ধর্ষণের আসল কারণ পর্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৪০ এএম, ২৪ এপ্রিল ২০১৮
সম্প্রতি ভারতে চার মাসের একটি শিশুকেও ধর্ষণের শিকার হতে হয়েছে

ভারতের মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভুপেন্দ্র সিং মনে করেন, রাষ্ট্রে ধর্ষণ বৃদ্ধির জন্য পর্নগ্রাফি দায়ী। এজন্য সব পর্নসাইট বন্ধের জন্য গত সোমবার তিনি লিখিতভাবে কেন্দ্রকে জানিয়েছেন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

মধ্য প্রদেশে বিজেপি সরকার ২৫টির মতো পর্নসাইট আগেই ব্লক করেছে। কিন্তু মন্ত্রী ভুপেন্দ্র মনে করেন এই পদক্ষেপ যথেষ্ট নয়। পর্নগ্রাফি পুরোপুরি নিষিদ্ধ করে দেয়া উচিৎ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণলায় গবেষণা চালিয়েছে বলেও জানানো হয়। তবে ওই গবেষণার বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

গবেষণায় বলা হয়, পর্নগ্রাফি শিশুদের উপর বিরুপ প্রভাব ফেলছে। এমনকি তরুণ-তরুণীরা সহজেই এসব সাইটগুলোতে ঢুকতে পারছে। এসব নিষিদ্ধ সাইটের সহজলভ্যতার ফল ধর্ষণ ও বিভিন্ন যৌন অপরাধ।

ভুপেন্দ্র বলেন, যদিও ২৫টি পর্নসাইট নিষিদ্ধ করা হয়েছে তারপরও এগুলোর উপর আমাদের সরাসরি নিয়ন্ত্রণ নেই। এজন্য সব পর্নসাইট নিষিদ্ধ করা এবং এ বিষয়ে কঠিন আইন প্রণয়নের জন্য আমরা কেন্দ্রীয় সরকারকে জানিয়েছি।

১২ বছর বা ১২ বছরের নিচে কোনো শিশুকে ধর্ষণের শাস্তি হবে মৃত্যুদণ্ড- নরেন্দ্র মোদি সরকার এমন আইন পাস করার সিদ্ধান্ত নেয়ায় তিনি মোদির ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, মধ্য প্রদেশ সরকার এ সংক্রান্ত একটি বিলে ২০১৭ সালের নভেম্বরে অনুমোদন দিয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রী এই প্রস্তাবটির উপসংহার টেনে একটি বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তবে সামাজিক গণসচেতনতা তৈরি ছাড়া শুধু কঠোর আইন প্রণয়ন করে এ সমস্যার সমাধান হবে না বলেও মনে করেন তিনি।

ভুপেনের এ বক্তব্য অনেকের নজর কেড়েছে। তার বক্তব্যের প্রশংসা করেছেন অনেকে। একজন মন্তব্য করেছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঠিকই বলেছেন। সাংসদ এমনকি লোকসভার সদস্যরা প্রকাশ্যে অনেকের সামনে পর্ন দেখেন। পর্নসাইট নিয়ন্ত্রণ করা আসলেই কঠিন।

সাম্প্রতিক সময়ে ভারতে ধর্ষণ মহামারী আকার ধারণ করেছে। পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ যে, চার মাসের একটি শিশুকেও ধর্ষণের শিকার হতে হয়েছে। অবশেষে ধর্ষণের বিরুদ্ধে ভারত সরকার নড়েচড়ে বসেছে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

এসআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :