ওয়েস্ট ইন্ডিজ

Team Image

আজ কেবলই ছবি

ক্রিকেট বিশ্বের এককালের মহাপরাক্রমশালী দলের নাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ওদের ক্রিকেট ইতিহাস অনেক পুরনো। ১৮৮০ সালে কানাডার বিপক্ষে খেলার জন্য সর্বপ্রথম ক্রিকেট দল গঠন করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ভিন্ন ভিন্ন অনেক দ্বীপদেশ শুধু ক্রিকেটের টানে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নাম নিয়ে খেলে।

১৯২৬ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সদস্য হয় তারা। ১৯২৮ সালে প্রথম টেস্ট খেলার সুযোগ পায় ক্যারিবিয়ানরা। বিশ্বকাপ ক্রিকেটের শুরুর দিনগুলোতে একচেটিয়া দাপট ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। অবাক দৃষ্টিতে সবাই দেখেছে গ্যারি সোবার্স, ক্লাইভ লয়েড, গর্ডন গ্রিনিজ, জোয়েল গার্নার, ভিভ রিচার্ডস, কোর্টনি ওয়ালশ, কার্টলি অ্যামব্রোস, ব্রায়ান লারাদের ক্রিকেট ম্যাজিক।

কিন্তু এখন তা কেবলই স্মৃতি। তারপরও সেই স্বর্ণযুগকে ফিরে পাওয়ার আকাঙ্খা এখনও জেগে আছে দলের সব খেলোয়াড়ের মনে। টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে অষ্টম ও ওয়ানডেতে নবম স্থানই বলে দিচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের বর্তমান হালচাল।

৩১ মে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ২০১৯ বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে ক্যারিবীয়রা। খেলা হবে নটিংহ্যামের ট্রেন্টব্রিজে। বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বেশি দাপট ছিল প্রথম ও দ্বিতীয় আসরে। ১৯৭৫-এ সেই সময়ের নামানুযায়ী প্রুডেনশিয়াল কাপে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয় অধিনায়ক ক্লাইভ লয়েডের দাপুটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ফাইনালে ক্যারিবীয়রা অস্ট্রেলিয়াকে পরাজিত করে ১৭ রানে। ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় আসরে আবারও ক্যারিবিয়ান ম্যাজিক। এবার ফাইনালে তারা হারায় ইংল্যান্ডকে ৯২ রানের ব্যবধানে। টানা তৃতীয় শিরোপা জয়ের নেশায় পরের বিশ্বকাপেও (১৯৮৩ সালে) ওয়েস্ট ইন্ডিজ উঠে যায় ফাইনালে।

এবারের প্রতিপক্ষ এশিয়ার প্রতিনিধি ভারত; কিন্তু সবাইকে অবাক করে কপিল দেবের ভারত মাত্র ১৮৩ রান করেও তুলে নেয় ৪৩ রানের জয়। অথচ মানে-গুণে ভারতের চেয়ে তখনকার ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল হাজারগুণ ভালো।

১৯৮৭ বিশ্বকাপে প্রথমবারে মতো বড় ব্যর্থতার মুখোমুখি হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গ্রুপ পর্বের তিনটি ম্যাচে হেরে সেখান থেকেই ফিরে যেতে হলো তাদের। শুরু হলো বিশ্বকাপে সাম্রাজ্য পতনের ইতিহাস। ১৯৯২ বিশ্বকাপেও আগের আসরের পুনরাবৃত্তি ঘটে।

গ্রুপ পর্বের আট খেলার চারটিতেই হেরে গিয়ে পরের রাউন্ডে উঠতে ব্যর্থ হয় দু’বারের চ্যাম্পিয়নরা। তবে প্রাপ্তির খাতা একেবারেই শূন্য ছিল না। কারণ এ বিশ্বকাপেই ব্রায়ান লারা নামক এক ক্রিকেটারের অতিমানবীয় ক্ষমতা প্রত্যক্ষ করল গোটা ক্রিকেট জগৎ।

১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপ কিছুটা স্বস্তি নিয়ে এলো ক্যারিবিয়ানদের জন্য। গ্রুপ পর্বের বাধা পেরিয়ে এবার তারা কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হয় দক্ষিণ আফ্রিকার। সেখানে ১৯ রানে প্রোটিয়াদের হারিয়ে শেষ চারে ওঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু এখানেই শেষ। প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়ার কাছে দুর্ভাগ্যজনকভাবে ৫ রানে হেরে যায় তারা।

প্রথম দুই আসরের পর ষষ্ঠ আসরেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঝলক শেষবারের মতো দেখেছিল সবাই। পরেরবার ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে আবার ব্যর্থতার ধারাবাহিকতা। এবারও সুপার সিক্সে উঠতে ব্যর্থ হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০০৩ বিশ্বকাপেও একই চিত্র। ২০০৭ সালের নিজেদের মাটিতে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা কিছুটা হলেও শান্তি দিয়েছে সমর্থকদের। ‘ডি’ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে সুপার এইটে উঠে তারা। কিন্তু এর বেশি আর এগোতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

২০১১ সালে বাংলাদেশ, ভারত এবং শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পড়েছিল ‘বি’ গ্রুপে। দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত, ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ, আয়ারল্যান্ড এবং নেদারল্যান্ডস ছিল তাদের প্রতিপক্ষ। গ্রুপ পর্বে মিরপুরে স্বাগতিক বাংলাদেশকে ৫৮ রানে অলআউট করে দিয়ে হইচই ফেলে দেয় ক্যারিবীয়রা।

ড্যারেন স্যামির নেতৃত্বে গ্রুপে চতুর্থ দল হিসেবে ওঠে কোয়ার্টার ফাইনালে। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয় ক্যারিবীয়দের। পাকিস্তানি বোলারদের সামনে মাত্র ১১২ রানে অলআউট হয়ে যায় ক্যারিবীয়রা। পাকিস্তান জিতে যায় ১০ উইকেটের ব্যবধানে।

২০১৫ বিশ্বকাপেও একই অবস্থা। কোয়ার্টার ফাইনালই ছিল ক্যারিবীয়দের শেষ যাত্রা। ‘বি’ গ্রুপে ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, পাকিস্তান, আয়ারল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, আরব আমিরাতকে পেয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এর মধ্যে তিন ম্যাচ জিতে কোনোমতে উঠলো কোয়ার্টার ফাইনালে। কোয়ার্টারে নিউজিল্যান্ড করেছিল ৩৯৩ রান। জবাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলআউট ২৫০ রানে। বিদায় নেয় ক্যারিবীয়রা।

বর্তমান এ দলটির অধিনায়কের দায়িত্বে জ্যাসন হোল্ডার। গত বিশ্বকাপেও দায়িত্বে ছিলেন তিনি। টানা দুই বিশ্বকাপে অধিনায়ক তিনি। র‌্যাংকিংয়ে ৯ নম্বরে থাকলেও এই ক্যারিবিয়ানরা ভয়ঙ্কর। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ তারা যেভাবে জিতেছে, সেই বিধ্বংসী রূপ যদি এবারও ফিরে আসে, তাহলে অন্যদের দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখা ছাড়া উপায় থাকবে না।

কারণ, ক্যারিবীয়দের এই দলটিতে রয়েছে বিশ্বের অন্যতম বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। আইপিএলের কল্যানে আরেক বিধ্বংসী অলরাউন্ডার হলেন আন্দ্রে রাসেল। যে কোনো সময় ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে সক্ষম তিনি। রয়েছেন বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান শিমরন হেটমায়ার, সাই হোপ, এভিন লুইস, ড্যারেন ব্র্যাভো, নিকোলাস পুরান।

পেসারদের মধ্যে অধিনায়ক হোল্ডারছাড়াও রয়েছেন গতি তারকা ওশানে থমাস, কেমার রোচ, শেলডন কটরেল, শ্যান গ্যাব্রিয়েল, পেস অলরাউন্ডার কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, স্পিনার অ্যাশলে নার্স, ফ্যাবিয়েন অ্যালেন। এই দলটি সত্যি সত্যি যদি কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলে, তাহলে ইংল্যান্ড থেকে আরেকটি শিরোপা জয় করলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

