করোনা মোকাবিলায় শার্লক হোমসের পদাঙ্ক অনুসরণ করে সফল চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:০২ পিএম, ০৩ মে ২০২০

স্কটিশ লেখক ও চিকিৎসক স্যার আর্থার কোনান ডয়েলের ঊনিশ শতকের শেষ ও বিশ শতকের প্রথম ভাগের কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র শার্লক হোমসের পদাঙ্ক অনুসরণ করে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সফল হয়েছে চীন। রোববার করোনার এই লড়াইয়ে চীনের সফলতার গল্প তুলে ধরেছে হংকংভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

চীনে যখন এই ভাইরাসের বিস্তার প্রচণ্ড রকমে ছড়িয়ে পড়ে, তখন দেশটির মহামারি বিশেষজ্ঞ গং জিয়াওহুনান আধুনিক যুগের শার্লক হোমসের মতো অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে ভাইরাস শিকারি বনে যান। এক মাসের বেশি সময় ধরে ৩২ বছর বয়সী এই ভাইরাস শিকারি সাংহাই শহরের শত শত করোনা রোগীকে শনাক্ত এবং খুঁজে বের করেন।

একজনকে খুঁজে বের করার পর তিনি আর কার কার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এসেছেন, তারা কাদের সঙ্গে মিশেছেন, তাদের স্বজনরা কাদের সঙ্গে মিশেছেন সেসব শনাক্ত করেন এবং আলাদা করে ফেলেন। চীনের পূর্বাঞ্চলের মেট্রোপলিটন নগরী সাংহাইয়ে করোনার বিস্তার রোধে আধুনিক যুগের শার্লক হোমস গং জিয়াওহুনানের অবদান বেশি।

গং বলেন, কোনো ব্যক্তি করোনা পজিটিভ অথবা সন্দেহভাজন হলেই আমরা তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তাদের কাছে জানতে চেয়েছি- তারা কি করেছে, কোথায় গিয়েছে, গত ১৪ দিন কাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছে। এসবের মাধ্যমে একটি সামগ্রিক চিত্র আমরা পেতাম। আমাদের এই কাজটা ছিল একেবারে পুলিশি তদন্তের মতো। আমরা অত্যন্ত ধৈর্য এবং যত্নের সঙ্গে এসব কাজ করেছি।

করোনা মহামারির আগে গং সাংহাই সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের মহামারি জরিপকারী কর্মকর্তার দায়িত্বে ছিলেন। অভ্যন্তরীণ সংক্রমণ শনাক্ত এবং নজরদারির কাজ করতেন তিনি। জানুয়ারিতে প্রথম একজন করোনা আক্রান্ত ৫০ বছর বয়সী নারীর তদন্তের দায়িত্ব পান তিনি। এই নারী হুবেই প্রদেশের উহান থেকে সাংহাইয়ে এসেছিলেন। উহানেই গত বছরের ডিসেম্বর করোনার প্রথম রোগী শনাক্ত হন।

শরীর খারাপ হওয়ার পর ওই নারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই নারী তখনও করোনা পজিটিভ হননি। সন্দেহভাজন করোনা রোগী হিসাবে ধরে নিয়ে গং হাসপাতালের শয্যায় তাকে বিভিন্ন বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরে জানা যায়, এই নারী করোনাভাইরাস সংক্রমিত।

গং বলেন, ওই সময় আমরা নভেল করোনাভাইরাস সম্পর্কে খুব সামান্য জানতাম। তবে গত ৩১ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো সিডিসির সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সম্ভাব্য একটি মহামারির ব্যাপারে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। যে কারণে আমাদের জানা দরকার ছিল, ওই নারী কিভাবে সাংহাইয়ে এলেন, কাদের সংস্পর্শে এসেছেন।

