপসহ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জরুরি স্বাস্থ্যসেবা পাবেন।

দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে আরও সই করেন- ঢাকা ক্লাবের সিনিয়র ম্যানেজার (অ্যাডমিন) মো. আশফাকুর রহমান ও ডেপুটি ফাইন্যান্স ম্যানেজার (ইন্টারনাল অডিট) কাজী মো. সিরাজুস সালেকিন এবং ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার একেএম সাহেদ হোসেন ও কর্পোরেট ম্যানেজার রুহা আলম (রুহেল)।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ও এফবিসিসিআই পরিচালক প্রীতি চক্রবর্তী, সিআইপি ও সমাপনী বক্তব্য রাখেন ঢাকা ক্লাবের প্রেসিডেন্ট খন্দকার মশিউজ্জামান (রুমেল)।

স্বাস্থ্য চুক্তি ও মতবিনিময়ের পাশাপাশি উক্ত অনুষ্ঠানে সাডেন হার্ট অ্যাটাক বিষয়ে সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন ইউনিভার্সেল কার্ডিয়াক হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ সহকারী অধ্যাপক ডা. এম এ হাসনাত।

ইএআর/আরএডি/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।