সহিংসতা বন্ধ করুন: যুক্তরাষ্ট্রকে ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:০২ পিএম, ০২ জুন ২০২০

নিজ দেশের নাগরিকদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইরান। এক কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের হত্যাকাণ্ড ঘিরে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে নাগরিক বিক্ষোভে পুলিশের সহিংস আচরণ বন্ধের এই আহ্বান জানিয়েছে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

তেহরানে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মোসাভি বলেন, আমেরিকার জনগণ: রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের বিরুদ্ধে আপনাদের আর্তনাদ বিশ্ব শুনছে। বিশ্ব আপনাদের পাশে আছে।

তিনি বলেন, আমেরিকান কর্মকর্তা এবং পুলিশ: আপনাদের জনগণের বিরুদ্ধে সহিংসতা বন্ধ করুন। তাদের স্বাধীনভাবে নিশ্বাস নিতে দিন।

গত ২৫ মে যুক্তরাষ্ট্রের মিনিয়াপোলিস শহরে এক পুলিশ সদস্যের হাঁটু চাপায় কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু ঘিরে দেশটিতে নজিরবিহীন বিক্ষোভ, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট শুরু হয়েছে। তিন ডজনের বেশি শহরে কারফিউ জারি এবং দেশটির সিক্রেট সার্ভিসের সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিক্ষোভকারীদের দমাতে প্রয়োজনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

jagonews24

আব্বাস মোসাভি বলেন, আমরা আমেরিকান জনগণের প্রতি এ ধরনের দমন-পীড়ন দেখে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। যারা কোনও ধরনের সহিংসতা ছাড়াই শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করার চেষ্টা করছেন; তাদের প্রতি নির্বিচারে সহিংস আচরণ প্রদর্শন করা হচ্ছে।

চিরবৈরী শত্রু যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে দেশে এবং বিদেশে সহিংসতা ও নিপীড়ন চর্চার অভিযোগ করেছেন ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই কর্মকর্তা।

গত বছরের নভেম্বরে ইরানে পেট্রলের আকস্মিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে সহিংস বিক্ষোভ করেন। সেই সময় যুক্তরাষ্ট্র ইরানের ক্ষমতাসীন সরকারের প্রতি সহিংসতা থামিয়ে নাগরিকদের আহ্বান শোনার পরামর্শ দেয়।

নভেম্বরের ওই বিক্ষোভে ইরানে অন্তত ২৩০ জনের প্রাণহানি ঘটে। আহত হয় হাজার হাজার মানুষ। যদিও লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, গত বছর ইরানের বিক্ষোভে ৩০৪ জন নিহত হয়েছেন; যাদের মধ্যে ১২ জন শিশু। তবে যুক্তরাষ্ট্র ইরানের ওই বিক্ষোভে এক হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন বলে দাবি করে।

সূত্র : আলজাজিরা, এএফপি।

এসআইএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]