বৈরুত বিস্ফোরণ ‘স্রষ্টার উপহার’ বলে ইসরায়েলি সাবেক এমপির উল্লাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:০৫ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০২০

ইসরায়েলের সাবেক এক সংসদ সদস্য বৈরুতের ধ্বংসাত্মক বিস্ফোরণের ঘটনা ‘স্রষ্টার উপহার’ বলে মন্তব্য করে উল্লাস প্রকাশ করেছেন। মঙ্গলবারের ওই বিস্ফোরণের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে তিনি এই উল্লাস প্রকাশ করেন।

ইসরায়েলের পার্লামেন্ট নেসেটের সাবেক সদস্য ফেইজলিন ফেসবুকে দেয়া পোস্টে বৈরুতে প্রাণঘাতী ওই বিস্ফোরণের জন্য সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ জানান। ওইদিন ইহুদির একটি বিশেষ বাৎসরিক উৎসব ছিল।

এই উৎসবের দিনের বৈরুতে বিস্ফোরণের কথা উল্লেখ করে ফেসবুকে তিনি বলেন, আজ ‘তু বি আভ’ উৎসব। একটি আনন্দের দিন। আমাদের ভালোবাসার দিনে এমন দুর্দান্ত উদযাপনের আয়োজন করায় সৃষ্টিকর্তা এবং সব মেধাবী ও সত্যিকারের নায়ক; যারা আয়োজন করেছিলেন তাদের অনেক ধন্যবাদ।

বিস্ফোরকের ব্যাপারে নিজের অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে বৈরুতের ওই বিস্ফোরণের ব্যাপারে তিনি বলেন, এটা কোনও দুর্ঘটনা নয়। ফেইজলিন বলেন, আপনি বিশ্বাস করবেন না যে, এটা অপরিষ্কার জ্বালানির গুদাম ছিল। আপনি কি বুঝতে পারছেন, এই নরক আমাদের ওপর ক্ষেপণাস্ত্র বৃষ্টি হিসাবে পড়ার কথা ছিল? বিস্ফোরকের ব্যাপারে আমার কিছু অভিজ্ঞতা আছে।

তিনি বলেন, আমরা মঙ্গলবার বৈরুতের বন্দরে যে বিস্ফোরণ দেখেছি সেটি ছিল অনেক বড়। এর ধ্বংসাত্মক প্রভাব (বিকিরণ ছাড়া) ছিল পারমাণবিক বোমার মতো।

লিকুদ পার্টির সাবেক এই সংসদ সদস্য ইসরায়েলের স্থানীয় একটি রেডিও-কে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, তিনি আশা করছেন, ইসরায়েল এই বিস্ফোরণের জন্য দায়ী। তেলআবিবে না হয়ে বৈরুতে বিস্ফোরণ হওয়ায় তিনি উল্লাস করতে পারছেন বলে মন্তব্য করেন।

এদিকে, বৈরুতে বিস্ফোরণের পরপরই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদের অনেকেই ইসরায়েল হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করছেন। বিস্ফোরণের আগে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর একটি টুইট ঘিরে এই জল্পনা আরও জোরাল হয়েছে।

মঙ্গলবার ইসরায়েলের রামলি শহরে দেশটির সেনাবাহিনীর একটি ঘাঁটি পরিদর্শনের পরপর এক টুইট বার্তায় সতর্ক করে দিয়ে নেতানিয়াহু বলেন, আমরা আস্তানায় আঘাত করি এবং এখন প্রেরণাদানকারীদের আঘাত করছি। আত্মরক্ষার জন্য আমরা প্রয়োজনীয় সবকিছুই করবো। আমি হিজবুল্লাহসহ তাদের সবাইকে বিষয়টি বিবেচনার পরামর্শ দিচ্ছি।

ইসরায়েলি এই প্রধানমন্ত্রী দেশটির সেনাবাহিনী গত সোমবার অধিকৃত গোলান উপত্যকায় সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর হামলা ঠেকিয়েছে বলে দাবি করেন। টুইটে তিনি বলেন, এসব নিরর্থক কোনও কথা নয়। ইসরায়েল রাষ্ট্রের ওজন আছে এবং এটার পেছনে আছে ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী। এটাকে গুরুত্বের সঙ্গে নেয়া উচিত।

দামেস্কের উপকণ্ঠে ইসরায়েলি বিমান হামলায় হিজবুল্লাহর একজন যোদ্ধা নিহত হওয়ার পর ওই এলাকায় সৃষ্ট উত্তেজনার মাঝে নেতানিয়াহু এসব মন্তব্য করেন। বৈরুতে হিজবুল্লাহকে লক্ষ্য করে ইসরায়েলের হামলার ব্যাপারে যদিও তেমন শক্তিশালী কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তারপরও নেতানিয়াহুর টুইটের ‘সময়’ বিবেচনা করে অনেকেই তেলআবিব বৈরুতের বিস্ফোরণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বলে অভিযোগ করছেন।

তবে ইসরায়েলে সামরিক বাহিনীর একটি সূত্র বৈরুতে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, এটা নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট কোনও ঘটনা নয়। অন্যদিকে, ইসরায়েলের চিরবৈরী শত্রু হিসেবে পরিচিত ইরানও বৈরুত বিস্ফোরণের সঙ্গে তেলআবিবের জড়িত থাকার ধারণা নাকচ করে দিয়েছে।

বিস্ফোরণের পরপরই লেবাননকে মেডিকেল ও মানবিক সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল। একই সঙ্গে বিস্ফোরণে হতাহতদের প্রতি শোক ও শ্রদ্ধা জানাতে তেলআবিবের পৌর ভবন আলোকসজ্জায় আলোকিত করার ঘোষণা দেয়।

যদিও লেবাননে সহায়তা পাঠানোর ঘোষণা দিয়ে ইসরায়েল প্রোপাগান্ডা চালাচ্ছে বলে কিছু পর্যবেক্ষক সমালোচনা করেছেন।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর, মিডল ইস্ট আই।

এসআইএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]