পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনা মোতায়েনের হুঁশিয়ারি ট্রাম্পের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৩০ পিএম, ০২ জুন ২০২০

 

যুক্তরাষ্ট্রের এক শহর থেকে আরেক শহরে ছড়িয়ে পড়েছে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ। বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। এদিকে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে সেনা মোতায়েনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। খবর বিবিসি।

গত ২৫ মে পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু হয় জর্জ ফ্লয়েড নামে এক কৃষ্ণাঙ্গের। গ্রেফতারের পর পুলিশের নির্যাতনে মারা যান তিনি। এরপরেই তাকে নির্যাতনের একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। তা থেকেই বিক্ষোভের সূত্রপাত।

এদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছেন, বেসামরিক নাগরিকদের প্রতিবাদ-বিক্ষোভে যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে তা নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রয়োজনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হতে পারে।

এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, যদি বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য ও শহরগুলোতে বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব না হয় এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা না যায় তবে এই সমস্যা দ্রুত সমাধান করতে তিনি সেনা মোতায়েন করবেন। জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে টানা সাতদিন ধরে বিক্ষোভ চলছে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে।

jagonews24

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজেকে ‘শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের মিত্র’ বলে উল্লেখ করেছেন। কিন্তু সোমবার রাতে হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে তিনি যখন বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখন হোয়াইট হাউসের বাইরে চলছিল নিরাপত্তা বাহিনীর তাণ্ডব। এসময় বিক্ষোভকারীদের ওপর রাবার বুলেট ও টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমি দাঙ্গা, লুটপাট, সন্ত্রাস, সহিংসতা ও সম্পদ বিনষ্ট রোধে হাজার হাজার সশস্ত্র সৈন্য, মিলিটারি ও আইনপ্রয়োগকারী বাহিনীর সদস্য নামাচ্ছি।’

ইতোমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের অনেক শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে। এদিকে, নিউইয়র্ক সিটিতে মঙ্গলবার পর্যন্ত লকডাউন থাকছে। তবে ওয়াশিংটন ডিসিতে কারফিউ আরও দু'রাত পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছেন, এই নৃশংস মৃত্যুতে আমেরিকানরা প্রকৃতপক্ষেই ব্যথিত। তবে কিছু উন্মত্ত জনতার কারণে তার স্মৃতি হারিয়ে যেতে পারে না।

টিটিএন/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]