১৯৭৩ সাল থেকে এ পর্যন্দ ওয়েস্ট ইন্ডিজ মোট ওয়ানডে খেলেছে ৭৯৪টি। এর ভেতর জয় পেয়েছে তারা ৩৯০টি ম্যাচে। হেরেছে ৩৬৬ ম্যাচে। ম্যাচ টাই হয়েছে ১০টি। আর ২৮টিতে কোনো ফলই হয়নি। এখনও পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ওয়ানডে ক্রিকেট খেলেছেন ১১৪জন ক্রিকেটার।

Captain Image

জেসন হোল্ডার

ক্যারিবীয়রা আমোদপ্রিয় জাতি- তা সবারই জানা। একেক দ্বীপ থেকে উঠে আসে একেকজন খেলোয়াড়। সবাই মিলে গড়েন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল। তারা যেমন আমুদে জাতি, তেমন শৃঙ্খলার প্রতি শ্রদ্ধাটাও নেই বললেই চলে। তাই তো ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলকে সামাল দেয়া ধরা হয় ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম কঠিন কাজ।

আর সে কঠিন কাজটা যদি কাউকে সঁপে দেয়া হয় মাত্র ২৩ বছর ৭২ দিন বয়সে, তখন মেনে নিতেই হয় যে সে ক্রিকেটারের মাঝে রয়েছে বিশেষ কিছু! কেননা আমোদপ্রিয় এবং অনিয়মের জীবনমাপন করা ক্যারিবীয় ক্রিকেটারদের নেতা হওয়া যে সাধারণ কারো পক্ষের কাজ নয়।

৬ ফুট সাড়ে ৭ ইঞ্চি উচ্চতার জেসন হোল্ডারও নিশ্চয়ই সাধারণ কেউ নয়। তাই তো ২০১৫ সালে অভিষেকের দুই বছরের মাথায় মাত্র ২৩ বছর ৭২ দিন বয়সে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সর্বকণিষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে পেয়ে যান দলকে নেতৃত্ব দেয়ার কঠিনতম দায়িত্ব। যা তিনি দারুণ দক্ষতায় পালন করে চলেছেন বছর চারেক ধরে।

তাও কঠিন এক পরিস্থিতিতে শুরু করেন নিজের অধিনায়কত্বের অধ্যায়। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপ স্কোয়াড ঘোষণার মাত্র ৪৩ দিন আগে ঠিক করা হয় দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের মাধ্যমেই বিশ্বকাপে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার মানসিক প্রস্তুতিটা সারতে হবে পেস বোলিং অলরাউন্ডার হোল্ডারকে।

সে যাত্রায় খুব একটা ভালো হয়নি হোল্ডার তথা ওয়েস্ট ইন্ডিজের দলগত পারফরম্যান্স। পুল ‘বি’ থেকে শেষ আটে পৌঁছলেও নিউজিল্যান্ডের কাছে ১৪৩ রানের বড় ব্যবধানে হেরে বিদায় নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পরে তারা খেলতে পারেনি ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতেও। অবস্থা খুব একটা ভালো নয় বর্তমান ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়েও। তাই তো আসন্ন বিশ্বকাপে সবশেষ দল হিসেবে খেলার টিকিট পেয়েছে ক্যারিবীয়রা।

অধিনায়ক হিসেবে এর দায় খানিকটা বর্তায় হোল্ডারের ওপরেও। গত ৪ বছরে হোল্ডারের অধীনে ৭১টি ম্যাচ খেলেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। যেখানে ২১টি জয়ের বিপরীতে হারের সংখ্যা ৪৪ ম্যাচে। জয়ের শতকরা হার ৩২.৮৩। যা কিনা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে অন্তত ৫০টি ওয়ানডেতে নেতৃত্ব দেয়া যেকোনো অধিনায়কের জন্য সর্বনিম্ন।

তবে দল হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভালো না খেললেও অধিনায়ক হিসেবে খেলা ৭১ ম্যাচে খুব একটা খারাপ করেননি পেস বোলিং অলরাউন্ডার হোল্ডার। সর্বোচ্চ ৯৯ রানের অপরাজিত ইনিংসসহ মোট ৭ ফিফটিতে ২৭.৩৪ গড়ে করেছেন ১৩৬৭ রান, বল হাতে শিকার করেছেন ৯০টি উইকেট।

সবমিলিয়ে নিজের ৯২ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ২৫.৪৪ গড়ে ৭ ফিফটিতেই ১৪৭৬ রান রয়েছে তার ঝুলিতে, উইকেট রয়েছে ১১৯টি। খেলোয়াড় হিসেবে হোল্ডারের পারফরম্যান্স খুব একটা খারাপ না হলেও দলীয় সাফল্যে বেশ অনুজ্জ্বল তিনি। আসন্ন বিশ্বকাপে হারানো দিনের গৌরব ফিরে পেতে হোল্ডারের কাছ থেকে বিশেষ কিছু আশায়ই থাকবে ক্যারিবীয়রা।

Coach Image

ফ্লয়েড রেইফার

বিশ্বকাপের আর মাত্র অল্প কিছুদিন আগেই হঠাৎ করে কোচ পরিবর্তন করে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। রিচার্ড পাইবাসকে নিয়োগ দেয়ার পর মাত্র তিন মাসের মাথায় এই ইংলিশ কোচকে বিদায় করে দেয় ক্যারিবীয়রা। পাইবাসের পরিবর্তে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় ফ্লয়েড রেইফারকে। যিনি বিশ্বকাপেও ক্যারিবীয়দের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

ফ্লয়েড রেইফারের বিশেষ একটি পরিচয় রয়েছে। ২০০৯ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। যখন ক্রিকেটারদের সঙ্গে বোর্ডের বিরোধ তুঙ্গে, ওই সময় তৃতীয় সারির ক্রিকেটারদের দিয়ে একটি দল তৈরি করতে হয়েছিল ক্যারিবীয় ক্রিকেট বোর্ডকে। ওই দলেরই অধিনায়ক ছিলেন রেইফার।

ফ্লয়েড রেইফারের অধীনেই ঘরের মাঠে বাংলাদেশের কাছে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে পরাজিত হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। একই সঙ্গে সেবারই প্রথমবারেরমত বাংলাদেশ বিদেশের মাটিতে কোনো টেস্ট সিরিজ জয়ের স্বাদ পেয়েছিল। শুধু তাই নয়, একই সঙ্গে ফ্লয়েড রেইফারের ওয়েস্ট ইন্ডিজ ঘরের মাঠে বাংলাদেশের কাছে ওয়ানডে সিরিজেও হেরেছে ৩-০ ব্যবধানে।

বাংলাদেশের কাছে হারের পরই রেইফারের ৬ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যায়। ওয়ানডে ক্যারিয়ার সঙ্গে সঙ্গে না হলেও সেই বছরই শেষ হয়ে যায় তার। ৬ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে তিনি করেছেন কেবল ১১১ রান। গড় ৯.২৫ করে। সর্বোচ্চ ২৯। ৮ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ১৪.৬২ গড়ে করেছেন ১১৭ রান। সর্বোচ্চ রান ৪০।

সেই ফ্লয়েড রেইফারকেই কি না অন্তর্ভর্তীকালীন কোচ হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের। তার অধীনেই এবার বিশ্বকাপে খেলতে নামবেন গেইল-হোল্ডাররা।

মূলতঃ রিচার্ড পাইবাসকে নিয়োগ দেয়ার তিন মাসের মাথায় তার সঙ্গে চুক্তি শেষ করে দেয়া হয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডে পরিবর্তন হয়ে নতুন সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেন রিকি স্কেরিট। যে কারণে কোচিং স্টাফেও পরিবর্তন আনতে হলো। পুরো সিলেকশন প্যানেলকেই সরিয়ে দেয়া হয়েছে। ২০১৩ সাল থেকে নির্বাচকের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন কোর্টনি ব্রাউন। ২০১৬ সাল থেকে তিনি প্রধান নির্বাচক।

তাকেসহ পুরো সিলেকশন প্যানেলকে বাদ দিয়ে নতুন দায়িত্ব দেয়া হয়েছে রবার্ট হাইনেসকে। যিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ৮টি টেস্ট খেলেন ১৯৮৯ থেকে ১৯৯১ সালের মধ্যে। সভাপতি স্কেরিট বলেন, ‘আমরা বুঝতে পেরেছিলাম, খুব দ্রুতই আমাদের পলিসি পরিবর্তন করা প্রয়োজন। যেন সিলেকশন পদ্ধতিটা আরও বেশি উন্মুক্ত এবং খেলোয়াড় বান্ধব হয়।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ স্কোয়াড

