ভারত সফরে ‘দুর্দান্ত’ বাণিজ্য চুক্তি হতে পারে : ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:২৫ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ভারত-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে ফের আশার কথা শোনালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন ভারত সফরের সময় দুই দেশের মধ্যে একটি ‘দুর্দান্ত’ বাণিজ্য চুক্তির ইঙ্গিত দিয়ে ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমরা ভারতে যাচ্ছি, সেখানে একটি দুর্দান্ত চুক্তি হতে পারে।’ খবর ভারতীয় টেলিভিশন এনডিটিভির।

লাস ভেগাসের ‘হোপ ফর প্রিজনারস গ্র্যাজুয়েশন’ অনুষ্ঠানে দেয়া ভাষণে এমনটাই বলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প এবং মেয়ে-জামাতা ইভাঙ্কা ট্রাম্প ও জেরাড কুশনারকে নিয়ে দুই দিনের ভারত সফর করবেন তিনি। অবস্থান করবেন গুজরাটের আহমেদাবাদ এবং নয়া দিল্লিতে।

ভারত-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য চুক্তির সূচনা হিসেবে একটি বাণিজ্য প্যাকেজের বিষয়ে একমত হওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে দুই দেশের মধ্যে। এই বাণিজ্য চুক্তি প্রসঙ্গে ট্রাম্প ইঙ্গিত দিয়েছেন, তিনি যদি একটা ভাল চুক্তি না করতে পারেন তবে ভারত-মার্কিন বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে যাবতীয় উৎসাহ কমে যেতে পারে। তাই এই চুক্তি নিয়ে ভাবতেই হবে।

তিনি বলেন, ‘তবে সম্ভবত আমরা ধীরে চলার নীতি নিয়েই আপাতত পদক্ষেপ গ্রহণ করবো। সম্ভবত নির্বাচনের পর এই চুক্তিটি করবো আমরা। আমি মনে করি, সেই সময়েই এই চুক্তি করা ভালো। তবে এই ভারত সফরেও কিছু হতে পারে। তাই, আমরা কী করবো তা ভেবে দেখছি।’

ট্রাম্প আরও বলেন, ‘তবে আমরা কেবল তখনই চুক্তি করবো, যখন আমরা দেখবো যে এটা ভাল চুক্তি হতে চলেছে। যুক্তরাষ্ট্র বেশ কিছু সুবিধা পাচ্ছে। কারণ আমরা প্রথমে নিজেদের কথাই ভাববো। মানুষ এটা পছন্দ করুক বা না করুক আমরা দেশের স্বার্থই সবার আগে সংরক্ষণের বিষয়টি মাথায় রাখতে চাই।’

এর আগে তিনি বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে ভারতের একটি বাণিজ্য চুক্তি হতে পারে। কিন্তু আমি এই চুক্তিকে পরবর্তী সময়ের জন্য বাঁচিয়ে রাখছি। এটা খুবই বড় একটা চুক্তি হতে চলেছে। কিন্তু এই চুক্তি এখনই হবে না। আমি জানি না, মার্কিন নির্বাচনের আগে এই চুক্তি হবে কিনা। কিন্তু এটা ভারতের সঙ্গে খুব বড় চুক্তি হতে চলেছে।’

বর্তমানে ভারত-মার্কিন বাণিজ্য যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ব বাণিজ্যের প্রায় তিন শতাংশ। একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে, কংগ্রেসনাল রিসার্চ সার্ভিস (সিআরএস) বলেছে, ‘ট্রাম্প প্রশাসন ভারতের সঙ্গে মার্কিন বাণিজ্য ঘাটতির বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করেছে এবং একাধিক ‘অন্যায্য’ বাণিজ্য ব্যবসায়ের জন্য ভারতের সমালোচনা করেছে।’

এসএ/পিআর