চীনা এই বিশেষজ্ঞ বলেন, মহামারিবিষয়ক জরিপের প্রথম লক্ষ্যই হলো সন্দেহভাজন রোগী শনাক্ত করা। এই রোগীদের শনাক্ত করতে পারলেই সংক্রমণ রোধ করা সম্ভব। এছাড়া যারা ইতোমধ্যে সংক্রমিত হয়েছেন, তাদের শনাক্ত করতে হবে, আইসোলেট করে চিকিৎসা দিতে হবে; যাতে বিস্তার ঠেকানো যায়।

সাংহাই সিডিসির পরিসংখ্যান বলছে, সাংহাইয়ের ৩৩০ জন রোগীর এক তৃতীয়াংশই অন্য রোগীদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসার পরই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই আক্রান্তদের মধ্যে করোনা পজিটিভ ৮০ জনের ব্যাপারে নিখুঁত তদন্ত করেছেন গং। তাদের প্রত্যেকজনের তদন্তে গং ব্যয় করেছেন দুই থেকে ১০ ঘণ্টা পর্যন্ত। এছাড়া কিছু কিছু তদন্তে সময় লেগেছে তারও বেশি।

তিনি বলেন, এই কাজে অধিকাংশ রোগীই সহযোগিতা করেছেন। তবে ব্যক্তিগত গোপনীয়তার কারণে অল্পসংখ্যক রোগী তথ্য দিয়ে সহায়তা করতে দ্বিধা করেছিলেন। কিন্তু আমি তাদের বলেছিলাম, এই কাজে সহযোগিতা করতে তারা বাধ্য। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গং বলেন, অন্যান্য ভালো অনুসন্ধানের মতো তিনি রোগীদের মুখোমুখি হয়ে নিখুঁত তথ্য নিয়েছেন। অনেক সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করেছেন। পরে এসব তথ্যের সত্যতাও যাচাই করে নিশ্চিত হয়েছেন।

তবে এক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জিং কিছু বিষয়ও রয়েছে বলে জানান গং। তিনি বলেন, অনেকেই গত ১৪ দিন ধরে কোথায় গিয়েছেন, কাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন, সেগুলো সঠিকভাবে মনে করতে পারেন না। দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে সাংহাই সিডিসিতে কর্মরত অভিজ্ঞ এই কর্মকর্তা ধৈর্যের সঙ্গে রোগী অথবা সন্দেহভাজনদের পর্যাপ্ত সময় দিয়ে ধীরে ধীরে সব জেনে নিতেন।

সিডিসির এই কর্মকর্তা বলেন, একেবারে যারা বয়স্ক অথবা যারা গুরুতর অসুস্থ আমি তাদের সন্তান, স্বামী অথবা স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তবে সব সময় যে সঠিক তথ্য পেতেন বিষয়টি তেমন নয়। গং বলেন, এজন্য তিনি এবং তার সহকর্মীরা একজনের তথ্য জানতে কয়েকদিন পর্যন্ত ব্যয় করেছেন।

ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে সাংহাইয়ে দুজন রোগী পাওয়া যায়। যারা উহানে যাননি। তারপরও তারা করোনায় সংক্রমিত। এই দুই রোগীর তদন্তের ভার আসেন গংয়ের ওপর। তিনি তদন্তে নেমে জানতে পারেন, এই দুই ব্যক্তি অপর একজনের সঙ্গে একদিন খাবার খেয়েছিলেন। আর ওই ব্যক্তি এসেছিলেন চীনের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের আনহুই প্রদেশ থেকে; যিনি পরবর্তীতে করোনা সংক্রমিত হন।

এমন আরেকটি ঘটনা ঘটে ৭০ বছর বয়সী এক নারীর সঙ্গে; যিনি করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি একা বসবাস করতেন। কখনও সাংহাইয়ের বাইরে যাননি। টানা ১০ দিনের তদন্ত শেষে গং জানতে পারেন, এই নারী সম্প্রতি সরকারি একটি অফিসে গিয়েছিলেন। সেখানেই করোনা সংক্রমিত এক ব্যক্তির মাধ্যমে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি।

ভাইরাস শিকারি গংয়ের এটা ছিল আরেক সাফল্য। বিখ্যাত কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র শার্লক হোমসের নিখুঁত অভিযানের পথ অবলম্বন করে সাংহাইয়ের বেকার স্ট্রিটের শার্লক হোমস হয়ে ওঠেন দেশটির মহামারি বিশেষজ্ঞ গং জিয়াওহুনান।

৩২ বছর বয়সী এই নারী বলেন, এই চাকরিতে ধৈর্য দরকার। কারণ প্রত্যেকটি তথ্যের নিখুঁত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হয়। সাংহাইয়ের ফুদান বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব পাবলিক হেলথের অধ্যাপক হু শ্যানলিয়ান বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করার জন্য মহামারি জরিপ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটাতে অত্যন্ত শ্রম এবং সময় দিতে হয়। কিন্তু ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এসবই প্রথম শর্ত।

রোগীদের পরিবারের সদস্যদের ভালো সংবাদ পাওয়াটাই এই কাজের প্রধান আত্মতৃপ্তি বলে মন্তব্য করেন গং। তিনি বলেন, তাদের অনেকেই আমাকে বলতেন যে, আমাদের এমন কাজে তারা স্বস্তি বোধ করছেন। তাদের এই কথাটুকুই আমাকে আমার মিশনের গতি বাড়িয়ে দিতো। এই কাজে আমি গর্ববোধ করতাম।

এসআইএস/এমএস

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

৫,৯৫,১৫,৭১২
আক্রান্ত

১৪,০২,০৩২
মৃত

৪,১১,৫৭,২৮৭
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ৪,৪৯,৭৬০ ৬,৪১৬ ৩,৬৪,৬১১
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১,২৭,৭৭,১৭৪ ২,৬৩,৬৮৭ ৭৫,৪৮,৯৪০
ভারত ৯১,৭৭,৮৪০ ১,৩৪,২৫৪ ৮৬,০৪,৯৫৫
ব্রাজিল ৬০,৮৮,০০৪ ১,৬৯,৫৪১ ৫৪,৪৫,০৯৫
ফ্রান্স ২১,৪৪,৬৬০ ৪৯,২৩২ ১,৫২,৫৯২
রাশিয়া ২১,১৪,৫০২ ৩৬,৫৪০ ১৬,১১,৪৪৫
স্পেন ১৬,০৬,৯০৫ ৪৩,১৩১ ১,৯৬,৯৫৮
যুক্তরাজ্য ১৫,২৭,৪৯৫ ৫৫,২৩০ ৩৪৪
ইতালি ১৪,৩১,৭৯৫ ৫০,৪৫৩ ৫,৮৪,৪৯৩
১০ আর্জেন্টিনা ১৩,৭৪,৬৩১ ৩৭,১২২ ১২,০৩,৮০০
১১ কলম্বিয়া ১২,৫৪,৯৭৯ ৩৫,৪৭৯ ১১,৫৮,৮৯৭
১২ মেক্সিকো ১০,৪৯,৩৫৮ ১,০১,৯২৬ ৭,৮৪,৬৯৩
১৩ পেরু ৯,৫০,৫৫৭ ৩৫,৬৪১ ৮,৮০,৬৪৫
১৪ জার্মানি ৯,৪৬,৬৪৮ ১৪,৫৮৩ ৬,১৮,৮০০
১৫ পোল্যান্ড ৮,৭৬,৩৩৩ ১৩,৭৭৪ ৪,৩৮,৮৬৮
১৬ ইরান ৮,৬৬,৮২১ ৪৫,২৫৫ ৬,১০,৪০৬
১৭ দক্ষিণ আফ্রিকা ৭,৬৯,৭৫৯ ২০,৯৬৮ ৭,১১,১৯৫
১৮ ইউক্রেন ৬,৩৫,৬৮৯ ১১,০৭৫ ২,৯১,০৬০
১৯ বেলজিয়াম ৫,৫৯,৯০২ ১৫,৭৫৫ ৩৬,০৪৪
২০ চিলি ৫,৪২,০৮০ ১৫,১০৬ ৫,১৭,৫২৪
২১ ইরাক ৫,৩৭,৪৫৭ ১১,৯৯৬ ৪,৬৭,৬৫৪
২২ ইন্দোনেশিয়া ৫,০২,১১০ ১৬,০০২ ৪,২২,৩৮৬
২৩ চেক প্রজাতন্ত্র ৪,৯৬,৬৩৮ ৭,৩৬০ ৪,০৫,৯৮২
২৪ নেদারল্যান্ডস ৪,৮৯,৮১৮ ৮,৯৪৫ ২৫০
২৫ তুরস্ক ৪,৫৩,৫৩৫ ১২,৫১১ ৩,৭৭,৮৯১
২৬ রোমানিয়া ৪,২২,৮৫২ ১০,১৭৭ ২,৯৬,৮৪৪
২৭ ফিলিপাইন ৪,২০,৬১৪ ৮,১৭৩ ৩,৮৬,৬০৪
২৮ পাকিস্তান ৩,৭৯,৮৮৩ ৭,৭৪৪ ৩,৩১,৭৬০
২৯ সৌদি আরব ৩,৫৫,৪৮৯ ৫,৭৯৬ ৩,৪৩,৮১৬
৩০ কানাডা ৩,৩৭,৫৫৫ ১১,৫২১ ২,৬৯,২০২
৩১ ইসরায়েল ৩,৩০,৩৩০ ২,৮১১ ৩,১৮,৭২৮
৩২ মরক্কো ৩,২৭,৫২৮ ৫,৩৯৬ ২,৭৫,১৫৮
৩৩ সুইজারল্যান্ড ৩,০০,৩৫২ ৪,২২২ ২,০৬,৭০০
৩৪ পর্তুগাল ২,৬৪,৮০২ ৩,৯৭১ ১,৭৬,৮২৭
৩৫ অস্ট্রিয়া ২,৫০,৩৩৩ ২,৪৫৯ ১,৭৫,৫২৭
৩৬ নেপাল ২,২২,২৮৮ ১,৩৩৭ ২,০২,০৬৭
৩৭ সুইডেন ২,০৮,২৯৫ ৬,৪০৬ ৪,৯৭১
৩৮ জর্ডান ১,৮৮,৪১০ ২,৩০২ ১,২০,০১৪
৩৯ ইকুয়েডর ১,৮৫,৯৪৪ ১৩,২২৫ ১,৬৪,০০৯
৪০ হাঙ্গেরি ১,৭৭,৯৫২ ৩,৮৯১ ৪৩,৩৩৯
৪১ সংযুক্ত আরব আমিরাত ১,৬০,০৫৫ ৫৫৪ ১,৪৯,৫৭৮
৪২ পানামা ১,৫৫,৬৫৮ ২,৯৭৩ ১,৩৭,০০৪
৪৩ বলিভিয়া ১,৪৪,০৩৪ ৮,৯১৬ ১,১৯,৫৪৮
৪৪ কুয়েত ১,৪০,৩৯৩ ৮৬৮ ১,৩২,৮৪৮
৪৫ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ১,৩৮,৮২৯ ২,৩১১ ১,১২,৮৮২
৪৬ কাতার ১,৩৭,৪১৫ ২৩৬ ১,৩৪,৪৮৬
৪৭ জাপান ১,৩২,৩৫৮ ১,৯৮১ ১,১২,২৬৯
৪৮ কোস্টারিকা ১,৩২,২৯৫ ১,৬৪১ ৮১,৩৩৬
৪৯ আর্মেনিয়া ১,২৬,৭০৯ ১,৯৭৬ ৯৫,০৯৯
৫০ সার্বিয়া ১,২৬,১৮৭ ১,২৩৭ ৩১,৫৩৬
৫১ কাজাখস্তান ১,২৬,১৮২ ১,৯৪৫ ১,১২,৮০৬
৫২ বেলারুশ ১,২৫,৪৮২ ১,১০৪ ১,০৪,৬৯৮
৫৩ বুলগেরিয়া ১,২৪,৯৬৬ ৩,০৬৯ ৩৮,২২৬
৫৪ ওমান ১,২২,৩৫৬ ১,৩৮৬ ১,১৩,৫৭৭
৫৫ গুয়াতেমালা ১,১৮,৭২২ ৪,০৯২ ১,০৭,৮১৯
৫৬ লেবানন ১,১৭,৫১৭ ৯১১ ৬৯,০৭৯
৫৭ মিসর ১,১৩,৩৮১ ৬,৫৬০ ১,০১,৯৮১
৫৮ জর্জিয়া ১,০৮,৬৯০ ১,০১২ ৮৯,১৭০
৫৯ ইথিওপিয়া ১,০৬,২০৩ ১,৬৫১ ৬৫,৮৩৯
৬০ ক্রোয়েশিয়া ১,০৫,৬৯১ ১,৩৯৮ ৮৫,০১৮
৬১ হন্ডুরাস ১,০৫,২১১ ২,৮৬৯ ৪৬,৬১৬
৬২ ভেনেজুয়েলা ১,০০,১৪৩ ৮৭৩ ৯৪,৯৮৫
৬৩ মলদোভা ৯৮,৪১৮ ২,১৬৯ ৮০,৮৮২
৬৪ স্লোভাকিয়া ৯৬,৪৭২ ৬৯৩ ৪৭,৯৩৩
৬৫ আজারবাইজান ৯৫,২৮১ ১,১৬০ ৬৪,৪৭৫
৬৬ গ্রীস ৯৩,০০৬ ১,৭১৪ ৯,৯৮৯
৬৭ তিউনিশিয়া ৮৯,১৯৬ ২,৮৬২ ৬৩,৮৪৬
৬৮ চীন ৮৬,৪৬৪ ৪,৬৩৪ ৮১,৫০৮
৬৯ বাহরাইন ৮৫,৮৮৬ ৩৩৯ ৮৪,০১৭
৭০ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ৮০,৫৫৩ ২,৩৪২ ৪৫,৭৬০
৭১ মায়ানমার ৮০,৫০৫ ১,৭৬৫ ৫৯,৮৮৮
৭২ লিবিয়া ৭৮,৪৭৩ ১,১০২ ৪৯,৫৯২
৭৩ কেনিয়া ৭৭,৭৮৫ ১,৩৯২ ৫১,৯০৩
৭৪ প্যারাগুয়ে ৭৭,০৭২ ১,৬৬৫ ৫৫,০৪৬
৭৫ আলজেরিয়া ৭৫,৮৬৭ ২,২৯৪ ৪৯,৪২১
৭৬ ফিলিস্তিন ৭৩,১৯৬ ৬৪৫ ৫৯,৫৩৮
৭৭ উজবেকিস্তান ৭১,৮৪৭ ৬০৪ ৬৯,১১৮
৭৮ ডেনমার্ক ৭১,৬৫৪ ৭৮৯ ৫৬,০৩২
৭৯ আয়ারল্যান্ড ৭০,৭১১ ২,০২৩ ২৩,৩৬৪
৮০ কিরগিজস্তান ৭০,৩৬৬ ১,৪৯৮ ৬১,৫৯৩
৮১ নাইজেরিয়া ৬৬,৪৩৯ ১,১৬৮ ৬২,২৪১
৮২ স্লোভেনিয়া ৬৫,৭৭৮ ১,০৯৭ ৪৪,৫৫৮
৮৩ সিঙ্গাপুর ৫৮,১৬৫ ২৮ ৫৮,০৭১
৮৪ মালয়েশিয়া ৫৬,৬৫৯ ৩৩৭ ৪২,৪৮০
৮৫ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ৫৫,১২৭ ১,৫৪৬ ৩২,৮৯৪
৮৬ ঘানা ৫০,৯৪১ ৩২৩ ৪৯,৫৯৯
৮৭ লিথুনিয়া ৪৮,২২৬ ৩৯২ ১১,০৩২
৮৮ আফগানিস্তান ৪৪,৯৮৮ ১,৬৯৫ ৩৫,৯৭৬
৮৯ এল সালভাদর ৩৭,৫৬২ ১,০৮১ ৩৪,২৯৭
৯০ আলবেনিয়া ৩৩,৫৫৬ ৭১৬ ১৬,২৩০
৯১ নরওয়ে ৩৩,১৮৩ ৩১১ ২০,৯৫৬
৯২ মন্টিনিগ্রো ৩১,৬১৮ ৪৪৪ ২০,০৩১
৯৩ দক্ষিণ কোরিয়া ৩১,৩৫৩ ৫১০ ২৬,৭২২
৯৪ লুক্সেমবার্গ ৩১,১১১ ২৭৩ ২২,০০৪
৯৫ অস্ট্রেলিয়া ২৭,৮৪৩ ৯০৭ ২৫,৫৩৩
৯৬ ক্যামেরুন ২৩,৮৪২ ৪৩৫ ২২,১৭৭
৯৭ ফিনল্যাণ্ড ২১,৯৩৬ ৩৮৪ ১৫,৩০০
৯৮ আইভরি কোস্ট ২১,১৪৮ ১৩১ ২০,৮১৯
৯৯ শ্রীলংকা ২০,৫০৮ ৯০ ১৪,৪৯৭
১০০ উগান্ডা ১৮,১৬৫ ১৮১ ৮,৬৭৫
১০১ জাম্বিয়া ১৭,৪৫৪ ৩৫৭ ১৬,৭০১
১০২ মাদাগাস্কার ১৭,৩৪১ ২৫১ ১৬,৬৫৭
১০৩ সুদান ১৬,০৫২ ১,১৯৭ ৯,৭৩৭
১০৪ সেনেগাল ১৫,৮৯৭ ৩৩০ ১৫,৫১৬
১০৫ মোজাম্বিক ১৫,১০৯ ১২৬ ১৩,২২৯
১০৬ অ্যাঙ্গোলা ১৪,৬৩৪ ৩৩৭ ৭,৩৫১
১০৭ নামিবিয়া ১৩,৮৯৭ ১৪৫ ১৩,২৩৪
১০৮ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৩,২৮৬ ৬৮ ৪,৮৪২
১০৯ লাটভিয়া ১৩,২৩৬ ১৬২ ১,৬৩৫
১১০ গিনি ১২,৮৪১ ৭৫ ১১,৮৫৩
১১১ মালদ্বীপ ১২,৭৫৮ ৪৬ ১১,৬১৫
১১২ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ১২,২৭৮ ৩২৯ ১১,৩৮৬
১১৩ তাজিকিস্তান ১১,৯৩২ ৮৬ ১১,৩১২
১১৪ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ১১,০৪২ ৭০ ৯,৯৯৫
১১৫ জ্যামাইকা ১০,৩৪৩ ২৩৯ ৫,৫১৮
১১৬ কেপ ভার্দে ১০,৩০২ ১০৪ ৯,৭৯১
১১৭ বতসোয়ানা ৯,৯৯২ ৩১ ৭,৬৯২
১১৮ এস্তোনিয়া ৯,৯৫৬ ৯২ ৫,৭২০
১১৯ জিম্বাবুয়ে ৯,৩০৮ ২৭৩ ৮,২৮৮
১২০ হাইতি ৯,২২৪ ২৩২ ৭,৮৮৬
১২১ গ্যাবন ৯,১৫০ ৫৯ ৮,৯৯৯
১২২ মালটা ৯,০০৪ ১১৩ ৬,৮৩১
১২৩ সাইপ্রাস ৮,৯৪৭ ৪৪ ২,০৫৫
১২৪ গুয়াদেলৌপ ৮,২২৫ ১৪৪ ২,২৪২
১২৫ মৌরিতানিয়া ৮,১৬৭ ১৬৯ ৭,৬০৯
১২৬ কিউবা ৭,৮৭৯ ১৩২ ৭,৩৫৬
১২৭ রিইউনিয়ন ৭,৬৮৯ ৩৫ ৬,৬৬০
১২৮ বাহামা ৭,৪৩১ ১৬৩ ৫,৬৫২
১২৯ সিরিয়া ৭,২৯৫ ৩৮০ ৩,১৫৫
১৩০ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৬,৪৭৫ ১১৫ ৫,৬২২
১৩১ এনডোরা ৬,৩০৪ ৭৬ ৫,৪০৫
১৩২ ইসওয়াতিনি ৬,২৩৩ ১২০ ৫,৮৬৯
১৩৩ মালাউই ৬,০০৯ ১৮৫ ৫,৪৪৩
১৩৪ রুয়ান্ডা ৫,৭২৬ ৪৭ ৫,১৯৭
১৩৫ নিকারাগুয়া ৫,৭২৫ ১৫৯ ৪,২২৫
১৩৬ হংকং ৫,৭০২ ১০৮ ৫,২৬৭
১৩৭ জিবুতি ৫,৬৬৮ ৬১ ৫,৫৫৫
১৩৮ কঙ্গো ৫,৬৩২ ১১৪ ৪,৯৮৮
১৩৯ সুরিনাম ৫,২৯৭ ১১৬ ৫,১৭৩
১৪০ আইসল্যান্ড ৫,২৮৯ ২৬ ৫,০৬৫
১৪১ বেলিজ ৫,২৪৯ ১২০ ২,৮৭৭
১৪২ গায়ানা ৫,১৫৪ ১৪৬ ৪,০৩৪
১৪৩ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৫,১৩৭ ৮৫ ৫,০০৫
১৪৪ মায়োত্তে ৫,১২২ ৪৯ ২,৯৬৪
১৪৫ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৪,৯১১ ৬৩ ১,৯২৪
১৪৬ উরুগুয়ে ৪,৭৬৩ ৭১ ৩,৭৬৪
১৪৭ আরুবা ৪,৭৩৭ ৪৫ ৪,৬০৭
১৪৮ মার্টিনিক ৪,৭৩২ ৩৭ ৯৮
১৪৯ সোমালিয়া ৪,৪৪৫ ১১৩ ৩,৪১২
১৫০ মালি ৪,৩২৬ ১৪৬ ৩,০৪৪
১৫১ থাইল্যান্ড ৩,৯২২ ৬০ ৩,৭৭২
১৫২ গাম্বিয়া ৩,৭২৬ ১২৩ ৩,৫৮২
১৫৩ দক্ষিণ সুদান ৩,০৬৪ ৬০ ২,৯১২
১৫৪ বেনিন ২,৯১৬ ৪৩ ২,৫৭৯
১৫৫ টোগো ২,৮৫৪ ৬৪ ২,২৭৪
১৫৬ বুর্কিনা ফাঁসো ২,৭৫৪ ৬৮ ২,৫৫২
১৫৭ গিনি বিসাউ ২,৪২২ ৪৩ ২,৩০৯
১৫৮ সিয়েরা লিওন ২,৪০৬ ৭৪ ১,৮২৮
১৫৯ ইয়েমেন ২,১০৭ ৬০৯ ১,৪৫৯
১৬০ লেসোথো ২,০৮৬ ৪৪ ১,২৭৬
১৬১ নিউজিল্যান্ড ২,০৩১ ২৫ ১,৯৫৩
১৬২ কিউরাসাও ১,৭৭৩ ১,০৩১
১৬৩ চাদ ১,৬৪৮ ১০১ ১,৪৭৬
১৬৪ লাইবেরিয়া ১,৫৫১ ৮২ ১,৩৩১
১৬৫ সান ম্যারিনো ১,৪২৮ ৪৫ ১,১৪৯
১৬৬ নাইজার ১,৩৮১ ৭০ ১,১৬৬
১৬৭ ভিয়েতনাম ১,৩১২ ৩৫ ১,১৫১
১৬৮ লিচেনস্টেইন ১,১৫৬ ১২ ৯৫২
১৬৯ চ্যানেল আইল্যান্ড ১,০৯৪ ৪৮ ৮৮৭
১৭০ সিন্ট মার্টেন ১,০১২ ২৫ ৯০০
১৭১ জিব্রাল্টার ৯৬৭ ৮৭১
