বিনা ভোটেই নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য হচ্ছে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৫১ পিএম, ২৬ জুন ২০১৯

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ২০২১-২২ সালের জন্য অস্থায়ী সদস্য নির্বাচিত হতে যাচ্ছে ভারত। ভারতের দীর্ঘদিনের এই দাবিকে সমর্থন দিয়েছে এশিয়া- প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ৫৫টি দেশ। এর ফলে কার্যত ভোটাভুটি ছাড়াই জাতিসংঘের অস্থায়ী সদস্য পদ পেতে চলেছে ভারত।

জাতিসংঘে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি সৈয়দ আকবরউদ্দিন টুইট এক টুইট বার্তায় ওই ৫৫টি দেশের সমর্থনের তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, এশিয়া- প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলো ঐক্যবদ্ধভাবে দুই বছরের মেয়াদে নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবে ভারতের প্রার্থীতায় সমর্থন দিয়েছে।

এখন পর্যন্ত মোট ৭ বার নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য নির্বাচিত হয়েছে ভারত। ১৯৫০-৫১, ১৯৬৭-৬৮, ১৯৭২-৭৩, ১৯৭৭-৭৮, ১৯৮৪-৮৫, ১৯৯১-৯২ এবং ২০১১-১২ সালে। তবে এবারের আগে কোনোবারই বিনা ভোটে ভারত সদস্যপদ পায়নি। ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদে নতুন ৫ অস্থায়ী সদস্যের অর্ন্তভূক্তির জন্য আগামী বছরের জুন মাসে নির্বাচন হবে।

চলতি বছরের শুরুর দিকে ভারত জানিয়েছিল, জাতিসংঘের অধিকাংশ সদস্য দেশই নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী এবং অস্থায়ী সদস্যের সংখ্যাবৃদ্ধির পক্ষে রয়েছে।

এ ব্যাপারে এশিয়া- প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর উদাহরণ টেনে আকবরউদ্দিন বলেছিলেন, এই অঞ্চলের মোট ৫২টি দেশের জন্য নিরাপত্তা পরিষদে মাত্র ২টি অস্থায়ী আসন রয়েছে! অন্যদিকে, পশ্চিম ইউরোপের ২৫টি সদস্য রাষ্ট্রের জন্য বরাদ্দ ২টি আসন। এশিয়া- প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মোট জনসংখ্যা ৩০০ কোটি। এই বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রতিনিধিত্বের জন্য আসন সংখ্যা বাড়ানো প্রয়োজন।

প্রতি বছর ১৯৩ সদস্য বিশিষ্ট জাতিসংঘের সাধারণ সভা নিরাপত্তা পরিষদের জন্য ৫টি অস্থায়ী সদস্য দেশকে নির্বাচিত করে। নিরাপত্তা পরিষদের ৫ স্থায়ী সদস্য হল- চীন, ফ্রান্স, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। বাকি ১০টি অস্থায়ী সদস্য বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নির্বাচিত হয়।

এশিয়া ও আফ্রিকা মহাদেশ থেকে ৫টি, পূর্ব ইউরোপ থেকে একটি, লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চল থেকে ২টি এবং পশ্চিম ইউরোপ-সহ অন্য অঞ্চল থেকে ২টি রাষ্ট্র অস্থায়ী সদস্য নির্বাচিত হয়।

বর্তমানে নিরাপত্তা পরিষদে যে ১০টি অস্থায়ী সদস্য রাষ্ট্র আছে, তারা হল- বেলজিয়াম, কোঁতে দ্য ভয়ে, ডোমিনিকান রিপাবলিক, গিনি, জার্মানি, ইন্দোনেশিয়া, কুয়েত, পেরু, পোল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা।

সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

এসআইএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :