রোহিঙ্গাদের নিয়ে সু চিকে গান্ধীর নাতনির খোলা চিঠি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:০৮ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭
রোহিঙ্গাদের নিয়ে সু চিকে গান্ধীর নাতনির খোলা চিঠি

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর নির্যাতনের ভয়াবহতা দেখে নড়েচড়ে বসেছে সারাবিশ্ব। জাতিসংঘসহ অনেক দেশ মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এই সহিংসতার নিন্দা জানিয়েছে।

অনেকেই আবার বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছে। এবার তাদের তালিকায় নাম লেখালেন ভারতের মহাত্মা গান্ধীর নাতনি স্টালওয়ার্ট ইলা গান্ধী। রোহিঙ্গা সমস্যা সমধানে গান্ধী ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের দাতাদের পক্ষ থেকে তিনি চিঠি লিখেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চিকে।

প্রিয় অং সান সু চি

আপনার দেশে রাখাইন রাজ্যের অবস্থা জানাতে গভীর উদ্বেগের সঙ্গে আপনাকে লিখছি।

আমরা আপনার মধ্যে মহাত্মা গান্ধীর মানবাধিকার সমুন্নত রাখা ও তার নেতৃত্বদানের গুণাবলিগুলো দেখেছি। এরপর ২০০৯ সালে যখন আপনি বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞার মধ্যে ছিলেন, তখন আপনাকে আমাদের সর্বোচ্চ পুরস্কার ‘ইন্টারন্যাশনাল মহাত্মা গান্ধী অ্যাওয়ার্ড ফর রিকনসিলেশন অ্যান্ড পিস’ অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করি।

আমরা এটাও জানি যে আপনি নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন এবং নোবেল বিজয়ী ডেসমন্ড টুটু এই অঞ্চলে যে সহিংসতা চলছে তার বিপক্ষে আপনাকে জনসমক্ষে প্রতিক্রিয়া জানাতে বলেছেন।

আমরা জানি যে, স্টেট কাউন্সিলর হিসেবে আপনার সীমাবদ্ধতা আছে, কিন্তু যখন গরিব ও বঞ্চিত মানুষের জন্য মানবিক সাহায্য গ্রহণ করা হচ্ছে না এবং তারা সেনাবাহিনীর আক্রমণ ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে, তখন চুপ থাকাটাও আপনার পদ সমর্থন করে না।

বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, হাজার হাজার মানুষকে ওই অঞ্চল থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে। এগুলোর সত্যতাকে অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। মিয়ানমার সরকারকে এই অঞ্চলের মানুষের সঙ্গে মানবিক ও সমবেদনাময় আচরণ করতে আপনার সর্বোচ্চ ক্ষমতা ও প্রভাবকে কাজে লাগানোর আহ্বান জানাচ্ছি। কারণ সরকারের এ ধরনের পদক্ষেপ মানুষকে শুধু শত্রু বানাবে।

আপনার গৌরবময় জীবন ও শান্তি বজায় রাখার জন্য আপনার বহু বছরের ত্যাগের কথা মাথায় রেখে আপনাকে অনুরোধ করব যেন আপনার পদক্ষেপের মাধ্যমে মিয়ানমার সরকার শিগগিরই আক্রমণ বন্ধ করে এবং সমঝোতা ও শান্তিপূর্ণ সমাধানের ব্যবস্থা করে।

বিনীত নিবেদক

গান্ধী ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের দাতাদের পক্ষ থেকে ইলা গান্ধী

এমআরএম/আইআই