প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মিশুস্তিনকে রাশিয়ার ক্ষমতাসীন দলের অনুমোদন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৫৫ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২০

সংসদে চূড়ান্ত ভোটাভুটির আগে রাশিয়ার ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ইউনাইটেড রাশিয়া দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মিখাইল মিশুস্তিনকে সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদন দিয়েছে। একই সঙ্গে দেশটির সংসদের নতুন স্পিকার হিসেবে আনাস্তাসিয়া কাশেভারোভার প্রার্থীতায় অনুমোদন দিয়েছে দলটি।

বৃহস্পতিবার সংসদের স্পিকারের একজন রাজনৈতিক সহযোগী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছেন বলে খবর দিয়েছে রয়টার্স।

রাশিয়ার সংসদের নিম্নকক্ষ স্টেট ডুমায় বৃহস্পতিবার আরও পরের দিকে প্রধানমন্ত্রী ও নতুন স্পিকারের বিষয়ে ভোটাভুটি হতে পারে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। সংসদের নিম্নকক্ষে দেশটির ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ইউনাইটেড রাশিয়ার সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে।

বুধবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দেশটির সংবিধানে সংশোধনী আনার প্রস্তাব করেন। সংবিধানে পরিবর্তন আনা হলে প্রেসিডেন্টের পদ ছাড়ার পরও ক্ষমতায় আসার সুযোগ পাবেন তিনি। সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাব দেয়ার পরপরই বুধবার রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ পুরো মন্ত্রিসভাকে নিয়ে পদত্যাগ করেন।

দিমিত্রি মেদভেদের পদত্যাগের পর নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশটির কর বিভাগের প্রধান মিখাইল মিশুস্তিনের নাম ঘোষণা করেন পুতিন। ৫৩ বছর বয়সী মিশুস্তিন ১৯৯৯ সাল থেকে সরকারে কাজ করে আসছেন এবং ২০১০ সাল থেকে ফেডারেল ট্যাক্স সার্ভিসের প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।

পুতিন বলেছেন, রাশিয়ায় বড় ধরনের সাংবিধানিক পরিবর্তনের প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পদের নির্বাচনে পার্লামেন্টকে ক্ষমতা দেয়ার প্রস্তাব দেন তিনি। দেশের সাংবিধানিক পরিবর্তনের জন্য গণভোটেরও প্রস্তাব দেন।

ভোটের নির্দিষ্ট কোনও দিনক্ষণ ঘোষণা না করে পুতিন বলেন, সংবিধানের আমূল পরিবর্তনে দেশের মানুষের মধ্যে ভোট হওয়া প্রয়োজন বলে আমি মনে করছি।

রাশিয়ার সংবিধান অনুযায়ী, দেশটিতে কেউ দুই মেয়াদের বেশি প্রেসিডেন্ট থাকতে পারবেন না। ফলে ২০২৪ সালে মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পুতিন বর্তমান সংবিধানের অধীনে আর রাশিয়ার নেতা থাকতে পারবেন না। সমালোচকরা বলছেন, নিজের ক্ষমতায় ফেরার পথ পাকা করতেই সংবিধানে পরিবর্তন আনার প্রস্তাব দিয়েছেন পুতিন।

পুতিন ২০০৮ সাল পর্যন্ত রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট থাকার পর সংবিধান সংশোধন করে প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা বাড়িয়ে ওই বছর রুশ প্রধানমন্ত্রী হন। প্রেসিডেন্ট করেন দিমিত্রি মেদভেদেভকে। তারপর ২০১২ ও ২০১৮ সালে পুনরায় প্রেসিডেন্ট হন, মেয়াদ শেষ হবে ২০২৪ সালে।

এসআইএস/এমএস