ইমরান খানকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৪৩ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২০

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানাচ্ছে মোদি সরকার। সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের সম্মেলনে যোগ দিতে ইমরানকে এ আমন্ত্রণ জানানো হবে বলে জানিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। দেশটির বেশকিছু গণমাধ্যম বৃহস্পতিবার তাদের প্রতিবেদনে এ তথ্য দিয়েছে।

ভারতীয় দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের অনলাইন প্রতিবেদন অনুযায়ী, পাক প্রধানমন্ত্রীকে ভারত সফরে আসার আমন্ত্রণ প্রসঙ্গে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার বৃহস্পতিবার বলেন, ‘ভারতে অনুষ্ঠেয় আসন্ন সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের সম্মেলনে আটটি দেশ ও চার পর্যবেক্ষককে আমন্ত্রণ জানানো হবে।’

প্রসঙ্গত, গত আগস্টে ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করলে পাক-ভারত সম্পর্কে উত্তেজনা বাড়ে। ইমরান খান মোদি সরকারের এমন সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য দিতে শুরু করেন। বিষয়টি নিয়ে জাতিসংঘে আপত্তি তোলে ইমরানের সরকার।

শুধু জাতিসংঘে আপত্তি নয়, ভারতের জন্য আকাশসীমা বন্ধ, ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতীয় দূতকে বহিষ্কারসহ ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্ক অবনমন করে পাকিস্তান। এছাড়া সম্প্রতি ভারতের বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) নিয়েও বেশ সরব ইমরান খান। এরমধ্যে পাক প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের খবর তাৎপর্যপূর্ণ।

জম্মু-কশ্মীর ইস্যুতে এক সংবাদ সম্মেলনে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার বলেন, ‘জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যের (চীন) মাধ্যমে এই ইস্যুতে আপত্তি তুলেছে পাকিস্তান। নিরাপত্তা পরিষদ স্পষ্ট জানিয়েছে, কাশ্মীর নিয়ে আলোচনার জন্য সেটা উপযুক্ত স্থান নয়। দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা করা উচিত।’

অপরদিকে সম্প্রতি পাকিস্তানে একটি গুরুদুয়ারায় হামলার ঘটনাও দুই দেশের সম্পর্কে ফের উত্তেজনা তৈরি করে। হামলার পর তীব্র নিন্দা জানিয়ে সরব হন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ প্রসঙ্গে বিবৃতি দিয়ে জানায়, ‘পেশোয়ারে সংখ্যালঘু শিখ সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর হামলার ঘটনায় ভারত ধিক্কার জানাচ্ছে।’

গুরুদুয়ারায় ওই হামলার ঘটনার দুদিন পর পেশোয়ার শহরে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির হাতে খুন হন শিখ সম্প্রদায়ের এক তরুণ। সেই হত্যাকাণ্ড নিয়েও দুই দেশের মধ্যে কথা চালাচালি হয়। সব মিলিয়ে চলমান এসব ঘটনাপ্রবাহের মধ্যে পাক প্রধানমন্ত্রীকে ভারত সফর করার আমন্ত্রণ বেশ তাৎপর্যপূর্ণ হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

এসএ/পিআর