বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনে ‘কিছু পরিবর্তনের’ আভাস অমিত শাহ’র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৩৭ এএম, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

ভারতের বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনে ‘কিছু পরিবর্তনের’ আভাস দিয়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। গত বৃহস্পতিবার রাতে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ নাগরিকত্ব বিলে স্বাক্ষরের পর তা আইনে পরিণত হয়। এরপর থেকেই ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছে। অপরদিকে, গত দু'দিন ধরে উত্তাল হয়ে উঠেছে পশ্চিমবঙ্গও।

দেশের বিভিন্ন স্থান উত্তাল হয়ে ওঠার পরই নাগরিকত্ব আইনে ‘কিছু পরিবর্তন’ আনার ঘোষণা দিলেন অমিত শাহ। এক বিবৃতিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তিনি আসাম এবং উত্তর-পূর্বের বিভিন্ন রাজ্যের মানুষকে এই নিশ্চয়তা দিতে চান যে, নতুন এই আইনে তাদের সংস্কৃতি, ভাষা, সামাজিক পরিচয় এবং রাজনৈতিক অধিকারে কোনো ধরনের প্রভাব পড়বে না।

চলতি সপ্তাহে পার্লামেন্টে এই বিলের অনুমোদনের পর থেকেই উত্তর-পূর্ব ভারতের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ শুরু হয়। এই বিলের কারণে ভারতের অমুসলিমরা সুযোগ-সুবিধা পাবেন বলে বিতর্ক চলছে। কারণ এই আইনের মাধ্যমে প্রতিবেশী বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের অমুসলিম সংখ্যালঘুদের ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়া আরও সহজ হবে। অপরদিকে এই আইন নিয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন মুসলিমরা।

নাগরিকত্ব বিলটি ভারতীয় সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভায় পাস হওয়ার পরে আসামেই প্রথম বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এর মাধ্যমে দেশটির মুসলিম সম্প্রদায়কে দেশ থেকে বিতাড়িত করার যে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এছাড়াও এতে ধর্মনিরপেক্ষতা হুমকির মুখে পড়ার উদ্বেগেও রয়েছেন সেখানকার মানুষ।

বিক্ষোভকারীদের আশঙ্কা নতুন এই আইনের ফলে বহিরাগতদের চাপে স্থানীয় আদিবাসী জনগোষ্ঠীর জাতিগত ও সাংস্কৃতিক পরিচয় বিলীন হয়ে যাবে। আসামে এই উত্তেজনার অন্যতম কারণ হলো উত্তরপূর্বের এই রাজ্যটি ভারতের অন্যতম জটিল ও বহুজাতির আবাসস্থল।

শনিবার ঝাড়খন্ডের গিরিদিহে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রেসিডেন্ট এবং দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে সাধারণ নাগরিকদের নিরাপত্তার দায়িত্ব সরকারের। তিনি আরও জানিয়েছেন, শুক্রবার মেঘালয়ার মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সংমা এবং ওই রাজ্যের মন্ত্রিসভার মন্ত্রীরা তার সঙ্গে দেখা করেছেন। তারা নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আলোচনা করেছেন।

অমিত শাহ বলেন, তারা বলছেন মেঘালয়ে সমস্যা হচ্ছে। আমি তাদের এটা বোঝানোর চেষ্টা করেছি যে, এখানে কোনো ইস্যু নেই। তবে তারা আমার কাছে আবেদন জানিয়েছেন কিছু পরিবর্তন আনতে। তিনি বলেন, আমি মুখ্যমন্ত্রীকে বলেছি যে, বড়দিনের পর তিনি যেদিন ইচ্ছা আমার সঙ্গে দেখা করতে পারেন। আমরা মেঘালয়ার বিষয়ে গঠনমূলক কোনো সমাধানের চিন্তা করব। কারো এ বিষয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই বলেও আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

টিটিএন/পিআর