দখলকৃত ফিলিস্তিনে ইহুদি বসতি অবৈধ নয় : যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:০৫ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৯

ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর দখল করে ইসরায়েল যে বসতি স্থাপন করেছে তা অবৈধ নয় বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। নিজেদের অবস্থান বদলে ওয়াশিংটন বলছে, তারা এখন ওই অঞ্চলে ইসরায়েলের বসতিকে আন্তর্জাতিক আইনের অসঙ্গতি হিসেবে দেখছে না।

বিবিসির প্রতিবেদনে অনুযায়ী মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও স্থানীয় সময় গতকাল সোমবার বলেছেন, পশ্চিম তীর নিয়ে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের আলোচনা করার সুযোগ ছিল। এর মাধ্যমে ট্রাম্প প্রশাসন তার পূর্বসূরী ওবামা প্রশাসনের বিপরীতধর্মী অবস্থান নিলো।

দীর্ঘদিনের মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এমন ঘোষণা আসার পরপরই তাকে স্বাগত জানিয়েছে ইসরায়েল। তবে মার্কিন এই অবস্থানকে গোটা বিশ্বের স্থিতিশীলতা, নিরাপত্তা ও শান্তির ক্ষেত্রে বড় ধরনের হুমকি অভিহিত করে এর মাধ্যমে নানা ধরনের ঝুঁকি সৃষ্টি হবে বলে সতর্ক করেছেন ফিলিস্তিনের প্রধান মধ্যস্থতাকারী সায়েব এরাকাত।

পশ্চিম তীরে অবৈধভাবে ইহুদি বসতি স্থাপন করায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে ইসরায়েলের। ১৯৬৭ সালের ৫ থেকে ১০ জুন পর্যন্ত তৃতীয় আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের সময় তেল আবিব পশ্চিম তীর দখল করে নেয়। তারপর সেখানে তারা ইহুদি বসতি স্থাপন করা শুরু করে, যা আন্তর্জাতিক আইনের স্পষ্ট লঙ্ঘন।

সোমবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘সব ধরনের আইনি বিতর্ক পরীক্ষা-নিরিক্ষা করার পর যুক্তরাষ্ট্র এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে, পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের বেসামরিক বসতি স্থাপন কোনোভাবেই আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন নয়।’

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু তার বন্ধু মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এমন ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, এর মাধ্যমে একটি ‘ঐতিহাসিক ভুল শোধরানো হলো। তিনি বিশ্বের বাকি দেশগুলোকে যুক্তরাষ্ট্রের পথ অনুসরণ করে পশ্চিম তীরে ইসারায়েলি বসতি স্থাপনকে সমর্থন দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেম দখল করার পর প্রায় ১৪০টি বাড়ি নির্মাণ করা হয়। তাতে আনুমানিক ৬ লাখ ইহুদি বাস করছে। আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী যা অবৈধ। ফিলিস্তিনিরা ওই ভূখণ্ডকে ভবিষ্যতে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র বলে দাবি করে। তাই ইসরায়েল সেখানে বসতি স্থাপন করে পুরো জায়গাটিতে নিজেদের অবস্থান শক্ত করছে।

ফিলিস্তিনের প্রধান মধ্যস্থতাকারী সায়েব এরাকাত ট্রাম্প প্রশাসনের এমন ঘোষণা নিয়ে বলেন, ‘পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমসহ ফিলিস্তিনের দখল করা ভূখণ্ডে ইসরায়েলের ঔপনিবেশিক কায়দায় বসতি স্থাপন শুধু আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘনই নয় এর মাধ্যমে তারা যা করছে তা হলো যুদ্ধাপরাধ।’

এসএ/পিআর