ডায়াবেটিসে রক্তনালীর জটিলতায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৩৪ এএম, ১৪ নভেম্বর ২০১৯

>> ডায়াবেটিসে রক্তনালীর জটিলতায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত নারী

>> ডায়াবেটিস আক্রান্তের সংখ্যা আকাশচুম্বী : ২০৪০ সালে ছাড়িয়ে যাবে প্রায় ৬৩ কোটি

ডায়াবেটিসে রক্তনালীর জটিলতায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন নারীরা। আগামী দশকে এই পরিস্থিতির আরও বিস্তার ঘটার শঙ্কা রয়েছে। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস (১৪ নভেম্বর) উপলক্ষে ইউরোপীয় সোসাইটি অব কার্ডিওলজির প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এমন আশঙ্কার কথা তুলে ধরা হয়েছে।

ইউরোপীয় জার্নাল অব প্রিভেনটিভ কার্ডিওলজি জার্নালে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার প্রায় ১৫ বছর আগে রোগীরা কার্ডিও ভাসকুলার রোগে আক্রান্ত হন। এটাই ডায়াবেটিস আক্রান্তদের অসুস্থতা এবং মৃত্যুর প্রধান কারণ। নারীদের ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস এবং কার্ডিও ভাসকুলার রোগের মধ্যে প্রবল সম্পর্ক রয়েছে।

বিশ্বে ডায়াবেটিসে পুরুষের চেয়ে নারীদের মৃত্যুর হার বেশি। ডায়াবেটিসের কারণে বিশ্বে প্রত্যেক বছর ২১ লাখ নারী ও ১৮ লাখ পুরুষের প্রাণহানি ঘটে। নারী মৃত্যুর হার পুরুষদের চেয়ে বেশি কার্ডিও ভাসকুলারের উচ্চ ঝুঁকির কারণে।

কার্ডিওভাসকুলার রোগে আক্রান্তদের বেশিরভাগই করোনারি হার্ট ডিজিজে ভোগেন এবং এটি অত্যন্ত গুরুতর। যেসব নারী ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নন, তাদের চেয়ে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের করোনারি হার্ট ডিজিজে আক্রান্ত হয়ে প্রাণহানির ঝুঁকি ১ দশমিক ৮১ গুণ বেশি।

অন্যদিকে, যেসব পুরুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নন, তাদের চেয়ে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত পুরুষের করোনারি হার্ট ডিজিজে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি ১ দশমিক ৪৮ গুণ বেশি।

ইউরোপীয় জার্নাল অব প্রিভেনটিভ কার্ডিওলজির প্রতিবেদন বলছে, যেসব নারীর ডায়াবেটিস নেই, তাদের চেয়ে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি পাঁচ গুণ বেশি। বিপরীতে পুরুষদের মধ্যে যাদের ডায়াবেটিস নেই তাদের চেয়ে ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি দ্বিগুণ বেশি।

নারী এবং পুরুষের মাঝে ডায়াবেটিসের এসব পার্থক্যগুলো ব্যাখ্যা করার জন্য গবেষণা চলমান রয়েছে। নারীদের প্রায় একই ধাঁচের হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর উচ্চ হারের পেছনে অন্যতম সাধারণ একটি বিষয় হচ্ছে ডায়াবেটিস। তবে নারী এবং পুরুষ; উভয়ের স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনই ডায়াবেটিস প্রতিরোধের মূল ভিত্তি।

আমস্টারডাম ইউভার্সিটি মেডিক্যাল সেন্টারের অধ্যাপক জোলিন বিলেনস বলেন, আমরা সমাজে স্থূলতার প্রকোপের সঙ্গে ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা ভয়াবহভাবে বাড়তে দেখছি। আমরা জানি টাইপ-২ ডায়াবেটিস লাইফস্টাইলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি রোগ। তাই আমরা ভালো জীবন-যাপনের মাধ্যমে এই প্রকোপ ঠেকাতে পারি।

এসআইএস/জেআইএম