২০২৫-এর চীনকে নিয়ে ভয় যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:০০ এএম, ২১ অক্টোবর ২০১৮

২০২৫ সালে এক মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে চীন। তারপরই বিশ্বজুড়ে জাল বিস্তার করবে বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল এই দেশটি। বছর তিনেক আগেই এই মহাপরিকল্পনা হাতে নেয় বেজিং। তাদের সেই মহাপরিকল্পনার নাম ‘মেড ইন চায়না : ২০২৫’। আর সেই মাস্টারপ্ল্যান নিয়ে রীতিমত চিন্তিত যুক্তরাষ্ট্র।

বর্তমানে চীনে তৈরি জিনিস সস্তায় মিললেও তার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। আর সেটা দ্রুত কাটিয়ে উঠতে চায় বেজিং। ‘মেড ইন চায়না : ২০২৫’ নামে এই পরিকল্পনা নিয়ে কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালে। চীনের সবচেয়ে বড় শক্তি হল এই ম্যানুফাকচারিং। আর তাকেই এবার কাজে লাগাবে দেশটি।

চীন এতদিন যেভাবে পণ্য তৈরি করে এসেছে, সেখানে একটা আমূল বিপ্লব ঘটাতে চাইছে। পরিকল্পনাটি তিন ধাপের। ২০২৫ সাল সেই পরিকল্পনার প্রথম ধাপ মাত্র। ২০২৫ সাল নাগাদ চীন যত পণ্য তৈরি করবে, তার সবকিছুর মান তারা বাড়াতে চায়।

এমন কিছু চীনা ব্র্যান্ড তারা তৈরি করতে চায়, যেগুলো কিনতে ঝাঁপিয়ে পড়বে গোটা বিশ্ব। পরিকল্পনার দ্বিতীয় ধাপে ২০৩৫ সাল নাগাদ চীনা সংস্থাগুলো বিশ্বের বাকি সব কোম্পানিকে প্রযুক্তিতে, পণ্য মানে এবং সুনামে ছাড়িয়ে যেতে চায়।

আর ২০৪৯ সালে, আধুনিক চীন যখন তার প্রতিষ্ঠার একশ বছর উদযাপন করবে, তখন তারা ম্যানুফ্যাকচারিং এ বিশ্বের এক নম্বর শক্তি হয়ে উঠতে চায়। এজন্য চীন দশটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ও চিহ্নিত করেছে। এর মধ্যে রয়েছে সেমিকন্ডাকটার চিপ, বিমান, রোবোটিক্স, ইলেকট্রিক কার, হাইস্পিড রেল এবং ওশান ইঞ্জিনিয়ারিং। এই পরিকল্পনা সফল করতে বেসরকারি সংস্থাগুলিকেও সাহায্য করছে চীনের সরকার। আর তাতেই চিন্তায় পড়েছে একমেরু বিশ্বের ‘মোড়ল’ হয়ে ওঠা যুক্তরাষ্ট্র।

এমবিআর/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :