বিরল এক ক্যানসারে ভুগছিলেন অরুণ জেটলি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪০ এএম, ২৫ আগস্ট ২০১৯

দীর্ঘ রোগভোগের পর গতকাল শনিবার দুপুরে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ভারতের সাবেক কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। শুধু কিডনির সমস্যা নয়, বিগত দু’বছর ধরে বিরল এক ধরনের ক্যানসারে ভুগছিলেন বিজেপির প্রবীণ এই নেতা।

মৃত্যুর আগে বেশ কিছুদিন ধরেই নয়াদিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস (AIIMS) চিকিৎসাধীন ছিলেন অরুণ জেটলি। তিনি যে ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন মেডিকেলের পরিভাষায় তার নাম, সফট টিস্যু সারকোমা।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে বিরল এই ক্যানসারের চিকিৎসা করাতেই যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন সাবেক এই মন্ত্রী। ২০১৮ সালে তার কিডনি প্রতিস্থাপন করা হলেও তিনি ভুগছিলেন আরও কয়েক বছর আগে থেকেই। অবশেষে মারা গেলেন।

অরুণ জেটলির ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপসহ একাধিক রোগে আক্রান্ত ছিলেন। ওজন কমাতে চিকিৎসকের পরামর্শে ‘বেরিয়েট্রিক সার্জারি’ করাতে হয়েছিল তাকে। ডায়াবেটিসের কারণেই ওজন বাড়ছিল। তার মধ্যেই সফট টিস্যু সারকোমা ক্যানসারে আক্রান্ত হন বিজেপির সাবেক এই মুখাপাত্র।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, সারকোমা হলো বিরলতম গোষ্ঠীর এক ক্যানসার। যা আক্রমণ করে শরীরের বিভিন্ন টিস্যুকে। পেশী হতে পারে, রক্তনালী হতে পারে, নার্ভ-টেন্ডন কিংবা শরীরের ফ্যাট বা চর্বিও এর কবলে পড়তে পারে।

শরীরের বিভিন্ন গিরায় আক্রমণ করতে পারে বিরল এই ক্যানসার। সারকোমার নানা প্রকারভেদ রয়েছে। সফট টিস্যুতে সারকোমা হলেও, সফট টিস্যুতে বেড়ে ওঠা সব টিউমারই কিন্তু ক্যানসার নয়। এই সারকোমা শণাক্ত করাও খুব কঠিন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

সফট টিস্যু সারকোমার লক্ষণ :
এক. টিউমার স্নায়ু বা পেশীতে হলে, যন্ত্রণা অনুভূত হয়।
দুই. পাকস্থলীর আশপাশে কোথাও সারকোমা হলে পেটে ব্যথা অনুভূত হয়। পেট ভারী লাগে। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দেয়।
তিন. ফুসফুসের আশপাশে এই ক্যানসার হলে বুকে কফ জমে, শ্বাসকষ্ট হয়।
চার. শরীরের কোথাও অস্বাভাবিক গ্রোথ দেখলে সেটি যন্ত্রণাহীন হলেও ফেলে না-রেখে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

তবে কেন কিংবা কী কারণে বিরল এই ক্যানসার হয় সে বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা নেই বিশেষজ্ঞদেরও। তারা বলছেন, বয়স, জেনেটিক কন্ডিশন, অতীতে করা রেডিয়োথেরাপি বা কোনও রাসায়নিক থেকে সফট টিস্যু সারকোমায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এসএ/এমএস