জেসন হোল্ডার (অধিনায়ক), ফ্যাবিয়েন অ্যালেন, ড্যারেন ব্রাভো, কার্লোস ব্রেথওয়েট, শেলডন কোট্রেল, শেনন গ্যাব্রিয়েল, ক্রিস গেইল, সিমরন হেটমায়ার, শাই হোপ (উইকেটরক্ষক), এভিন লুইস, অ্যাশলে নার্স, নিকোলাস পুরান, কেমার রোচ, আন্দ্রে রাসেল, ওসানে থমাস।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ

  • বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ : ১১ বার
  • চ্যাম্পিয়ন : ১৯৭৫, ১৯৭৯
  • রানার্সআপ : ১৯৮৩
  • সেমিফাইনাল : ১৯৯৬
  • কোয়ার্টার ফাইনাল : ২০০৭, ২০১১, ২০১৫
  • সুপার সিক্স : নেই
  • প্রথম পর্ব : ১৯৮৭, ১৯৯২, ১৯৯৯, ২০০৩।

সময়সূচি

৩১ মে, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

ট্রেন্টব্রিজ

পাকিস্তান পাকিস্তান ১০৫/১০

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০৮/৩

ম্যাচ রিপোর্ট

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭ উইকেটে জয়ী

০৬ জুন, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

ট্রেন্টব্রিজ

অস্ট্রেলিয়া অস্ট্রেলিয়া ২৮৮/১০ (৪৯.০)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৭৩/৯ (৫০.০)

ম্যাচ রিপোর্ট

অস্ট্রেলিয়া ১৫ রানে জয়ী

১০ জুন, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

হ্যাম্পশায়ার বোল

দক্ষিণ আফ্রিকা দক্ষিণ আফ্রিকা ২৯/২, (৭.৩ ওভার)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

ম্যাচ রিপোর্ট

বৃষ্টির কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত

১৪ জুন, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

হ্যাম্পশায়ার বোল

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২১২/১০ (৪৪.৪)

ইংল্যান্ড ইংল্যান্ড ২১৩/২ (৩৩.১)

ম্যাচ রিপোর্ট

ইংল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী

১৭ জুন, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

কাউন্টি গ্রাউন্ড টন্টন

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩২১/৮ (৫০.০)

বাংলাদেশ বাংলাদেশ ৩২২/৩ (৪১.৩)

ম্যাচ রিপোর্ট

বাংলাদেশ ৭ উইকেটে জয়ী

২২ জুন, ২০১৯, ০৬:৩০ পিএম

ওল্ড ট্র্যাফোর্ড

নিউজিল্যান্ড নিউজিল্যান্ড ২৯১/৮ (৫০.০)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৮৬/১০ (৪৯.০)

ম্যাচ রিপোর্ট

নিউজিল্যান্ড ৫ রানে জয়ী

২৭ জুন, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

ওল্ড ট্র্যাফোর্ড

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

ভারত ভারত

০১ জুলাই, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

দ্য রিভারসাইড ডারহাম

শ্রীলংকা শ্রীলংকা

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

০৪ জুলাই, ২০১৯, ০৩:৩০ পিএম

হেডিংলি

আফগানিস্তান আফগানিস্তান

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

আরও

বাংলাদেশকে ব্যঙ্গ করে পাকিস্তানি পত্রিকায় কার্টুন!

বাংলাদেশকে ব্যঙ্গ করে পাকিস্তানি পত্রিকায় কার্টুন!

ভারতীয় স্পিনারদের ভয় না পেয়ে উল্টো হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন যোশী

ভারতীয় স্পিনারদের ভয় না পেয়ে উল্টো হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন যোশী

সাকিবময় ম্যাচে রেকর্ড গড়েছেন মুশফিকও

সাকিবময় ম্যাচে রেকর্ড গড়েছেন মুশফিকও

পাঁচদিনের ছুটিতে স্ত্রী-কন্যাকে নিয়ে ফ্রান্স যাবেন সাকিব

পাঁচদিনের ছুটিতে স্ত্রী-কন্যাকে নিয়ে ফ্রান্স যাবেন সাকিব