ভিয়েতনামে বন্যা ভূমিধসে মৃত ১০৫

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:৩৫ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০২০

কয়েক সপ্তাহের ভারী বর্ষণে সৃষ্ট বন্যা এবং ভূমিধসে ভিয়েতনামে অন্তত ১০৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। স্থানীয় গণমাধ্যম এবং একটি দাতব্য সংস্থা বলছে, দেশটির মধ্যাঞ্চলে ভয়াবহ এই বন্যায় আরও ৫০ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্স বলছে, বন্যা ও ভূমিধসে নিহতদের মধ্যে দেশটির সেনাবাহিনীর কয়েকজন সদস্যও রয়েছেন। গত সপ্তাহে দেশটির একটি সেনা ব্যারাক ভূমিধসে চাপা পড়ায় কয়েকজন সেনা নিহত হন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৭ জন নিখোঁজ রয়েছেন; যাদের ১৫ জন নির্মাণ শ্রমিক।

ভিয়েতনামে এই বন্যায় অন্তত ১ লাখ ৭৮ হাজার বাড়ি-ঘর ডুবে গেছে এবং ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৭ হাজার হেক্টর আবাদি জমির ফসল। এছাড়া বন্যায় আরও ৬ লাখ ৯০ হাজারের মতো গবাদিপশুর প্রাণহানি ঘটেছে অথবা ভেসে গেছে।

jagonews24

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, দেশটির মধ্যাঞ্চলের কুয়াং বিন প্রদেশে লোকজন ঘরের ছাদে উঠে ত্রাণের জন্য অপেক্ষা করছেন। প্রদেশে সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে।

ঘরের ছাদে আশ্রয় নেয়া এক বৃদ্ধা ভিটিভিকে বলেন, আমি গতকাল থেকে এখন পর্যন্ত কিছু খাইনি। আমাদের কিছুই নেই। খাবার নেই, ফোনও নেই। কোনও কিছুই নেই।

ভিয়েতনামের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির প্রেসিডেন্ট এনগুয়েন থি জুয়ান থু এবারের বন্যাকে গত কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বলে বর্ণনা করেছেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, আমরা দেখছি সব জায়গায় বাড়িঘর, রাস্তাঘাট এবং অবকাঠামো পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

jagonews24

ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব দ্য রেড ক্রস (আইএফআরসি) বলেছে, বিপর্যয়কর এই বন্যায় ভিয়েতনামের ৫০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আরও লাখ লাখ মানুষের জরুরি আশ্রয় দরকার।

আইএফআরসি জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ক্রিস্টোফার রাসি বলেন, এই বন্যা সর্বশেষ আঘাত। এর প্রভাবে লাখ লাখ মানুষ দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছাবে।

Vietnam

এসআইএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]