১৭২ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ৭৪৬ ৭০০
১৭৩ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৫৯
১৭৪ সেন্ট মার্টিন ৬৯০ ১২ ৫৯৮
১৭৫ মঙ্গোলিয়া ৬৭২ ৩৪২
১৭৬ বুরুন্ডি ৬৬৪ ৫৭৫
১৭৭ পাপুয়া নিউ গিনি ৬৩০ ৫৮৮
১৭৮ তাইওয়ান ৬১৮ ৫৪৯
১৭৯ কমোরস ৫৯৬ ৫৭২
১৮০ মোনাকো ৫৮৩ ৫১৮
১৮১ ইরিত্রিয়া ৫৫৮ ৪৭৩
১৮২ তানজানিয়া ৫০৯ ২১ ১৮৩
১৮৩ ফারে আইল্যান্ড ৫০০ ৪৯৭
১৮৪ মরিশাস ৪৯৪ ১০ ৪৩৩
১৮৫ ভুটান ৩৮৬ ৩৬৩
১৮৬ আইল অফ ম্যান ৩৬৯ ২৫ ৩৩২
১৮৭ কম্বোডিয়া ৩০৬ ২৯৬
১৮৮ কেম্যান আইল্যান্ড ২৬৫ ২৪৫
১৮৯ বার্বাডোস ২৬০ ২৪১
১৯০ বারমুডা ২২৭ ২০০
১৯১ সেন্ট লুসিয়া ২২৩ ১০৬
১৯২ সিসিলি ১৬৬ ১৫৯
১৯৩ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১৬১ ১৫৫
১৯৪ ব্রুনাই ১৪৯ ১৪৫
১৯৫ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ১৩৯ ১২৮
১৯৬ সেন্ট বারথেলিমি ১২৭ ৯৪
১৯৭ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ৮৪ ৭৮
১৯৮ ডোমিনিকা ৭৭ ৬৩
১৯৯ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ৭১ ৭০
২০০ ম্যাকাও ৪৬ ৪৬
২০১ গ্রেনাডা ৪১ ৩০
২০২ লাওস ৩৯ ২৪
২০৩ ফিজি ৩৫ ৩৩
২০৪ নিউ ক্যালেডোনিয়া ৩২ ৩২
২০৫ পূর্ব তিমুর ৩০ ৩১
২০৬ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ১৫
২০৭ সেন্ট কিটস ও নেভিস ২০ ১৯
২০৮ গ্রীনল্যাণ্ড ১৮ ১৮
২০৯ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ১৬ ১৩
২১০ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ১৬ ১২
২১১ সলোমান আইল্যান্ড ১৬
২১২ মন্টসেরাট ১৩ ১৩
২১৩ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৪ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৫ এ্যাঙ্গুইলা
২১৬ মার্শাল আইল্যান্ড
২১৭ ওয়ালিস ও ফুটুনা
২১৮ ভানুয়াতু
২১৯ সামোয়া
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]