জাপানে নজিরবিহীন বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধসে ১৫ মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৩৭ পিএম, ০৪ জুলাই ২০২০

জাপানের দক্ষিণাঞ্চলীয় দ্বীপ কিউশুতে ব্যাপক ও নজিরবিহীন বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসে কমপক্ষে ১৫ জন মারা গেছেন। এছাড়া নিখোঁজ রয়েছেন আরও নয়জন। বন্যকবলিত একটি একটি নার্সিং হোম থেকেই ১৪ জনের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। এছাড়া অপরজন ভূমিধসের নিচে আটকে পরা অবস্থায় উদ্ধার হন।

বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, আচমকা এই বন্যায় হতাহতের বিষয়টি এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি জাপান সরকার। ওই এলাকার দুই লাখের বেশি বাসিন্দাকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া পরিস্থিতি মোকাবিলায় ১০ হাজার সেনা পাঠানো হয়েছে কিউশুতে।

আগামী রোববার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টির শঙ্কার কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এমন পরিস্থিতিতে স্থানীয় বাসিন্দাদের ‘সর্বোচ্চ সতর্ক’ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়ার পর অনেক মানুষ জরুরি আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে গিয়ে ঠাঁই নিয়েছেন।

জাপানের দক্ষিণের এই দ্বীপটির কুমামতো এবং কাগোশিমা প্রিফেকচারে (প্রশাসনিক অঞ্চল বিভাজন) সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। স্থানীয় কুমা নদী ১০টিরও বেশি স্থানে তীর উপচে বন্যা পরিস্থিতির তৈরি হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, এই বৃষ্টি নজিরবিহীন। এত পরিমাণে বৃষ্টি হবে তারা তা ভাবতে পারেননি।

প্রকাশিত ছবিতে দেখা যাচ্ছে, কুমা নদী প্লাবিত হয়ে গেছে, পানির নিচে তলিয়ে গেছে গাড়ি এবং বাড়িঘর। জাপানের আবহাওয়া দফতর বলছে, ওই অঞ্চলটিতে এর আগে এমন বৃষ্টির নজির নেই। স্থানীয় একজন নারী বলেছেন, ‘তিনি কল্পনাও করতে পারেননি যে এত বৃষ্টি হবে।’

কুমোমোটো প্রদেশের আশিকিতায় বসবাসকারী হারুকা ইয়ামাদা স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি দেখলাম বড় বড় গাছ এবং বাড়ির কিছু অংশ প্লাবিত হয়ে যাচ্ছে এবং সেগুলো ভেঙ্গে কিছুতে পড়ে যাওয়ার শব্দ শুনলাম। এছাড়া গ্যাসের গন্ধে পুরো এলাকার বাতাস ভরে গেছে’

এসএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]