সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় পশ্চিমবঙ্গে নিহত ১


প্রকাশিত: ০৮:৩৭ এএম, ০৬ জুলাই ২০১৭

ইসলাম ধর্মের নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে ফেসবুকে অবমাননাকর পোস্টের অভিযোগে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়েছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে। রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পশ্চিমবঙ্গের বশিরহাটে দাঙ্গায় আহত এক ব্যক্তি বৃহস্পতিবার মারা গেছেন।

এনডিটিভি বলছে, কলকাতা শহর থেকে ৭০ কিলোমিটার দূরে বশিরহাটে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় আহত ৪৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। কলকাতার ওই হাসপাতালে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দাঙ্গায় আহত ওই ব্যক্তিকে দেখতে গিয়ে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি নেতা এমএস লকেট চ্যাটার্জি ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থকদের ধাওয়ার শিকার হয়েছিলেন।

গত সোমবার বশিরহাটের এক যুবক ফেসবুকে হযরত মুহাম্মদ (সা.) কে নিয়ে আপত্তিকর একটি পোস্ট দেয়ার পর সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। মঙ্গলবারও দফায় রাজ্যের বাদুরিয়া, বশিরহাট, হাওড়া, স্বরূপনগর ও দেগঙ্গায় লোকজন সংঘর্ষে জড়ায়। রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু সড়ক অবরোধ করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ মোতায়েন করা হয়। রাজ্যের শান্তি ফিরিয়ে আনতে অতিরিক্ত ৪০০ বিএসএফ সদস্য মোতায়েন করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

তিন দিনে অন্তত ১৫টি পুলিশের গাড়িসহ বহু দোকানপাট ভাঙচুর করে পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এসপি ও এএসপিসহ আহত হয়েছেন অন্তত ২০ পুলিশ সদস্য।

সোমবার সন্ধ্যায় ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার অভিযোগে শৌভিক নামে এক যুবককে আটকের পর বাদুড়িয়া থানায় নেয় পুলিশ। গুজব ছড়িয়ে পড়ায় থানা ঘিরে ফেলে কয়েক হাজার মানুষ। এ সময় অভিযুক্তকে তাদের হাতে তুলে দেয়ার দাবি জানান। পরে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা করে। এলাকার ধর্মীয় নেতারা এসেও জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা করেন।

কিন্তু উত্তেজিত জনতা থানার সামনে পুলিশের তিনটি গাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। এর মধ্যে বসিরহাটের ত্রিমোহিণীতে কিছু দুর্বৃত্ত দোকানপাটে ভাঙচুর চালানো হয়। রাতে শৌভিকের বাড়ি পুড়িয়ে দেয় তারা। মঙ্গলবার সকাল থেকে পাল্টা প্রতিরোধে নামে আরেক দল। তারা ত্রিমোহিণী এলাকায় গাড়ির শো-রুম, দোকান, শপিং মলে ভাঙচুর চালায়। স্টেশন রোড, স্বরূপনগর, বাদুড়িয়ার কিছু দোকানে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। বসিরহাট চৌমাথার কাছে পুলিশের গাড়ি উল্টে দেয়া হয়। দা-তলোয়াড়-কুঠার নিয়ে শহরের বুকে ঘুরতে দেখা যায় দু’পক্ষের লোকজনকে।

টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ার তিনদিন পর বৃহস্পতিবার রাজ্যের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। রাজ্যের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, পশ্চিমবঙ্গের বাদুড়িয়া ও আশপাশের এলাকায় মানুষের জীবন স্বাভাবিক হয়েছে। বৃহস্পতিবার কোনো এলাকায় সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি।

‘দোকানপাট ও বাজার পুনরায় চালু হয়েছে। শহরের বাস সেবাও চালু হয়েছে। স্থানীয়রা তাদের বাড়ি-ঘর থেকে বেরিয়ে আসছেন।’

তবে রাজ্যে ইন্টারনেট সেবা এখনো বন্ধ রয়েছে। প্যারামিলিটারি ও পুলিশ সদস্যরা উত্তপ্ত এলাকায় টহল অব্যাহত রেখেছে। রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তা পিটিআইকে বলেন, সবকিছুই স্বাভাবিক হয়েছে। বাদুড়িয়াসহ বশিরহাট, ২৪ পরগনা ও আশপাশের এলাকার কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

এসআইএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :